শুক্রবার ২৭ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

আফগান তালেবানকে সহযোগিতা করছে রাশিয়া -যুক্তরাষ্ট

২৪ মার্চ, রয়টার্স : তালেবান জঙ্গিদের তৎপরতা বৃদ্ধির জন্য রাশিয়াকে দায়ী করেছে মার্কিন কর্তৃপক্ষ। ইউরোপে মার্কিন সেনাবাহিনীর জেনারেল বলেছেন, মস্কোর সহযোগিতায় তালেবানরা আফগানিস্তানের দক্ষিণাঞ্চলে শক্তি বৃদ্ধি করছে। তালেবানের সঙ্গে শান্তি আলোচনা চালিয়ে যাওয়ার কথা আগেই জানিয়েছে রাশিয়া। 
গত বৃহস্পতিবার মার্কিন জেনারেল কার্টিস স্কাপারত্তি বলেছেন, ‘আমি রাশিয়ার প্রভাব দেখেছি। তালেবানদের সঙ্গে রাশিয়া সহযোগিতা বাড়িয়েছে। এমন কি তারা তালেবানকে রসদ সরবরাহও করেছে।’ মার্কিন সিনেটের আর্মড সার্ভিসের কমিটির শুনানিতে ন্যাটো জোটের প্রধান কমান্ডার স্কাপারত্তি এসব কথা বলেন। তবে তালেবানের শক্তি বৃদ্ধিতে রাশিয়া কেমন ভূমিকা রেখেছে, বা কেমন রসদ সরবরাহ করেছেন, সে সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু উল্লেখ করেননি তিনি। মস্কো প্রথম থেকেই আফগানিস্তানে মার্কিন যুদ্ধনীতির সমালোচনা করে আসছে। ১৯৮০-র দশকে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন এখানেই এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে সামিল হয়েছিল।
রুশ কর্মকর্তারা রসদ সরবরাহ করার বিষয়টি নাকচ করে দিয়েছেন। তবে জানিয়েছেন, তালেবানদের আলোচনার টেবিলে নিয়ে আসার জন্য উপযুক্ত পরিবেশ তৈরির জন্য তারা কাজ করে যাচ্ছেন। মার্কিন কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুযায়ী, আফগানিস্তানের ৬০ শতাংশেরও কম জায়গা রয়েছে সরকারি বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে। দেশটির প্রায় অর্ধেকটাই বিভিন্ন সশস্ত্র বাহিনীর দখলে রয়েছে, অথবা সেসব এলাকায় সংঘর্ষ চলছে।
বৃহস্পতিবার আফগান কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তালেবানরা হেলমান্দ প্রদেশের কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ সানগিন জেলা দখল করে নিয়েছে। আফগানিস্তানের মার্কিন কমান্ডার জেনারেল জন নিকোলসন গতমাসে জানিয়েছেন, ‘আগফানিস্তান অচলাবস্থায় রয়েছে। আর এর পরিবর্তনের জন্য আরও কয়েক হাজার ন্যাটো সেনা দরকার।’ স্কাপারত্তি জানিয়েছেন, ২০০১ সালে আফগানিস্তানে মার্কিন আগ্রাসন শুরুর পর যুক্তরাষ্ট্রের এক হাজার ৮০০ জনেরও বেশি সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন। তিনি বলেন, ‘এই যুদ্ধে ন্যাটো এবং মার্কিন বাহিনীকে বিজয়ী হতেই হবে।’ এদিকে, তালেবান কর্মকর্তারা রয়টার্সকে জানিয়েছে, ২০০৭ সাল থেকে মস্কোর সঙ্গে তাদের উল্লেখযোগ্য সম্পর্ক রয়েছে। তবে রাশিয়ার সঙ্গে এই সম্পর্ক ‘নৈতিক ও রাজনৈতিক সমর্থনের’ বেশি কিছু নয় বলেও তারা জানায়।
উল্লেখ্য, গত ডিসেম্বরে আফগানিস্তানে তালেবানের সঙ্গে শান্তি আলোচনা চালানো এবং আফগানিস্তানের ভবিষ্যৎ সরকার সম্পর্কে মস্কোতে পাকিস্তান, চীন ও রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের মধ্যে এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ওই বৈঠকে তিন দেশের প্রতিনিধিরা ভবিষ্যতে আফগান সরকারের সঙ্গে আলোচনার বিষয়ে একমত পোষণ করেন।
তখন রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ‘ওই তিন দেশ কাবুল এবং তালেবানের মধ্যকার শান্তি আলোচনা সঠিকভাবে এগোনোর জন্য জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের বিষয়েও একমত পোষণ করেছে।’ তখন ওই তিন দেশের প্রতিনিধিরা আফগানিস্তানে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস-এর শক্তি বৃদ্ধির বিষয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ