শুক্রবার ২৭ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

উপকূলীয় ও পাহাড়ী অঞ্চলের উপযোগী কৃষি প্রযুক্তি উদ্ভাবনের উপর গুরুত্বারোপ

 

গাজীপুর সংবাদদাতা, ১৫ মার্চ: কৃষি মন্ত্রণালয়ের বার্ষিক কর্মসম্পাদন ব্যবস্থাপনা (এপিএ) সংক্রান্ত বিশেষজ্ঞ পুলের সদস্যরা মঙ্গলবার বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি) পরিদর্শণ করেছেন। 

এপিএ’র বিশেষজ্ঞ সদস্যবৃন্দ গাজীপুরস্থিত বারি’র প্রধান কার্যালয়ের পৌঁছলে ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. আবুল কালাম আযাদ এবং পরিচালকবৃন্দ তাদেরকে অভ্যর্থনা জানান। এপিএ টিমের বিশেষজ্ঞ পুলের সদস্যবৃন্দের মধ্যে ছিলেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের প্রাক্তন সচিব ড. এস. এম. নাজমুল ইসলাম, পরিকল্পনা কমিশনের প্রাক্তন সদস্য (সচিব) ড. এমএ সাত্তার ম-ল, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের প্রাক্তন মহাপরিচালক এম এনামুল হক, কৃষি মন্ত্রণালয় অতিরিক্ত সচিব (গবেষণা) মো. ফজলে ওয়াহেদ খোন্দকার ও গবেষণা-১ শাখার উপসচিব মো. বিল্লাল হোসেন।   

এপিএ’র বিশেষজ্ঞ দলটি বারি’র চার ফসল ভিত্তিক ফসল বিন্যাসের মাঠ, ভুট্টার মাঠ, বিটি বেগুনের বীজ উৎপাদন মাঠ (বারি বিটি বেগুন-৪), ফল গবেষণা মাঠ, সবজী গবেষণা মাঠ, হাইড্রোপনিক, নেট হাউস/ফুলের মাঠ পরিদর্শন শেষে কীটতত্ত্ব বিভাগের টক্সিকোলজি ও আইপিএম ল্যাব, এফএমপিই বিভাগের কৃষি যন্ত্রপাতি ল্যাব ও পোস্টহারভেস্ট বিভাগের ল্যাব পরিদর্শন করেন। এসময় বারি’র সেমিনার কক্ষে অনুষ্ঠিত এক আলোচনা সভায় বিশেষজ্ঞ পুলের সদস্যবৃন্দ আগামী দিনের কৃষির যান্ত্রিকীকরণ, উপকূলীয় ও পাহাড়ী অঞ্চলের উপযোগী কৃষি প্রযুক্তি উদ্ভাবনের উপর গুরুত্বারোপ করেন। সভায় বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ জালাল উদ্দীন, বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের (ব্রি) মহাপরিচালক ড. ভাগ্য রানী বণিক, বাংলাদেশ পরমানু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মো. শমসের আলীসহ বিভিন্ন কৃষি বিজ্ঞানী ও কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। সভায় ২০১৭ ইং পর্যন্ত সর্বশেষ অগ্রগতির উপর পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপনা করেন মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. সৈয়দ নূরুল আলম এবং বারি’র কার্যক্রম, অগ্রগতি ও সাফল্য তুলে ধরেন পরিচালক ড. মো. লুৎফর রহমান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ