ঢাকা, মঙ্গলবার 11 August 2020, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭, ২০ জিলহজ্ব ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

পাবনায় চার্চের প্রহরীকে কুপিয়ে জখম, আটক ৩

অনলাইন ডেস্ক: পাবনার চাটমোহরে গিলবার্ট কস্তা (৬৫) নামে চার্চের এক নৈশ প্রহরীকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে জখম করেছে দুর্বত্তরা। 

উপজেলার মথুরাপুরে সেন্ট রিটা চার্চে আজ ভোর ৪টার দিকে এ ঘটনা ঘটে বলে গির্জার পরিচালনা কমিটির সদস্য মার্টিন ডমিনিক রোজারিও জানান। পরে এলাকাবাসী গুরুতর আহত অবস্থায় গিলবার্টকে উদ্ধার করে চাটমোহর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে পাবনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

এ ঘটনার পর আহত গিলবার্টের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে রাতেই অভিযান চালিয়ে ৩ জনকে আটক করেছে চাটমোহর থানা পুলিশ। গিলবার্ট হরিপুর ইউনিয়নের লাউতিয়া গ্রামের মৃত জোসেফ কস্তার ছেলে। আটককৃতরা হলো, লাউতিয়া গ্রামের আব্দুল হকের ছেলে রাজীব হোসেন (১৮), আনজিল হোসেনের ছেলে মুরাদ হোসেন (১৮) ও লাল চাঁদ মিয়ার ছেলে ফরিদ হোসেন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, সম্প্রতি ওই এলাকার এক মেয়েকে উত্যাক্ত করে ওই তিন বখাটে যুবক। এর প্রতিবাদ করে গিলবার্ট। এরই জের ধরে এ ঘটনা ঘটে থাকতে পারে ।

চাটমোহর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম আহসান হাবীব ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আহতের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে তিন দুর্বৃত্তকে আটক করা হয়েছে। সব বিষয় মাথায় রেখে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

গতবছরের প্রথমার্ধে দেশের বিভিন্ন স্থানে জঙ্গি হামলা ও হত্যাকাণ্ডের মধ্যে ১০ জুন পাবনায় অনুকূল চন্দ্র ঠাকুরের সেবাশ্রমের সেবক নিত্যরঞ্জন পাণ্ডেকে (৬০) কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

তবে গিলবার্ট কস্তাকে কোপানোর ঘটনায় জঙ্গিদের হাত রয়েছে কি না সে বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস।

মার্টিন ডমিনিক রোজারিও বলেন, প্রতিদিনের মত বৃহস্পতিবার রাতেও গির্জার সামনে দায়িত্ব পালন করছিলেন নৈশপ্রহরী গিলবার্ট।

“ভোরের দিকে কয়েকজন এসে চার্চের চাবি চায়। চাবি না দিলে তারা জোর করে ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করে। তখন বাধা দিলে তারা গিলবার্টকে কুপিয়ে জখম করে। চিৎকার শুনে পাশের দোকানিরা এগিয়ে এলে তারা পালিয়ে যায়।”

গিলবার্টের স্ত্রী মেরি কস্তা বলেন, চার্চের পাশের দোকানিরা ভোরের দিকে বাড়িতে খবর দেয়, তার স্বামীকে কোপানো হয়েছে।

“আমরা গিয়ে ওকে রক্তাক্ত অবস্থায় পাই। ওর কপাল ও হাত-পায়ে কুপিয়েছে।”

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস সাংবাদিকদের বলেন, ঘটনার পর পুলিশ রাজিব, মুরাদ ও ফরিদ নামে তিনজনকে আটক করেছে।

“তাদের সন্দেহভাজন হিসেবে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তারা মথুরাপুরের পাশের লাউদিয়া গ্রামের বাসিন্দা।”

-ডি.স/আ.হু

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ