রবিবার ২৯ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

বইপত্র

স্পেনে মুসলিম সভ্যতার উত্থান ও পতন
অধ্যাপক ফজলুর রহমান
প্রচ্ছদ অলংকরণে : বায়েজীদ মাহমুদ ফয়ছল
পান্ডুলিপি প্রকাশন,  সিলেট
মূল্য ৮০/- টাকা মাত্র।

বইটি মনোযোগ সহকারে পড়লাম। লেখকের গবেষণামূলক পরিশ্রমলব্ধ বইটি পড়ে আমার ব্যক্তিগত উপলব্ধিতে যা এসেছে, তা হলো- কালের বিবর্তনে সময়ের ধাপে ধাপে ব্যক্তি, সমাজ ও রাষ্ট্রের উত্থান ও পতন ইতিহাসের ধারাবাহিকতায় ঐতিহাসিক গণের কলমের কালির আঁচড়ে বিবৃত হয়ে আসছে। ইতিহাস থেকে মানুষ শিক্ষা নিয়ে আগামী দিনের ভবিষ্যত রচনায় সোনালী যুগ সৃষ্টিতে আত্মনিয়োগ করে। তা মানুষের স্বভাবজাত চেতনা এবং মনোবল ও দৃঢ়তার অঙ্গীকার। সবকালেই সেই ইতিহাস ফুটে উঠছে লেখক বা ইতিহাস বেত্তাগণের লেখনীর মাধ্যমে এবং ইতিহাসের বিষয়গুলোকে শিক্ষণীয় করে তা থেকে আগামী ভবিষ্যত রচনায় যে প্রেক্ষাপট সৃষ্টিতে মৌলিক দৃষ্টিকোণ থেকে যে সমস্ত তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে পাঠকগণের করপুটে তুলে দেয়া হয়, তার মাধ্যম হচ্ছে বই বা পুস্তক। তেমনি ধরনের একটি ইতিহাস সমৃদ্ধ এবং চুলচেরা বিশ্লেষণ ভিত্তিক একটি গ্রন্থ ‘স্পেনে মুসলিম সভ্যতার উত্থান ও পতন’। আমরা যারা বইটি পড়েছি বাস্তবিক অর্থে একটি ইতিহাসের মৌলিক গ্রন্থ বলেই মনে হয়েছে। যাতে আছে মুসলিম জাগরণের সূচনা, ব্যাপ্তিকাল, বিস্তৃতি এবং ইসলামী নীতিমালার উপর ভিত্তি করে প্রতিষ্ঠিত বিশাল মুসলিম সাম্রাজ্য। যা যুগে যুগে রসুল (স:) এর বিদায় নেয়ার পরও মুসলিম খেলাফতের শৌর্য-বীর্যের মহান রাষ্ট্র নায়কদের ইনসাফপূর্ণ শাসন কালের সোনালী কীর্তি গাঁথা বিবরণ।
লেখক এই বইটিতে মুসলিম খেলাফতের রাষ্ট্র পরিচালকদের ধারাবাহিক বিবরণ অত্যন্ত সুন্দরভাবে ইতিহাস থেকে তুলে ধরেছেন। যা সাধারণত অন্যান্য বইগুলোতে সহজে খুঁজে পাওয়া যায় না। তবে একটি কথা বলা দরকার, ইতিহাস কখনো সুখপাঠ্য হয় না, শুধুমাত্র তথ্য-উপাত্ত সম্বলিত যুগের উত্থান-পতনের বিবরণ এবং অনুধাবণ ও শিক্ষণীয় মৌলিক অনুসন্ধানীয় চিত্র রেখা কথা বলে।
তাই অধ্যাপক ফজলুর রহমান একজন বিদগ্ধ ইতিহাসের অনুসন্ধানীয় মৌলিক লেখক বলেই জানি। তার অন্য একটি মৌলিক গ্রন্থ পূর্বে প্রকাশিত সেক্যুলারিজম(ধর্মনিরপেক্ষতা) বইটি লিখে পাঠক সমাজে বেশ সমাদৃত হয়েছেন। রাজনৈতিক উত্থান-পতন এবং রাজনীতির দর্শন নিয়ে সুন্দর একটি বই উপহার দিয়েছিলেন। সেই বইটি পড়ারও আমার সৌভাগ্য হয়েছিল। বর্তমানে এই বইটি আমাদের জ্ঞান চক্ষুকে ইতিহাসের আলোকে উন্মোচিত করবে এবং আদর্শ সমাজ ব্যবস্থা বিশেষ করে ইসলামী সভ্যতায় গড়া একটি কল্যাণ রাষ্ট্রের ধারণাকে সুস্পষ্ট করবে এই বইটি, সেই বিশ^াস আমার আছে। অতএব পাঠক সমাজের কাছে ইতিহাসের আয়নায় এই বইটি ব্যাপক জনপ্রিয়তা পাবে বলে মনে করছি এবং প্রত্যেকের কাছেই বইটি সংরক্ষণে রাখার অতীব প্রয়োজন। মুসলিম স্থাপত্য শিল্পের নিদর্শন খচিত সুন্দর প্রচ্ছদে মলাটবাঁধা বইটি খুব বড় আকারের না হলেও সংক্ষিপ্ত কলেবরে বিশাল ইতিহাসকে লেখক অত্যন্ত যতœ সহকারে ফুটিয়ে তুলেছেন চড়াই-উৎরাই পার হওয়া সোনালী যুগের মুসলিম সভ্যতা এবং পাশাপাশি শিক্ষণীয় দিকগুলোকে বিশ্লেষণমূলক পর্যালোচনায় পতনের কারণ ও প্রেক্ষাপট তুলে ধরেছেন। আগামী দিনের সোনালী যুগ সৃষ্টিতে বইটি মৌলিক প্রেরণা হিসেবে আমাদের অন্তরকে জাগরিত করবে, এ প্রত্যাশা করাই যেতে পারে। বইটির ব্যাপকতা, যথার্থতা ও গুরুত্ব সকলের কাছে পাঠক প্রিয়তায় সমাদৃত হোক এই প্রত্যাশায় বইটির বহুল প্রচার কাম্য।
-আবু মালিহা

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ