মঙ্গলবার ০২ জুন ২০২০
Online Edition

পরকীয়ার বাধা দেয়ায়

গাজীপুর সংবাদদাতাঃ গাজীপুরের কালীগঞ্জে পরকীয়া প্রেমে বাধা দেয়ায় সোমবার স্বামীর লাঠির আঘাতে এক গৃহবধূ নিহত হয়েছে।
পরে নিহতের লাশ হাসপাতালে ফেলে তার শ^াশুড়ি পালিয়ে গেছে। নিহতের নাম- রিতু বেগম (২৫)।
সে কালীগঞ্জ উপজেলার জাঙ্গালীয়া ইউনিয়নের কলুন গ্রামের মৃত আব্দুল কাইয়ূমের মেয়ে এবং স্থানীয় বক্তারপুর ইউনিয়নের বেরুয়া গ্রামের মোবারক হোসেনের স্ত্রী।
নিহতের চাচা হেমায়েত ও ভাই নাজমুল জানান, প্রায় ১০ বছর আগে গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার বেরুয়া গ্রামের মৃত আব্দুর রশিদের ছেলে মোবারকের সঙ্গে পারিবারিকভাবে রিতুর বিয়ে হয়।
তাদের সংসারে রিফাত নামের আট বছরের একটি ছেলে ও মাহিয়া নামের দুই বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।
বিয়ের পূর্ব থেকেই মোবারকের সঙ্গে একই গ্রামের মালয়েশিয়া প্রবাসী স্ত্রী হাজেরা বেগমের পরকীয়া সম্পর্ক চলে আসছিল। এ ঘটনা প্রকাশ পেলে রিতু তার স্বামীকে বাধা দেয়।
এ নিয়ে মোবারক ও তার স্ত্রীর মাঝে প্রায়শঃ ঝগড়া বিবাদ হতো। রবিবার সকালেও স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কথা কাটাকাটি হচ্ছিল। বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে মোবারক শক্ত কাঠ দিয়ে রিতুর মাথায় সজোরে আঘাত করে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে রিতুর শ্বাশুড়ি জয়গুননেছা স্থানীয়দের সহযোগীতায় তাকে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। ওই হাসপাতালে রিতুর লাশ ফেলে রেখে জয়গুন নেছা সেখান থেকে কৌশলে পালিয়ে যায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ