শনিবার ৩০ মে ২০২০
Online Edition

দৃষ্টি অন্যত্র ফেরাতেই ভারত যাওয়ার আগে প্রধানমন্ত্রী র এবং আমোরিকা নিয়ে কথা বলছেন -আমির খসরু

গতকাল বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে ঘুরে দাঁড়াও বাংলাদেশের উদ্যোগে এডভোকেট খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানে বক্তব্য পেশ করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী -সংগ্রাম

 

স্টাফ রিপোর্টার : র এবং আমেরিকার মাধ্যমে ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতা এসেছিল- প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্যের কঠোর সমালোচনা করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, ১৬ বছর পর কেনো হঠাৎ করে প্রধানমন্ত্রী এ কথা স্মরণ করলেন। এটা চিন্তার বিষয়। এছাড়া প্রশ্ন জাগতে পারে, আওয়ামী লীগও কী ‘র’ এবং আমেরিকার মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছে। নইলে ভারত যাওয়ার আগে কেন র-আমেরিকা নিয়ে কথা বলবেন। দৃষ্টি অন্যদিকে নেয়ার জন্যই একথা বলা হচ্ছে। 

গতকাল বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। বিএনপির সাবেক মহাসচিব খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের ৬ষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এ আলোচনা সভার আয়োজন করে ‘ঘুরে দাঁড়াও বাংলাদেশ’ নামে একটি সংগঠন। 

প্রসঙ্গত, ১১ মার্চ ‘ভারতের কাছে গ্যাস বিক্রির মুচলেকা দিয়ে ২০০১ সালে খালেদা জিয়া ক্ষমতায় আসেন বলে অভিযোগ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে হারাতে ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’ ও যুক্তরাষ্ট্র একজোট হয়েছিল। তখন ‘র’ এর প্রতিনিধি ও যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের লোক বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয় হাওয়া ভবনে বসে থাকতেন।

আমীর খসরু বলেন এপ্রিল মাসে প্রধানমন্ত্রী ভারত সফরে যাচ্ছে। আর ভারতে যাওয়ার আগে প্রধানমন্ত্রী কেনো এমন বক্তব্যে দিচ্ছেন? এর মধ্যে রহস্য কী ? কেনো এধরনের প্রচার? কিছু ঘটতে যাচ্ছে। কিন্তু আমরা বুঝতে পারছি না। আর সেই বিষয় থেকে আমাদের দৃষ্টি অন্যত্র নেওয়ার জন্য এ ধরনের কথা বলা হচ্ছে- আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, নিজের দেশকে কেনো আপনি অন্য দেশগুলোর কাছে ছোট করছেন। এর কোন প্রয়োজন নেই। দেশে গভীর ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে বলেও নেতাকর্মীদের সর্তক করেন বিএনপির এ সিনিয়র নেতা।

আমীর খসরু বলেন, দেশের মানুষ অসহায় জীবন-যাপন করছে। মানুষের আজ মৌলিক অধিকার নেই। শুধু মাত্র আওয়ামী লীগের লোকদের অধিকার আছে। আর এর মধ্যে গণমাধ্যমকেও নিয়ে আসা হয়েছে। সাংবাদিকরা এখন একটি দলের কথা প্রতিফলন ঘটাচ্ছে।

নিবন্ধনের ভয় দেখিয়ে বিএনপিকে নির্বাচনে নেয়া যাবে না মন্তব্য করে এই নেতা বলেন, বিএনপি দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় দল। নির্বাচন কাঠামো শক্তিশালী না হলে দেশের জনগণ নির্বাচন হতে দেবে না, নির্বাচন হবে না। তাই নিবন্ধনের ভয় দেখিয়ে বিএনপিকে নির্বাচনে নেয়া যাবে না। গুম-খুনের মাধ্যমে কাউকে আর নির্বাচনে যেতে দেয়া হবে না।

খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশে অনেক রাজনীতিবিদ আছেন, যারা নিজের স্বার্থে দল ও দেশকে ধ্বংস করছেন। কিন্তু দেলোয়ার ভাই এর ব্যতিক্রম ছিলেন। সুতরাং ওনার দেখানো পথে চললে দল ও দেশের জন্য ভালো। খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের কোন সিদ্ধান্ত ভুল ছিল না বলেও মন্তব্য করেন তিনি। 

সাবেক ছাত্রনেতা কাদের সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে এতে আরও বক্তব্য দেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মদ রহমাতুল্লাহ প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ