শুক্রবার ১৪ আগস্ট ২০২০
Online Edition

চুয়াডাঙ্গায় সেফটিক ট্যাংকে মিললো ৩ বছরের শিশুর লাশ হত্যার দায়ে মহিলা আটক

 

চুয়াডাঙ্গা সংবাদদাতা: নিখোঁজের একদিন পর চুয়াডাঙ্গায় মুক্তা নামে তিন বছরের এক শিশুর লাশ উদ্ধার হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে জেলার দর্শনা পৌর এলাকার ঈশ্বরচন্দ্রপুর গ্রামের মাঠপাড়ার নাসির উদ্দিনের বাড়ির সেফটিক ট্যাংক থেকে ওই শিশুর লাশ উদ্ধার করে দামুড়হুদা থানা পুলিশ। এ ঘটনায় পুলিশ হত্যার দায়ে নাসিরের স্ত্রী পপিকে আটক করেছে। 

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, ঈশ্বরচন্দ্রপুর গ্রামের মনিরুজ্জামান ওরফে মিস্টারের তিন বছরের শিশুকন্যা মুক্তা গত বুধবার বিকেলে বাড়ির পাশে একটি মাঠে খেলা খেলতে যায়। এরপর থেকে ওই শিশু নিখোঁজ হয়। একদিন পর গতকাল বৃহস্পতিবার প্রতিবেশী নাসিরের সেফটিক ট্যাংকির ভিতর স্থানীয়রা শিশু মুক্তার লাশ পড়ে থাকতে দেখে। খবর পেয়ে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে দামুড়হুদা থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে শিশু মুক্তার লাশ উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। 

দর্শনা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের অফিসার ইনচার্জ শোনিত কুমার গায়েন জানান, নিহত শিশুর গলায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ জিজ্ঞাসাবদের জন্য নিহত শিশুর প্রতিবেশী নাসির উদ্দিনকে আটক করলে জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে আসল তথ্য বেরিয়ে আসে। নাসিরের স্ত্রী পপি খাতুন গত বুধবার সন্ধ্যায় তারই সন্তানের সাথে খেলা করার সময় পূর্ব শুত্রুতার জের ধরে শিশুটিকে গলাটিপে হত্যা করে ঘরের খাটের নিচে কম্বলচাপা দিয়ে ফেলে রাখে। পরে রাতে এলাকায় শিশুটির সন্ধানে মাইকিং এবং ব্যাপক খোঁজাখুঁজি শুরু হলে দায় এড়াতে তাদেরই সেফটি ট্যাংকির মধ্যে ফেলা দেয়া হয়। সকাল ১১টার দিকে পুলিশ মুক্তার লাশ উদ্ধার করে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ