শনিবার ০৫ ডিসেম্বর ২০২০
Online Edition

ফেব্রুয়ারি মাসে রাজনৈতিক সন্ত্রাস

মুহাম্মদ ওয়াছিয়ার রহমান : রাজনৈতিকভাবে ফেব্রুয়ারি মাস ছিল একেবারেই শান্ত। এ মাসে নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে সার্চ কমিটি রাষ্ট্রপতির কাছে তাদের সুপারিশ পেশ ও অবশেষে কমিশন গঠন উল্লেখযোগ্য ঘটনা। গেল ফেব্রুয়ারিতে ১২২টি রাজনৈতিক সন্ত্রাসের তথ্যে নিহতের সংখ্যা ৮। এই ৮ জনের ৫ জনই আওয়ামী লীগের হাতে, ছাত্রলীগ ১, যুবলীগ ১ ও জাপার হাতে ১ জন নিহত হয়। এ মাসে রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতায় প্রাপ্ত তথ্যে আহত হয় ৩০৭ জন এবং গ্রেফতার অনেক বেশী হলেও ২৭৩ জন গ্রেফতারের তথ্য পাওয়া গেছে বাকীদের পরিচয় প্রকাশিত হয়নি। গ্রেফতারকৃতরা অধিকাংশই বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মী এবং দ-প্রাপ্ত ২৮ জন, এই ২৮ জনের আওয়ামী লীগের ৫ জন, ছাত্রলীগের ২৫, যুবলীগ ২ ও শ্রমিক লীগ ১ জন। প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে ফেব্রুয়ারি মাসে নিহত হয়- (১) সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের গোলাগুলীতে সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুল নিহত হয় ও ঘটনা শুনে শিমুলের নানী (২) রোকেয়া খাতুন হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যায়, (৩) কুষ্টিয়া সদরে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে ইদ্রিস আলী নামে একজন নিহত হয়, (৪) সিলেটের ওসমানীনগরে উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে সাইফুল ইসলাম নিহত হয় ও (৫) সিলেটের ওসমানীনগরে উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত সোহেল মিয়া চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়, (৬) খুলনার ফুলতলায় যুবলীগের দলীয় কোন্দলে জনি মোল্লা নামে এক নেতা নিহত হয়, (৭) চট্টগ্রামের রিয়াজ উদ্দিন বাজারের পাশে গোলাম রসুল মার্কেট এলাকায় সফিনা গলিতে টে-ারবাজি নিয়ে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে ইয়াসিন নামে এক কর্মী খুন হয় এবং (৮) গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে এমপি হওয়ার বাসনা নিয়ে এমপি লিটনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা  করে জাপা নেতা ডাঃ আব্দুল কাদের খান।
আওয়ামী লীগ : ২ ফেব্রুয়ারি সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের গুলী বিনিময়ে দৈনিক সমকালের সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুলসহ আহত এগার জন। আহত সাংবাদিক আব্দুল হাকিম শিমুলকে ৩ ফেব্রুয়ারি উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেয়ার পথে মারা যায়। এ দিকে নিহত সাংবাদিক শিমুলের বৃদ্ধা নানী রোকেয়া খাতুন এই শোক সইতে না পেরে ৩ ফেব্রুয়ারি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যায়। পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী হালিমুল হক মিরু এবং বিদ্রোহী প্রার্থী ও শাহজাদপুর পৌর আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ভিপি আব্দুর রহীম গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে আহত এগারজন। পরে ৫ ফেব্রুয়ারি মিরুকে ঢাকা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পিরোজপুরের কাউখালীতে উত্তর বাজারে পুরাতন হাসপাতালের সামনে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাইন বোর্ড ঝুলিয়ে জমি দখলের চেষ্টা করে। এমনকি ঐ সরকারি জমির বন্দবস্ত গ্রহীতা ডাঃ ইউনুস হোসেনকে জমি ছেড়ে দিতে অব্যাহতভাবে হুমকি দেয়া হয়। কুষ্টিয়া সদরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মঠপাড়া গ্রামে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে ইদ্রিস আলী নামে একজন নিহত অপর দশজন আহত হয়। জিয়ারখী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আফজাল হোসেনের সমর্থকদের মধ্যে এই সংঘর্ষ হয়। গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়ায় সনদ জালিয়াতির অভিযোগে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পূর্ব-উত্তর কোটালিপাড়া দারুস সুন্নাত ছালেহিয়া মাদররাসার সভাপতি এস.এম হুমায়ুন কবীরের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করে মাদররাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আনোয়ার হোসেন খান। ৩ ফেব্রুয়ারি বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত পাঁচজন। আহতরা হলো- আব্দুর রহমান, আব্দুল হালিম, আতাউল ইসলাম, উজ্জল হোসেন ও মুক্তার হোসেন সরদার। ৪ ফেব্রুয়ারি ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে উচাখিলা কেরামতিয়া আলিম মাদররাসার বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠানে যথাযথ সম্মান পায়নি অভিযোগে আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম অনুষ্ঠান স্থান ত্যাগ করে চলে গেলে তার সমর্থিত ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা হামলা করে অনুষ্ঠানটি পণ্ড করে দেয়।
৫ ফেব্রুয়ারি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মচারী নিয়োগ নিয়ে আওয়ামী লীগ রাজশাহী মহানগরের ৩০নং ওয়ার্ড ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আকরাম হোসাইনের নেতৃত্বে ৩০-৪০ জন আওয়ামী লীগ, ছাত্র লীগ ও যুবলীগ নেতা-কর্মী ভিসির সাথে দেখা করে তাদের চাকরির জন্য ভিসির উপর চাপ সৃষ্টি করে বলে- “আমরা আওয়ামী লীগ করি, চাকরি আমাদেরই প্রাপ্য”। নাটোরের রাগতিপাড়ায় মাদরকসহ পাকা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নয়েজ মাহমুদ এবং তার সঙ্গী হাবিবুর রহমানকে ১৭ পিস ইয়াবা ও ১৩০ গ্রাম গাঁজাসহ চকগোয়াশের এক আম বাগান থেকে আটক করে পুলিশ। খাগড়াছড়িতে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে নারীসহ আহত ছয়জন। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত পাঁচজনকে আটক করে। ৬ ফেব্রুয়ারি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মচারী নিয়োগ নিয়ে আওয়ামী লীগের দাবি শুনতে বাধ্য করতে মেইন গেটে তালা ঝুলিয়ে অবরোধ করে সংগঠনটি। পরে মতিহার থানা আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আকরাম হোসাইনের নেতৃত্বে ভিসির সাথে দেখা করে নিয়োগের আশ্বাস পেয়ে অবরোধ তুলে নেয়। কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক সুফী ফারুক ইবনে আবু বক্করের বাঁশগ্রামের বাড়িতে হামলাসহ ভাংচুর করে এমপি এবং আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুর রউফের সমর্থকরা। সম্পর্কে তারা মামাভাগ্নে হলেও জমি-জমা নিয়ে এই হামলার ঘটনা ঘটে। ৭ ফেব্রুয়ারি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁ মিলনায়তনে জেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় দু’গ্রুপের হাতাহাতি। জেলা সভাপতি ওবায়দুল মুক্তাদির ও সিনিয়র সহ-সভাপতি হেলাল উদ্দিনের সমর্থকদের মাঝে এই হাতাহাতি হয়।
৮ ফেব্রুয়ারি নোয়াখালীর হাতিয়ায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের দ্বন্দ্বে রহিমা বেগম নামে এক মহিলা গুলীবিদ্ধ হয়। ইউপি নির্বাচনের জেরে আবু তাহের ও মুরাদের নেতৃত্বে ২৫-৩০ জন শাহজান মেম্বারের বাড়িতে হামলা করে। ফলে এই ঘটনা ঘটে। রংপুরের মিঠাপুকুরে বুজরুক সন্তোষপুর উচ্চবিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক বিপুল চন্দ্র বর্মণকে পিটিয়ে আহত করে বালুয়া মাছিমপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ৫নং ওয়ার্ড সভাপতি এবং স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বোরহান উদ্দিন ও তার সমর্থকরা। স্কুল কমিটির সভাপতি প্রভাব খাটিয়ে বিভিন্ন ধরনের অনিয়ম ও দুর্নীতি করে আসতে থাকায় বিপুল তার প্রতিবাদ করলে তাকে এভাবে মারধর করা হয়। মারধরের পর বোরহান উদ্দিন বলেন- “হিন্দুদের এখানে কোন স্থান নেই, বেশী বাড়াবাড়ি করলে পরিণাম আরো ভয়াবহ হবে”। ৯ ফেব্রুয়ারি এ বিষয় থানায় এজাহার দায়ের করা হলেও পুলিশ মামলা নিতে গড়িমসি করে। গোপালগঞ্জ সদরে চরবয়রা, চরগোবরা ও গ্রীস নগর গ্রামের শতাধিক মানুষ আওয়ামী লীগ নেতা ও গোবরা ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ফয়সাল কবীর কদরের বিরুদ্ধে বালু উত্তলনের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি পেশ করে। ১৪ ফেব্রুয়ারি গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক এস.এম -মায়ুন কবীরের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজীর মামলা দায়ের হয় আদালতে। পূর্ব-উত্তর কোটালিপাড়া দারুচ্ছুন্নাত ছালেহিয়া মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আনোয়ার হোসেনের স্ত্রী ফাতেমা বেগম বাদী হয়ে পাঁচ লাখ টাকার চাঁদার অভিযোগে এ মামলা দায়ের করে। হুমায়ুন কবীর জাল সনদ দিয়ে মাদরাসার এডহক কমিটির সভাপতি হয়ে নিয়োগ বাণিজ্য, অনৈতিক আর্থিক সুবিধা পেতে অধ্যক্ষকে চাপ প্রয়োগ করে। ১৫ ফেব্রুয়ারি লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগরের চরমার্টিন ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা ইউসুফ আলী মিয়া ভাই একটি ধর্ষণ অপরাধের বিচার করতে গিয়ে নিজেই আইন হাতে তুলে নেন। ফলে চেয়ারম্যান ও গ্রাম পুলিশসহ পাঁচ জনের নামে মামলা হয়। ১৬ ফেব্রুয়ারি গাজীপুরের কালীগঞ্জে বালীগাঁও গ্রাম থেকে আওয়ামী লীগ নেতা ও কালিগঞ্জ কলেজে ছাত্র-সংসদের সাবেক ভিপি আবুল হাসানাত চৌধুরীকে ২০ পিস ইয়াবাসহ আটক করে পুলিশ।
১৮ ফেব্রুয়ারি টাঙ্গাইলের কালিহাতিতে যমুনা রিসোর্টে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সম্মানে এক নৈশভোজের আযোজন করে স্থানীয় এমপি হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারী। কিন্তু অনুষ্ঠানে এমপি সোহেল উপস্থিত হতে না পারায় মন্ত্রী ক্ষেপে যান এবং সেখান থেকে রাগ করে চলে যেতে উদ্যত হন। টাঙ্গাইলের অপর এমপি ছানোয়ার হোসেন মন্ত্রীকে শান্ত করতে গেলে তাকে মারধর করে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, তবে এমপি ছানোয়ার তা অস্বীকার করে। পরে মন্ত্রী এমপিকে আদর করে তার মাথায় হাত বুলিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেন। ২০ ফেব্রুয়ারি মাগুরার মোহাম্মদপুরে দক্ষিণপাড়া গ্রামে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত পঞ্চাশ জন। বালিদিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান মিনা এবং আওয়ামী লীগ নেতা ইউনুস আলী সর্দার সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে রেবেকা বেগম, আজগর আলী, ফিরোজ মৃধা, ইতি, আতিয়ার রহমান মোল্লা, ওমর আলী সিকদার, বকুল মোল্লা, গোলাম মোস্তফা, ইদ্রিস আলী মিনা, কাজল মিনা, হারিম মিনা, লিটন মিনা, শরিফুল মিনা (৩৪), নাজমুল মিনা, শরিফুল মিনা (৩৫) ও আব্দুস সামাদ মোল্লাসহ আহত পঞ্চাশ জন। সংঘর্ষের সময় প্রতিপক্ষের হামলায় কামাল মিনা, জামাল মিনা, হারুণ মিনা, রবিউল মিনা, আলমগীর মিনা, খায়রুল মিনা, বাবু মিনা, সাদিক মিনা, মফিজ মিনা, তোছাজ্জেল মিনা, রেজাউল মিনা, ওসমান মিনা, ইস্রাফিল মিনা, নবির মিনা, প্রতিবন্ধী নান্নু মিনা, সাঈদ মিনা, চাঁন মোল্লা ও ইউনুস মোল্লার ঘরসহ পঞ্চাশটি ঘর-বাড়ি ভাংচুর করা হয়। পরে পুলিশ হেলাল শেখ, আরব আলী মোল্লা, মুসা শেখ, সাদ্দাম শিকদার, আব্দিুল হামিদ মৃধা, রফিকুল ইসলাম ও জিন্নাহ শিকদারকে আটক করে। নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলা আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত সাতজন। ব্যারিস্টার তৌফিক আহমেদের সমর্থক আহতরা হলো- আমির হোসেন, রাসেল মিয়া, আব্দুল কাদির, আলম সিহাব, আলমগীর, আল-আমিন ও শান্ত মিয়া। নোয়াখালীর হাতিয়ায় আওয়ামী লীগের দলীয কোন্দলে চরকিং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা ও চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন এবং মোহাম্মদ আলী গ্রুপের সমর্থকদের দ্বন্দ্বে সিরাজ উদ্দিনের বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর করে। ২২ ফেব্রুয়ারি নোয়াখালীর সেনবাগে উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের প্রস্তুতি কমিটি গঠন নিয়ে দ্বন্দ্বে আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ ও যুবলীগ সড়ক অবরোধ, বিক্ষোভ ও ১৫টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়।
২৩ ফেব্রয়ারি নোয়াখালীর হাতিয়ার সোনাদিয়া ইউপির ২নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ কর্মী বাহারকে নিজ দলের অন্য গ্রুপ পিটিয়ে হাত-পা ভেঙ্গে হাতে অস্ত্র তুলে পুলিশে দেয়। লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে হাট-বাজারের ইজারা নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে ছাত্রলীগ নেতাসহ আহত চারজন। মূলত আওয়ামী লীগ নেতা বাহার ও বাবুলের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে উপজেলা ছাত্রলীগের স্কুল বিষয়ক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন সিয়াম, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলাম, আওয়ামী লীগ সদস্য বাবুল এবং নূর নবী আহত হয়। নোয়াখালীর সোনাইমুড়িতে জয়াগ মহাবিদ্যালয়ে জয়াগ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, গুলীবর্ষণ ও গাড়ী ভাংচুর করা হয়। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠন নিয়ে সংঘর্ষের সময় উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা ও উপজেলা চেয়ারম্যান আ.ফ.ম বাবুর গাড়ী ভাংচুর করে তাকে অবরুদ্ধ করে। ২৬ ফেব্রুয়ারি সিলেটের ওসমানীনগরে বাংলাবাজার হাতানিপাড়ায় উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতাউর রহমান ও দলীয় বিদ্রোহী প্রার্থী আক্তারুজ্জামান চৌধুরী ওরফে জগলু চৌধুরীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে সাইফুল ইসলাম নামে একজন নিহত ও সোহেল মিয়াসহ অপর অর্ধশত আহত হয়। আগামী ৬ মার্চ এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে সাবেক উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি কবির উদ্দিন আহমদসহ চার জনকে আটক করে। মাগুরা সদরের বেঙ্গাবেরইল ও জাঙ্গালিয়া গ্রামের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের পৃথক ২টি সংঘর্ষে মতিয়ার মোল্লা, উকিল মোল্লা, এরশাদ, আক্তার মোল্লা, কামরুল, আশরাফ হোসেন, নওশের মোল্লা, আলমগীর হোসেন, সহ আহত পঁচিশ জন। ২৭ ফেব্রুয়ারি সিলেটের ওসমানীনগরে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী সহিংসতায় আহত সোহেল মিয়া চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। উল্লেখ্য, ২৬ ফেব্রুয়ারি সোহেল মিয়া আহত হয়। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিসির বাস ভবন ঘেরাও করে কর্মচারী নিয়োগ পরীক্ষা ভ-ুল করে দিল আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ মহিতার থানা সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিনের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ ও যুবলীগ এই ঘেরাও কর্মসূচি পালন করে। পরে কর্তৃপক্ষ পরীক্ষাটি স্থগিত করে। কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় একই স্থানে একই সময়ে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের পাল্টাপাল্টি সভা আহবান করলে উপজেলা প্রশাসন সেখানে ১৪৪ ধারা জারি করে ফলে সভাটি ভ-ুল হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম-আহবায়ক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রেনু এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-আহবায়ক মোতায়েম হোসেন স্বপন গ্রুপের মধ্যে দ্বন্দ্বে এই সংঘর্ষ ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। শরীয়তপুরের নড়িয়ায় আওয়ামী লীগের দলীয় কোন্দলে প্রতিপক্ষের হামলায় মোক্তারেরচর ইউপি চেয়ারম্যান শাহ আলম চৌকিদারসহ দু’জন আহত হয়। আওয়ামী লীগ নেতা শাহ আলম চৌকিদার ও বাদশা শেখ সমর্থকদের দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। এ দিন চাকধ উচ্চবিদ্যালয়ে একটি অনুষ্ঠান শেষে শাহ আলম বাড়ি ফেরার পথে এই হামলা করে প্রতিপক্ষ বাদশা গ্রুপ। ২৮ ফেব্রুয়ারি নোয়াখালীর হাতিয়ায় চরকিং ইউনিয়নের ব্রিজ বাজার এলাকায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ত্রিশজন। উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ আহবায়ক ও গত ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এবং মহি উদ্দিন মহিন এবং উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান মহি উদ্দিন আহমেদের সমর্থকদের  মধ্যে  ইউসুফ (৪০), মোঃ ইউসুফ (৩৫), জয়নাল, কাদের ও ফয়সালসহ  ত্রিশজন আহত হয়। ঝালকাঠি পৌর মেয়র ও ঝালকাঠি শহর আওয়ামী লীগ সভাপতি লিয়াকত আলী তালুকদারের উপর গুলী করে তার পুত্র আমিনুল ইসলাম তালুকদার লিটন। শহরে ব্যাটারি চালিত অটোরিক্সার লাইসেন্স দেয়া নিয়ে বাবার সাথে বিরোধে এই গুলীর ঘটনা ঘটে। পুলিশ লিটনকে আটক করে।
ছাত্র লীগ ঃ ১ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন প্রিন্স হলে হাঙ্গামা করার অভিযোগে নিজ দলীয় ৯ কর্মীকে হকিষ্টিক দিয়ে পেটায়। জিয়া হলে তার পিটুনিতে আহত হয় আতাউল, সাগর আহমেদ, মনিরুল, রুহুল, সাগর উদ্দিন, রতন, আলী, ইমতিয়াজ ও ফরহাদ। ২ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলা অনুষদ ক্যান্টিনের সামনে ছাত্র ইউনিয়ন ঢাবি সমাজকল্যাণ সম্পাদক রাজিব কুমার দাসের উপর হামলা করে ছাত্রলীগ চারুকলা অনুষদ যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আফি আজাদ বান্টি এবং শিক্ষা ও পাঠ-চক্র বিষয়ক সম্পাদক রাইসুল ইসলাম অনিক, নাজমুল, সুজন ও অন্যরা। ৩ ফেব্রুয়ারি নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে আওয়ামী লীগ অফিসে হামলাকে কেন্দ্র করে দলীয় দু’পক্ষ পরস্পরকে অভিযুক্ত করে। ৪ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ জগন্নাথ হল শাখার চার নেতা-কর্মী সংগঠনের শৃংখলাভঙ্গের দায়ে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করে ছাত্রলীগ। একই সাথে জগন্নাথ হল শাখা সাধারণ সম্পাদক উৎপল সরকারকে কারন দর্শানোর নোটিশ ইস্যু করা হয়। বহিষ্কৃত নেতারা হলো- অভিজিৎ হীরা, অনিক কান্তি সরকার, অশোক রায় ও পলাশ হালদার। চট্টগ্রামের চকবাজারে সাদিয়া’স কিচেন রেস্টুরেন্টে খাবারের বিল না দিয়ে সেটি ভাংচুর করে ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা। ৭ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রামের বাকলিয়ায় চাকতাই এলাকায় আমিন হাজী সড়কে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে তানজিরুল হক নামে এক নেতা গুলীবিদ্ধ হয়। নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি সজিবুল ইসলামকে সনমান্দি ইউপি চেয়ারম্যান জাহিদ হাসান জিন্নার উপর হামলা মামলায় গ্রেফতার করে পুলিশ। বরগুনার বেতাগীতে ত্রাণ ও পুনর্বাসন অধিদপ্তরের চার কোটি টাকার ১৮ প্রকল্পের টেন্ডার কাজে ছাত্রলীগ-যুবলীগের হামলায় যুবলীগ নেতা জাহিদুল ইসলাম মিঠু ও অপর ঠিকাদার রূপক আহত হয়। ৮ ফেব্রুয়ারি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগ শহীদ শামসুজ্জোহা হল শাখা সাধারণ সম্পাদক বরজাহান আলীকে ভাই না বলায় পেটে লাথি, মাথায় ও গালে কিল-ঘুষি মারা হয় শিলু হোসেন নামে এক ছাত্রকে। (চলবে)

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ