ঢাকা, রোববার 9 August 2020, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৮ জিলহজ্ব ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

শত্রুপক্ষের হামলার আতঙ্কে সিআইএ

অনলাইন ডেস্ক: অনুসন্ধানী ওয়েবসাইট উইকিলিকস মার্কিন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ’র হ্যাকিং কৌশল ফাঁস করে দেয়ার পর এ গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তারা শক্রপক্ষের হামলার আতঙ্কে পড়েছেন।

মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা মনে করছেন, সর্বশেষ ফাঁসের এ ঘটনায় সিআইএ’র চলমান সাইবার গোয়েন্দা তৎপরতাই কেবল বিপদে পড়বে না; বরং ইচ্ছা করলে এ ব্যবস্থা আমেরিকার বিরুদ্ধে প্রয়োগ করতেও পারবে শত্রুরা।  এরআগে মার্কিন সরকারের আড়িপাতার ঘটনা ফাঁস করে দিয়েছিলেন এডওয়ার্ড স্নোডেন। মার্কিন জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনএসএ’র সাবেক এই কর্মকর্তার এ ঘটনায় আমেরিকাসহ বিশ্বব্যাপী প্রচণ্ড প্রতিক্রিয়া হয়েছিল। কিন্তু  উইকিলিকসের ঘটনাকে তার চেয়েও মারাত্মক বলে মনে করছেন কেউ কেউ।

ইন্টারনেটভিত্তিক সংবাদ সংস্থা বাজফেড নিউজকে এসব বিষয় নিশ্চিত করেছেন মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা। মার্কিন অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা সংস্থা এফবিআই'র সাবেক কাউন্টার ইন্টেলিজেন্স কর্মকর্তা এরিক ও’নিল বলেন, সত্যি বলতে কী, মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর নিজেদের প্রতিরক্ষার ক্ষেত্রে ঘাটতি রয়েছে; এখন আড়িপাতা এবং হামলার সক্ষমতাও হ্রাস পেল। মার্কিন সাইবার নিরাপত্তা সংস্থা কার্বন ব্ল্যাকে বর্তমানে কর্মরত রয়েছেন ও’নিল। তিনি আরো স্বীকার করেন, উইকিলিকসের ফাঁস করে দেয়া সিআইএ'র হ্যাকিং কৌশল এখন রদবদল করে খোদ আমেরিকার বিরুদ্ধেই হামলা চালানো যাবে।

ফাঁস হয়ে যাওয়া নথিপত্রগুলো বানোয়াট নয় বরং গোয়েন্দা তৎপরতা ব্যবহৃত আসল কাগজপত্র বলেই মনে করছেন মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা। অবশ্য এসব নথির সত্যতা নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজী হননি সিআইএ মুখপাত্র জোনাথন লিউ। তিনি বলেছেন, মার্কিন গোয়েন্দা তথ্য সংক্রান্ত কোনো নথির সত্যতা নিয়ে কোনো মন্তব্য করা হয় না।

সিআইএ সাইবার হামলা চালাতে কী কৌশল গ্রহণ করে তা গতকাল উইকিলিক সফাঁস করে দিয়েছে। ইন্টারনেট সুবিধাসংবলিত স্মার্ট টিভি থেকে শুরু করে গাড়ি পর্যন্ত যেকোনো ইলেকট্রনিকস যন্ত্রে সাইবার হামলা চালাতে এসব কৌশল গ্রহণ করে সিআইএ।  এসব কৌশলের অংশ হিসেবে ম্যালওয়ারও ব্যবহার করা হয়।

উইন্ডোজ, লিনাক্স, অ্যান্ড্রোয়েড, অ্যাপলের আইওএসসহ বিভিন্ন কম্পিউটার অপারেটিং সিস্টেমে সাইবার হামলা চালাতে পারে সিআইএ। এছাড়া, হোয়াটসঅ্যাপ, টেলিগ্রামসহ বিভিন্ন অ্যাপসের মাধ্যমে চ্যাট করার তথ্যও হাতিয়ে নেয়ার কৌশল তৈরি করেছে সিআইএ।

অবশ্য, আমেরিকায় যখন মুসলিমবিরোধী হামলার ঘটনা বাড়ছে এবং ছয় মুসলিম দেশের নাগরিকদের দেশটিতে ঢোকার বিরুদ্ধে নতুন আদেশ জারি করা হয়েছে ঠিক সে মুহূর্তে এসব তথ্য ফাঁস করা হলো। অর্থাৎ দেশটিতে চলমান মুসলমান বিদ্বেষ থেকে নজর সরিয়ে আনার কৌশল হিসেবে এ কাজ করা হয়েছে কিনা তা নিয়েও প্রশ্ন তোলা হচ্ছে।পি.টুডে

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ