শনিবার ৩০ মে ২০২০
Online Edition

প্রধানমন্ত্রীর আসন্ন ভারত সফরেই তিস্তা চুক্তি হবে -ওবায়দুল কাদের

 

স্টাফ রিপোর্টার: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরে যে দ্বি-পাক্ষিক চুক্তি হবে তা জাতীয় স্বার্থেই হবে। চুক্তি প্রকাশ্যে হবে, এখানে কোন কিছু গোপন থাকবে না। প্রধান মন্ত্রীর আসন্ন ভারত সফরেই তিস্তা চুক্তি হবে । 

গতকাল বুধবার নিজ নির্বাচনী এলাকা নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলার চাপরাশিরহাটে ঈসমাইল ডিগ্রি কলেজে নতুন ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন, শিউলি কামরুন্নাহার একরাম প্রাথমিক বিদ্যালয় ও নিম্ন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ভারতে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। বাংলাদেশের স্বার্থে এই সফরে চুক্তি হবে প্রকাশ্যে। বাংলাদেশের স্বার্থে সমঝোতা স্বারক হবে প্রকাশ্যে। কোন কিছুই গোপনে হবে না। 

'প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন ও অর্জন দেখে বিএনপি এখন দিশেহারা হয়ে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে সরকারকে হটানোর ষড়যন্ত্র করছে'-এ মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর মতই কারো কাছে মাথা নোয়ানোর লোক নয়। দেশের স্বার্থকে বিকিয়ে দিয়ে কারো কাছে মাথানত করবেন না। ভারতের সাথে বাংলাদেশের সমঝোতা স্মারক ও চুক্তি হবে প্রকাশ্যে। আর এই চুক্তি হবে জাতীয় স্বার্থে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, গঙ্গা চুক্তির মত তিস্তা চুক্তি হয়ে যাবে। তিস্তা চুক্তি চুড়ান্ত পর্যায়ে। ৪১ বছরের সীমান্ত চুক্তি ও ছিট মহল বিনিময় এবং গঙ্গা চুক্তি যিনি করেছেন, তিস্তা চুক্তিও তিনি করবেন। আগামী এপ্রিল মাসে প্রধানমন্ত্রী ভারত যাচ্ছেন, সেখানে দেশের স্বার্থে খোলামেলাভাবে চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করবেন। তা অবশ্যই প্রকাশ্যেই করবেন। এ নিয়ে পানি ঘোলা না করার জন্য বিএনপির প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

 সেতুমন্ত্রী বলেন, ৪১ বছর লেগেছে সীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নে। কিন্তু তিস্তাচুক্তি বাস্তবায়নে এত সময় লাগবে না। যে কোন সময় তিস্তা চুক্তি হবে। যারা এখন পানি ঘোলা করছেন তারা দেশের জন্য কিছুই করতে পারেনি। এখন তারা পদে পদে নেত্রীর উন্নয়ন কাজে বাধা দিচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ