শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

সাংবাদিক আল আমিনের পিতার ইন্তিকাল

স্টাফ রিপোর্টার: ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) স্থায়ী সদস্য ও দ্য ডেইলি সানের স্টাফ করেসপন্ডেন্ট মোহাম্মদ আল আমিনের পিতা মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম গতকাল শনিবার বেলা সাড়ে ৩টায় সাভারের গণস্বাস্থ্য মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তিকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তিনি বেশ কিছুদিন ধরে ডায়াবেটিকসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬০ বছর। তিনি স্ত্রী, এক পুত্র, দুই কন্যা, আত্মীয়-স্বজনসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। পারিবারিক সূত্র জানায়, সাইদুল ইসলামের লাশ ঢাকা থেকে পাবনা সদরের সড়াডাঙ্গী গ্রামে নেয়া হবে। সেখানে নামাযে জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে। সাইদুল ইসলামের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ডিআরইউ নেতৃবৃন্দ।
গতকাল এক শোকবার্তায় বিএনপি মহাসচিব বলেন, মরহুম সাইদুল ইসলাম একজন পরহেজগার হিসেবে নিজ এলাকায় সকলের নিকট অত্যন্ত শ্রদ্ধাভাজন ছিলেন। এলাকাবাসীর ন্যায় আমিও তার মৃত্যুতে গভীরভাবে শোকাহত। মহান রাব্বুল আলামীন-এর দরবারে দোয়া করি- তিনি যেন সাইদুল ইসলামকে বেহেশ্ত নসীব করেন। বিএনপি মহাসচিব শোকবার্তায় মরহুম সাইদুল ইসলাম এর রূহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্য, আত্মীয়স্বজন ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।
অপর এক শোকবার্তায় বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু সাইদুল ইসলামের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। তিনি মরহুমের রূহের মাগফিরাত কামনা করে শোকাহত পরিবারের সদস্যবর্গ ও আত্মীয়স্বজনদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।
মোহাম্মদ আল আমিনের পিতা মোহাম্মদ সাইদুল ইসলামের মৃত্যুতে ডিআরইউ সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশা, সাধারণ সম্পাদক মুরসালিন নোমানী ও কার্যনির্বাহী কমিটির নেতৃবৃন্দ এক বিবৃতিতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। ডিআরইউ নেতৃবৃন্দ মরহুমের রূহের মাগফেরাত কামনা করে শোক-সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ