শনিবার ৩০ মে ২০২০
Online Edition

অর্থের অভাবে টিউমার অপারেশন করাতে পারছেন না পত্রিকা  বিক্রেতা সাইফুল ইসলাম

খুলনা অফিস : অর্থের অভাবে টিউমার অপারেশন করাতে পারছেন না পত্রিকা বিক্রেতা মো. সাইফুল ইসলাম (৪৫)। তার খুলনা জেলার রূপসা উপজেলার নৈহাটী দক্ষিণপাড়া গ্রামের বাড়িতে ঢুকেই দেখি তজবি হাতে বারান্দায় বসে জিকির করছেন। পরিচয় দিয়ে জিজ্ঞেস করলাম কেমন আছেন। কষ্টের সাথে বললেন ভাল। শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে চেহারাটা হঠাৎ যেন মলিন হয়ে যায়। ধরা গলায় বললেন, গলায় ও মাথায় টিউমার হয়েছে, চোখে কম দেখি, কানে কম শুনি, চলাচল করতে পারিনা, কোনো কিছু খেতেও ইচ্ছে করে না। দীর্ঘদিন খুলনার একটি বে-সরকারি হাসপাতালে ভর্তি ছিলাম। মাত্র কয়েক দিন আগে বাড়িতে এসেছি। চিকিৎসার জন্য অনেক টাকা ব্যয় হয়েছে। এখনো সুস্থ হতে পারিনি। টিউমার অপারেশনের জন্য ভারত যেতে হবে। কিন্তু অনেক অর্থের প্রয়োজন। অর্থের অভাবে অপারেশন করাতে পারছি না। তিনি বলেন, সম্প্রতি হকার্স ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম তালুকদারসহ আরো কয়েকজন আমার খোঁজ নিতে বাড়ি আসেন। তিনি জেলা সংবাদপত্র হকার্স ইউনিয়নের একজন সদস্য।

সাইফুল ইসলাম জানান, রূপসা উপজেলার নৈহাটী দক্ষিণপাড়া এলাকায় আমার পৈতৃক ভিটা। পিতা আব্দুল আজিজ, মাতা হামিদা বেগম। ইলাইপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে কোনো রকম প্রাথমিকের গন্ডিটা পার করে এরপর আর পড়ালেখা করতে পারিনি। ১৯৮০ সালে আমি পত্রিকা বিক্রির পেশায় আসি। নগরীর মোল্লাপাড়া এলাকার বাসিন্দা ও জেলা সংবাদপত্র হকার্স ইউনিয়নের প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত বেলায়েত হোসেন আমাকে এ পেশায় এনেছেন। তখন বেলায়েত হোসেনের পত্রিকা গ্রাহকদের কাছে পৌঁছে দিতাম। মাসে আড়াইশ’ টাকা বেতনে কাজ করতাম। খালিশপুর, বিহারী কলোনি, নিউজপ্রিন্ট মিল ও চিত্রালী এলাকায় খবরের কাগজ বিক্রি করতাম।

তিনি জানান, ১৯৮৩ সালে বেলায়েত হোসেনের কাছ থেকে সরে এসে নিজে এ ব্যবসা শুরু করি। তখন বসুপাড়া, নিরালা, বানিয়াখামার ও নাজিরঘাট এলাকায় সংবাদপত্র বিক্রি করতাম। এভাবেই চলতে থাকে পেশাগত কাজ। ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসের শেষের দিকে আমি জটিল রোগে আক্রান্ত হই। অসুস্থ হওয়ার পর পত্রিকা ব্যবসার দায়িত্বভার ছোট ভাই শাহিনুর রহমানকে দিয়ে দেই।

সাইফুল ইসলাম ১৯৯১ সালে বিয়ে করেন। দুই সন্তানের জনক। বড় সন্তান জান্নাতুল ফেরদাউস। সে স্থানীয় নিউ হলি চাইল্ড কিন্ডার গার্টেনের তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রী। ছোট সন্তান জিহাদুল ইসলাম। গুরুতর অসুস্থ সাইফুল ইসলাম তার চিকিৎসার জন্য সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার অনুরোধ জানিয়েছেন। যোগাযোগ ও সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা- মোবাইল নং-০১৯১২-৫৫৫২৬২, জনতা ব্যাংক, গল্লামারী শাখা, হিসাব নং-৪৭৪১।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ