সোমবার ৩০ জানুয়ারি ২০২৩
Online Edition

দশম সংসদের ১৪তম অধিবেশনের সমাপ্তি

 

সংসদ রিপোর্টার : শেষ হলো জাতীয় সংসদের ১৪তম অধিবেশন। গতকাল শনিবার রাত ১০টা ৪০ মিনিটে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী অধিবেশন সমাপ্তি সংক্রান্ত রাষ্ট্রপতির আদেশ পড়ে শোনান। এর আগে গত ২২ জানুয়ারি সংসদের ১৪তম অধিবেশন শুরু হয়। 

সমাপনী ভাষণে স্পিকার অধিবেশন সফলভাবে সমাপ্তির জন্য প্রধানমন্ত্রী, বিরোধীদলীয় নেতা, মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী, সাংবাদিকসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানান। 

এই অধিবেশনের মোট কার্যদিবস ছিল ৩২টি। এ অধিবেশনে প্রাপ্ত মোট ১৭টি বিলের মধ্যে ১০টি বিল পাস হয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল বাল্যবিবাহ নিরোধ বিল-২০১৭। 

আইন প্রণয়ন কার্যাবলী ছাড়াও অষ্টম অধিবেশনে কার্যপ্রণালী বিধির ৭১ বিধিতে ১৮৫টি নোটিশ পাওয়া যায়। এর মধ্যে ১২টি নোটিশ গ্রহণ করা হয়েছে এবং ৪টি নোটিশের ওপর আলোচনা হয়েছে। এ ছাড়া ৭১ (ক) বিধিতে ২ মিনিট করে আলোচিত নোটিশ ছিল ১৫টি। 

১৪তম অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রীর উত্তর দানের জন্য ২৬১টি প্রশ্ন পাওয়া যায়। তার মধ্যে ৯৬টির উত্তর দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এ ছাড়া বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর উদ্দেশে ৪২৬০টি প্রশ্ন পাওয়া যায়। এর মধ্যে ৩১৫৪টির উত্তর দিয়েছেন মন্ত্রীরা। 

অধিবেশনের শেষ দিনে গতকাল শনিবার ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস হিসেবে পালন করা নিয়ে একটি প্রস্তাব কণ্ঠভোটে গৃহীত হয়। এর ফলে সরকারের নির্বাহী বিভাগ ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস হিসেবে পালনের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। স্বাধীনতার ৪৬ বছর পর এ উদ্যোগ নেয়া হলো। 

স্পিকারের সমাপনী ভাষণের আগে সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমাপনী ভাষণ দেন। এছাড়া বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদও সমাপনী ভাষণ দেন। 

এ অধিবেশনে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আনা ধন্যবাদ প্রস্তাবে সবচেয়ে বেশি সময় ধরে আলোচনার নতুন রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছে। এ অধিবেশনে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর মোট ৬৪ ঘণ্টা ৮ মিনিট আলোচনা হয়েছে। আলোচনায় অংশ নিয়েছেন মোট ২৩১ জন সংসদ সদস্য। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ