শনিবার ১১ জুলাই ২০২০
Online Edition

পার্কের গ্রেফতার দাবি দক্ষিণ কোরিয়ার

১১ মার্চ, বিবিসি/রয়টার্স : দক্ষিণ কোরিয়ার ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট পার্ক জিউন হে কে গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছে তার বিরোধীরা। দুর্নীতি ও ক্ষমতা অপব্যবহারের অভিযোগে আদালত পার্ককে অভিশংসনের পক্ষে পার্লামেন্টের সিদ্ধান্ত বহাল রাখার  পক্ষে রায় দেওয়ার একদিন পর গতকাল শনিবার এ দাবি জানানো হলো।
পার্কের সমালোচকরা জানিয়েছেন, ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্টের গ্রেপ্তারের দাবিতে তারা সিউলে বিক্ষোভ করার পরিকল্পনা করছেন। শনিবার অবশ্য সিউলের কেন্দ্রস্থলে বিক্ষোভের জন্য তারা জমায়েতের চেষ্টাও করছিলেন। তবে পুলিশের হস্তক্ষেপে তারা জমায়েত হতে পারেন নি। পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত রয়েছে বলে জানিয়েছে।
বিক্ষোভকারীদের মুখপাত্র চোই ইন সুক বলেছেন, ‘আমরা পার্ক জিউন হে’র গ্রেপ্তারের দাবি জানাচ্ছি এবং ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হং কিউ আহনেরও পদত্যাগ দাবি করছি।’
উল্লেখ্য, গত ৯ ডিসেম্বর পার্লামেন্টের অভিশংসনের সিদ্ধান্তের পর প্রধানমন্ত্রী অহনের হাতে দায়িত্ব দিয়ে পদত্যাগ করেন পার্ক। শুক্রবার অহন জনগণকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। এছাড়া ৬০ দিনের মধ্যে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন দেওয়ার যে বাধ্যকতা রয়েছে তাও পালনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি।
ব্যক্তিগত লাভের লক্ষ্যে চোই নামে এক পুরোনো বন্ধুকে সুবিধা পাইয়ে দিতে রাজনৈতিক ক্ষমতা অপব্যবহারসহ দুর্নীতির অভিযোগ ওঠার পর গত ৯ ডিসেম্বর পার্ক জিউন হাইকে অভিশংসনের পক্ষে রায় দেয় উত্তর কোরিয়ার পার্লামেন্ট সদস্য। এর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করা হলে শুক্রবার দেশটির সাংবিধানিক আদালত পার্লামেন্টের সিদ্ধান্তই বহাল রাখার পক্ষে রায় দেয়। আট সদস্যের বিচারক প্যানেল তাদের রায়ে বলেছে, দপ্তরের গোপনীয়তা রক্ষার শপথ ভঙ্গ করে পার্ক অনেক নথিপত্র ফাঁস করেছেন। একইসঙ্গে তিনি তার বান্ধবী চোইকে রাষ্ট্রীয় কাজে  হস্তক্ষেপের সুযোগ দিয়ে আইন ভঙ্গ করেছেন। অন্যদিকে গত শুক্রবার রায় ঘোষণা হওয়ার পর পার্কের হাজার হাজার সমর্থক রাস্তায় নেমে আসে।  পুলিশের সঙ্গে সংঘাতে কমপক্ষে তিনজন নিহত হয় বলে জানা গেছে। এমন পরিস্থিতিতে দক্ষিণ কোরিয়ার ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হোয়াং কিও-আন বলেছেন, সরকারের এখন একটাই করণীয়, তা হচ্ছে দেশটির রাজনৈতিক সংঘাত নিরসনে কাজ করা ও সুষ্ঠু নিবার্চনের ব্যবস্থা করা।
গতকাল দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান কিম ইয়ং-ডিউক শনিবার এক টেলিভিশন বিবৃতিতে জানান মে মাসের ৯ তারিখের মধ্যেই একটি অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের ব্যবস্থা করা হবে। রাজনৈতিক মতপার্থক্য ভুলে সকলকে নির্বাচনে অংশগ্রহণেরও আহ্বান জানান কিম।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ