সোমবার ০৩ আগস্ট ২০২০
Online Edition

বাণিজ্য ঘাটতি হ্রাসে ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশ

১ এপ্রিল, বিবিসি/দ্য হিল : যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য ঘাটতি হ্রাস আর বৈদেশিক বাণিজ্যের অপব্যবহার বন্ধে দুইটি নির্বাহী আদেশ জারি করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। কয়েকদিন পর চীনা প্রেসিডেন্টের যুক্তরাষ্ট্রে আসার কথা রয়েছে, ঠিক সেই সময়টাতেই ট্রাম্প এসব আদেশ দিলেন।
ডোনাল্ড ট্রাম্প বলছেন, এসব পদক্ষেপের ফলে আবার যুক্তরাষ্ট্রে পণ্য উৎপাদনের পরিবেশ ফিরে আসবে। বিশেষ করে দেশটির যে বিশাল বৈদেশিক বাণিজ্য ঘাটতি রয়েছে, বিশেষ করে চীনের সঙ্গে। সেটা মোকাবেলায়ও সহায়তা করবে। এর ফলে অর্ধ লক্ষ কোটি ডলারের বাণিজ্য ঘাটতি মোকাবেলা করা সম্ভব হবে বলে আশা করা হচ্ছে।
এসব আদেশের একটিতে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য ঘাটতি পর্যালোচনার নির্দেশ দিয়েছেন ট্রাম্প। অপর আদেশে বৈদেশিক বাণিজ্যের অপবব্যহার আর শুল্ক ব্যবস্থা খতিয়ে দেখা হবে।
ট্রাম্প আরও বলেছেন, তিনি যুক্তরাষ্ট্রের আইনে এমন কিছু কড়াকড়ি আরোপ করতে পারেন, যার ফলে বিদেশী পণ্য নির্মাতারা আর তাদের পণ্য অন্যায্য দামে যুক্তরাষ্টে বিক্রি করতে পারবে না।
সামনের সপ্তাহে চীনের প্রেসিডেন্ট শী জিনপিং এর সঙ্গে বৈঠক করতে যাচ্ছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। তার আগেই এসব আদেশ জারি করা হলো। যদিও ট্রাম্প প্রশাসনের দাবি, চীন তাদের লক্ষ্য নয়।  এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের এক নতুন জরিপে দেখা যায়, ট্রাম্পের কার্যক্রমকে অসমর্থন জানিয়েছে এক তৃতীয়াংশ ভোটার। তারা তার কার্যক্রমকে ব্যর্থ দাবি করে তাঁকে ‘এফ’ গ্রেড দিয়েছে।
ম্যাকক্লাচি-মারিস্ট জরিপ অনুযায়ী মাত্র ৩৮ শতাংশ ভোটার ট্রাম্পের কার্যক্রমের প্রতি সমর্থন জানায় এবং ৫১ শতাংশ ভোটার এই কার্যক্রম অসমর্থন করে।
ট্রাম্পের কার্যক্রমকে গ্রেডের ভিত্তিতে নির্বাচন করতে বলা হলে ৩২ শতাংশ ভোটার ট্রাম্পেকে ‘এফ’ গ্রেড দেয়। অন্যদিকে ২২ শতাংশ তাঁকে ‘বি’ গ্রেড, এবং ১৫ শতাংশ তাঁকে অন্যান্য গ্রেড দেয়।
সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার ওপর করা জরিপে দেখা যায় ভিন্ন একটি চিত্র। ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আরোহনের ১০০ দিনের মধ্যে ৫৮ শতাংশ ভোটার তাঁকে ‘এ’ এবং ‘বি’ গ্রেড দিয়েছিল। অপরদিকে মাত্র ১১ শতাংশ তাঁকে ‘এফ’ দিয়েছিল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ