মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

রেলওয়ের উচ্চপদস্থ এক কর্মকর্তা জালিয়াতির মাধ্যমে সম্পত্তি দখলের পাঁয়তারা করছে

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ রেলেওয়ের এক উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তার সহযোগিতায় যুবলীগ নেতার নেতৃত্বে জাল জালিয়াতির মাধ্যমে এক অসহায় নারীর ৫০ কোটি টাকা মূল্যের সম্পত্তি দখলের পাঁয়তারা চলছে। গতকাল বুধবার সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন (ক্র্যাব) মিলনায়তনে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে  এ অভিযোগ করেন মোসাম্মৎ আমেনা বেগম ।
সাংবাদিক সম্মেলনে আমেনা বেগম বলেন, সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের জনপদ ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গায় বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত সচিব হেমায়েত হোসেন গং এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে সরকারি ও ব্যক্তি মালিকানা জমি দখল থেকে শুরু করে নানা অপরাধ-অপকর্ম করে আসছেন। উপজেলায় এখন হেমায়েত আতংক বিরাজ করছে। আমিও তার রোষাণলে পড়ে স্বর্বস্ব হারাতে বসেছি। তিনি ভুয়া দলিল ও পর্চ্চার মাধ্যমে আমার ক্রয়কৃত বৈধ সম্পত্তি আত্মসাতের পাঁয়তারা চালাচ্ছেন। তার পালিত বাহিনী দিয়ে আমাকে হত্যা ও গুম করার হুমকি দিচ্ছে। তার বিরুদ্ধে  স্থানীয় থানায় একাধিক জিডি করা হলেও প্রশাসন কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। ক্ষমতাধর এই রেলওয়ের কর্মকর্তা হেমায়েত উপজেলার ৪১ নং মৌজার খতিয়ান নং-৮৮৫, দাগ নং-৮/১২৭২, জমির পরিমাণ-১.০৮ শতাংশ আমার জমির মধ্যে নানা কৌশলে সম্পত্তির ৮০ শতাংশ জমি আত্মসাতের অপচেষ্টা চালাচ্ছে। এ নিয়ে বিজ্ঞ আদালতে মামলার বিচারকার্য চলমান, আলফাডাঙ্গা সহকারী জজ আদালত দেওয়ানী মামলা নম্বর-৩৭/২০১৩। তারপরও তিনি ভুয়া দলিলের মাধ্যমে মতি মাহবুবা নামের এক মহিলাসহ বিভিন্ন লোকজনের কাছে বিক্রি করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এসবকে কেন্দ্র করে স্থানীয় যুবলীগ নেতা রানার নেতৃত্বে আমার আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতেও কয়েক দফা হামলা হয়েছে। এতে ইনামুল হক ইমন, তার স্ত্রী বেলী এবং বাবা মো: হাসান মৃধাসহ বেশ কয়েকজন আহত হন। তার বাবা বর্তমানে হাসপাতালে ভর্তি। এ বিষয়ে স্থানীয় থানায় একাধিকবার বৈঠক হলেও ওই পদস্থ কর্মকর্তা তার বৈধ কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেননি। পরে ফরিদপুর পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগও করা হয়েছে। তাই তিনি বাধ্য হয়ে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইজিপির কাছে জীবনের নিরাপত্তা ও তার বৈধ সম্পত্তি উদ্ধারে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ