বুধবার ১৫ জুলাই ২০২০
Online Edition

ট্রাম্পের রুশ সংযোগের অভিযোগ নিয়ে গণশুনানির সিদ্ধান্ত

১৫ মার্চ, রয়টার্স : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারণাকালীন রুশ সংযোগ খতিয়ে দেখতে শুনানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিনেট (উচ্চকক্ষ) এবং হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভস (নিম্নকক্ষ)-এর ইন্টেলিজেন্স কমিটি। হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভস ইন্টিলিজেন্স কমিটি জানায়, রুশ সংযোগ নিয়ে স্বতন্ত্র অনুসন্ধান করছে তারা। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী সোমবার প্রথমবারের মতো তারা শুনানি করবে। কংগ্রেসনাল ডেমোক্রেটরা এই বিষয় তদন্তের জন্য নিরপেক্ষ কিংবা বিশেষ কুশলী নিয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন। তবে ট্রাম্প নেতৃত্বাধীন রিপাবলিকান নেতারা দাবি করছেন, এই তদন্তের জন্য বর্তমান কমিটিই যথেষ্ট। এদিকে সিনেট ইন্টিলিজেন্স কমিটির চেয়ারম্যান বলেছেন, ট্রাম্পের নির্বাচনী ক্যাম্পেইনের সঙ্গে রাশিয়ার সংশ্লিষ্টতা নিয়ে গণশুনানি করবেন তারা। মঙ্গলবার রিপাবলিকান সিনেটর রিচার্ড বার বলেন, ‘এটা হবেই। আমি জানি না কবে। তবে খুব শিগগিরই আমরা এই বিষয় নিয়ে বসবো।’
জানুয়ারিতে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা জানিয়েছিল, ২০১৬ নির্বাচনে ডেমোক্রেটদের উপর সাইবার হামলা চালিয়েছে রাশিয়া। তবে রাশিয়া এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার আগেই তার বিরুদ্ধে রুশ সংযোগের অভিযোগ উঠেছিল। বরাবরই ট্রাম্প সেই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছিলেন। তবে ১৪ ফেব্রুয়ারি রুশ সংযোগ স্বীকার করে পদত্যাগ করেন ট্রাম্পের নিরাপত্তা উপদেষ্টা মাইকেল ফ্লিন। সে সময় ট্রাম্পের জামাতা জ্যারেড কুশনার ও অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেসনের বিরুদ্ধেও রুশ সংযোগের অভিযোগ ওঠে। তবে তারা পদত্যাগ করেননি। ২ মার্চ মার্কিন সংবাদমাধ্যম ইউএসএ টুডে তাদের এক প্রতিবেদনে রুশ কূটনীতিকের সঙ্গে ট্রাম্পের আরও দুইজন নিরাপত্তা উপদেষ্টার বৈঠকের খবর ফাঁস করে। ইউএসএ টুডে এক প্রতিবেদনে জানায়, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ক্যাম্পেইনে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করা জেডি গর্ডনও রাশিয়ান রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে দেখা করেন। ২ মার্চ বৃহস্পতিবার একথা নিজেই স্বীকার করেছেন এই কর্মকতা। সিএনএনকে দেয়া সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, আরো দুই নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা কার্টার পেজ ও ওয়ালিদ ফেয়ারসের সঙ্গে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে দেখা করেছেন তিনি। সাক্ষাতকালে রাশিয়ার সঙ্গে সম্পোর্কন্নয়ন নিয়ে আলোচনা করেন তারা। তবে ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারণা নিয়ে কোনো কথা উঠে আসেনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ