সোমবার ০৩ আগস্ট ২০২০
Online Edition

জয়ের জন্য বাংলাদেশের সামনে কঠিন চ্যালেঞ্জ

স্পোর্টস রিপোর্টার: শ্রীলংকার বিপক্ষে প্রথম টেস্টে জয়ের জন্য ৪৫৭ রানের কঠিন টার্গেট পেয়েছে বাংলাদেশ। গতকাল চতুর্থ দিন শেষে কোনো উইকেট না হারিয়ে বাংলাদেশ করেছে ৬৭ রান। দলের পক্ষে ওপেনার সৌম্য সরকার ৫৩ রানে আর তামিম ইকবাল ১৩ রানে ব্যাটিংয়ে আছেন। ১৫ ওভার খেলার পর আলো স্বল্পতা আর বৃষ্টির কারণে চতুর্থ দিনের খেলা শেষ ঘোষণা করেছেন দুই অনফিল্ড আম্পায়ার আলিমদার ও মারাইজ ইরাসমাস। ফলে জিততে হলে আজ শেষ দিনে  বাংলাদেশকে আরো ৩৯০ রান করতে হবে। আর ড্র করতে হলে পুরোদিন টিকে থেকে ব্যাট করতে হবে। তবে এ দু’টো কাজই বাংলাদেশের জন্য কঠিন হবে। আর না পরলে প্রথম টেস্টেই পরাজয় মানতে হবে টাইগারদের। রঙ্গনা হেরাথের দলের দেয়া বাংলাদেশকে ৪৫৭ রানের টার্গেটটা খুবই কঠিন টাইগারদের জন্য। কারণ জিততে হলে রেকর্ড গড়ে এ রান করতে হবে বাংলাদেশকে। চতুর্থ ইনিংসে লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দু’বার জিতেছে বাংলাদেশ। সর্বোচ্চ ২১৫ টার্গেটে ব্যাটিং করে সর্বোচ্চ ২১৭ রান করে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জয় পেয়েছিল টাইগাররা। এছাড়া ঢাকায় ১০১ রান করে জিতেছিল জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। কিন্তু এবার শ্রীলংকার বিপক্ষে করতে হবে ৪৫৭ রান। ক্রিকেট ইতিহাসে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ৪১৮ রান করে জিতেছিল শ্রীলংকা। সেটাও আজ থেকে ১৭ বছর আগের কথা। তবে আশার কথা হচ্ছে চতুর্থ ইনিংসে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান ৪১৩ এ শ্রীলংকার বিপক্ষে। সেবার ২০০৮ সালে ঢাকায় বাংলাদেশকে ৫২১ রানের টার্গেট দিয়েছিল শ্রীলংকা। আর দলটি ম্যাচটি জিতেছিল ১০৭ রানে। তবে দেখার বিষয় এই টেস্টে আজ বাংলাদেশ কি করে। গল টেস্টে গতকাল ১৮২ রানের লিড নিয়ে গতকাল দ্বিতীয় ইনিংসের খেলা শুরু করে শ্রীলংকা। ব্যাট হাতে সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন উপল থারাঙ্গা। বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যান তুলে নেন ক্যারিয়ারের তৃতীয় টেস্ট সেঞ্চুরি। এছাড়া দিনেশ চান্দিমাল ৫০, দিলরুয়ান পেরেরা ৩৩ ও দিমুথ করুনারত্নে ৩২ রান করেন। পেরেরা যখন আউট হল তখন শ্রীলংকা রান ৬ উইকেটে ২৭৪। গতকার উপল থারাঙ্গার সেঞ্চুরির ওপর ভর করে বাংলাদেশের বিপক্ষে দ্বিতীয় ইনিংসেও বড় করে স্বাগতিক শ্রীলংকা। চতুর্থ দিনের দ্বিতীয় সেশনের শেষ হওয়ার আগে ৬ উইকেট হারিয়ে দলটি ইনিংস ঘোষণা করেছে ১৭৪ রানে। ফলে বাংলাদেশের সামনে জয়ের জন্য টার্গেট দাঁড়ায় ৪৫৭ রান। গতকাল শ্রীলংকার পক্ষে সেঞ্চুরি করেই দলকে বিশাল লিড এনে দেন থারাঙ্গা। ব্যক্তিগত ১১৫ রানে তাকে সরাসরি বোল্ড আউট করে সাজঘরে ফেরান মেহেদী হাসান মিরাজ। এ ইনিংসে তিনি ১১টি চার ও ২টি ছক্কা হাঁকিয়েছেন। আসিলা গুনারত্নে উইকেটে এসে ৩ বল মোকাবিলা করেই সাকিবের ডেলিভারিতে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফিরেছেন। তিনি কোনো রান সংগ্রহ করতে পারেননি। এরপর নিরোশান দিকবালাও খুব  বেশিক্ষণ ক্রিজে টিকতে পারেননি। ব্যক্তিগত ১৫ রানে মিরাজের বল উইকেটরক্ষকের হাতে দিয়ে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন তিনি। এর আগে দিনের শুরু থেকেই শ্রীলঙ্কা নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসের শুরু থেকেই বেশ সাবলীল ভঙ্গিতে এগিয়ে চলছিল। দুই ওপেনার করুনারত্নে ও থারাঙ্গার জুটি থেকে দলে ৬৯ রান আসে। ২৩তম ওভারে এসে থারাঙ্গা-করুনারাত্নের ওপেনিং জুটি ভেঙে দেন তাসকিন আহমেদ। ডিপ স্কয়ার লেগে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের হাতে ধরা পড়েন করুনারত্নে ৩২ রান করে। বিরতির পর দ্বিতীয় উইকেটে জুটি গড়েন আগের ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান মেন্ডিস। দ্বিতীয়  সেশনে ভালোই এগিয়ে নিচ্ছিল এই জুটি। যেখানে আসে ৬৫ রান। কিন্তু হঠাতই সাকিবকে উঠিয়ে মারতে তাসকিনের হাতে তালুবন্দী হন মেন্ডিস। বিদায় নেয়ার আগে করেন ১৯ রান। বাংলাদেশের হয়ে মেহেদী হাসান মিরাজ ও সাকিব আল হাসানও নেন ২ উইকেট। ১টি করে উইকেট নেন মুস্তাফিজুর রহমান ও তাসকিন আহমেদ।
সংক্ষিপ্ত স্কোর:
শ্রীলংকা ১ম ইনিংস: ৪৯৪
বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ৩১২
শ্রীলঙ্কা ২য় ইনিংস: ২৭৪/৬ ইনিংস  ঘোষণা
বাংলাদেশ ২য় ইনিংস: ১৫ ওভারে ৬৭/০ (তামিম ১৩*, সৌম্য ৫৩*; লাকমল ০/৮, পেরেরা ০/২৪, হেরাথ ০/৩২, গুনারত্নে ০/৩)

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ