বৃহস্পতিবার ০১ অক্টোবর ২০২০
Online Edition

এমার্জিং কাপের ফাইনালে পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কা

চট্টগ্রাম অফিস : এমার্জিং টিমস এশিয়া কাপের সেমিফাইনালে শ্রীলঙ্কার কাছে আট উইকেটে হেরেছে বাংলাদেশ। শনিবার সকালে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামে বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে ৪৯.৩ ওভারে সব উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ সংগ্রহ করে ১৭৯ রান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৩৪.৫ ওভারে ২ উইকেটে ১৮০ রান সংগ্রহ করতে সক্ষম হন শ্রীলঙ্কা। ৬৭ বল বাকি থাকতেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় লঙ্কানরা। এই হারের মধ্য দিয়ে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নেয় বাংলাদেশ। বাংলাদেশ ইনিংসের সপ্তম ওভারের প্রথম তিন বলে ফার্নান্ডো ফেরান বাংলাদেশের তিন বাহাতি আফিফ হোসাইন, মুমিনুল হক ও নাজমুল হোসাইন শান্ত। প্যাভিলিয়ন প্রান্ত থেকে বল করায় আশিথার শিকারের শুরু আফিফকে দিয়ে। ব্যাটের কানায় লেগে বল ভেঙে দেয় উইকেট। পরের বলটা অফ স্টাম্পের অনেক বাইরে দিয়ে করেন আশিথা। কিন্তু মুমিনুল খোঁচা মারতে গিয়ে ব্যাটে লেগে বল স্থান করে নেয় উইকেট কিপার সাদেরা সামারাইকরামার গ্লাভসে। আর তৃতীয় বলে দুর্দান্ত এক ইয়ার্কার নাজমুল হোসাইন শান্তের উইকেট ছত্রখান করে দেন আশিথা। এর মধ্যে দিয়ে টুর্নামেন্ট প্রথম হ্যাটট্রিক পেল। ২০ রানেই এই তিন উইকেট হারিয়ে ধুঁকতে থাকা বাংলাদেশকে পথ দেখান নাসির হোসাইন। ৩৯ রানের ইনিংসে সাইফ হাসান, ইয়াসির আলী ও সাইফ উদ্দিনের সঙ্গে তিনটি ছোট্ট জুটি গড়েন তিনি। তবে ইনিংসের ১২০ রানের মাথায় নাসির হোসাইন ডি সিলভার বলে এলবির শিকার হয়ে ফিরলে সেখান থেকে দলকে টেনে তুলেন সাইফ উদ্দিন ও আবুল হাসান রাজু। অস্টম উইকেট জুটিতে দুজন যোগ করেন রান ৭২ বলে ৫৩ রান। ৪৮ তম ওভার শেষে ১৭৩ রানে রির্টায়ার্ড হার্ট হয়ে আবুল হাসান মাঠ ছাড়লে ব্যাটিংয়ে নামেন নাইম হাসান। ৪৯ তম ওভারের পঞ্চম বলে লাহিরু সামারাকোনের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন সাইফ উদ্দিন (৩৭)। শেষ ওভারের তৃতীয় বলে নাসুম আহমেদ বোল্ড হলে আবুল হোসেন রাজু আর মাঠে না নামায় বাংলাদেশের ইনিংস শেষ হয় নয় উইকেটে ১৭৯ রানে। ১৮০ রানের জয়ের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে শ্রীলঙ্কাও শুরুতে বিপর্যয়ে পড়ে। চার ওভার দুই বলের মধ্যে তারা হারিয়ে ফেলে দুই উইকেট। চার ওভার দুই বলের মধ্যে দুই উইকেট হারিয়ে ফেলা শ্রীলঙ্কার আর উইকেটই পড়ল না। অবিচ্ছিন্ন তৃতীয় উইকেট জুটিতে ১৬৫ রান করে দলকে জয়ের পথে নিয়ে যান সাদিরা সামারাইকরা ও সারিথ আসালাঙ্কা। ব্যাটিং করার সময় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে মাঠ ছাড়া বাংলাদেশ দলের পেসার আবুল হাসান রাজু আর মাঠেই ফিরতে পারেনি। ফলে একজন বোলার কম নিয়ে খেলতে হয়েছে বাংলাদেশকে। শুরুতেই দলীয় ছয় রানে সাইফ উদ্দিন চন্দ্রগুপ্তকে এবং ১৫ রানে সিহান জয়সুরিয়াকে স্টাম্পিংয়ের ফাঁদে ফেললে বাংলাদেশ খেলার মধ্যে থাকে। কিন্তু এরপর অধিনায়ক মুমিনুল হক সাতজন বোলার ব্যবহার করেও সাদিরা সামারাইকরা ও সারিথ আসালাঙ্কার জুটিকে টলাতে পারেনি। ওপেনার ব্যাটসম্যান আজমির আহমেদ এর পরিবর্তে একাদশে ঢুঁকেছেন ইয়াসির আলী। একাদশ থেকে তিনি বাদ পড়ায় ওপেনিংয়ে নামেন অনুর্ধ্ব ১৯ এর অধিনায়ক ও সহ অধিনায়ক যথাক্রমে সাইফ হাসান এবং আফিফ হাসান। ম্যাচ সেরা হয়েছেন শ্রীলস্কার এএম ফার্নান্ডো। তাকে পুরস্কার প্রদান করছেন টাইটেল স্পন্সর ম্যাক্স গ্রুপ এর প্রতিনিধি জনাব মঞ্জুরুল করিম।
ফাইনালে পাকিস্তান
শনিবার চট্টগ্রামের এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে এমার্জিং টিমস এশিয়া কাপের সেমিফাইনালে পাকিস্তানের কাছে ১২৩ রানে হেরেছে আফগানিস্তান। টস জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় আফগানরা। প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৫ উইকেটে ২৬৭ রান সংগ্রহ করে পাকিস্তান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে আফগানরা ৩১.৪ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ১৪৪ রান সংগ্রহ করে আফগানরা। পাকিস্তানের পক্ষে সর্বোচ্চ ১০৫ রান করে অপরাজিত ছিলেন মো. রিজয়ান। আফগানদের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩১ রান করেছেন নাজিবুল্লাহ জাদরান। ম্যাচ সেরা হয়েছেন পাকিস্তান দলের মো. রিজয়ান। বিজয়ী পাকিস্তান দলকে উইনিং বোনাস পুরস্কার দেন এসিসি এর  ইভেন্ট ম্যানেজার সুলতান রানা। খেলায় প্লেয়ার অব দ্যা ম্যাচ হওয়া পাকিস্তানের মোহাম্মদ রিজওয়ান কে ট্রপি প্রদান করেন সিজেকেএস এর অতিরিক্ত সাধারণ সম্পাদক  সৈয়দ শাহাবুদ্দিন শামীম এবং প্লেয়ার অব দ্যা ম্যাচের পুরস্কার প্রদান করেন সিজেকেএস নির্বাহী কমিটির সদস্য মশিউর রহমান। এ সময় ম্যাচ রেফারী এএসএম রকিবুল হাসান উপস্থিত ছিলেন। উপস্থাপনা করেন সিজেকেএস কাউন্সিলর শাহবাজ মুনতাসির চৌধুরী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ