শুক্রবার ১৪ আগস্ট ২০২০
Online Edition

দক্ষতা উন্নয়নে প্রশিক্ষণ পেলে কিশোর-কিশোরীদের আয় বাড়ে ৬ গুণ!

স্টাফ রিপোর্টার : দক্ষতা উন্নয়নের প্রশিক্ষণ নেয়ার পর কর্মসংস্থান হলে কিশোর-কিশোরীদের মাসিক গড় আয় প্রায় ছয়গুণ বাড়ে বলে দেশের বৃহত্তম এনজিও ব্র্যাকের এক গবেষণায় উঠে এসেছে। ওই গবেষণায় বলা হয়, প্রশিক্ষণ নিয়ে কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করা কিশোরীদের মধ্যে সচেতনতা ও আত্মবিশ্বাস বেড়ে যাওয়ায় বাল্যবিয়ের হার ৬২ শতাংশ কমে আসে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে ‘দ্য পাওয়ার অব অ্যাপ্রেন্টিসশিপ’ শীর্ষক এক সেমিনারে সংস্থাটি পরিচালিত ওই গবেষণার এসব তথ্য তুলে ধরা হয়। দক্ষতা উন্নয়নে প্রশিক্ষণের গুরুত্ব তুলে ধরতে আয়োজিত এই সেমিনার থেকে ২০২০ সালের মধ্যে প্রায় পাঁচ লাখ কিশোর-কিশোরীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার পরিকল্পনা গ্রহণের কথা জানায় ব্র্যাক। এই সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন শ্রম ও কর্মসংস্থান সচিব মিকাইল শিপার। ব্র্যাকের স্ট্রাটেজি, কমিউনিকেশন্স অ্যান্ড এমপাওয়ারমেন্ট কর্মসূচির পরিচালক আসিফ সালেহের সঞ্চালনায় সেমিনারে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন পরিষদের কো-চেয়ারপারসন সালাউদ্দিন কাশেম খান, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এবিএম খোরশেদ আলম, ব্র্যাকের দক্ষতা উন্নয়ন কর্মসূচির পরিচালক তাহসিনা আহমেদ। এতে স্কিলস ট্রেনিং ফর অ্যাডভানসিং রিসোর্স (স্টার) শীর্ষক পর্যালোচনা তুলে ধরেন ব্র্যাকের সিনিয়র ম্যানেজার জয়দীপ সিনহা রায়।

সেমিনারে দক্ষতা প্রশিক্ষণের ফলে অর্থনৈতিক ও সামাজিক প্রভাব বিষয়ক দুটি গবেষণা প্রতিবেদন তুলে ধরেন ব্র্যাকের গবেষণা ও মূল্যায়ন বিভাগের সিনিয়র রিসার্চ অ্যাসোসিয়েট অনিন্দিতা ভট্টাচার্য ও রেহনুমা রহমান। প্রাথমিকভাবে ২০১২-২০১৫ সালে দেশের সাতটি জেলায় ৫৭৩ জনের ওপর প্রথম গবেষণা জরিপটি পরিচালিত হয়, যাদের মধ্যে ২৮০ জন ব্র্যাক থেকে দক্ষতা উন্নয়নে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে। এ গবেষণার ফলে দেখা যায়, প্রশিক্ষণ গ্রহণকারী কিশোরীদের মধ্যে বাল্য বিয়ের হার ৬২ শতাংশের কম।

এছাড়া ২০১৪-২০১৫ সালে ‘জীবন যাত্রার ওপর দক্ষতা প্রশিক্ষণের প্রভাব’ শীর্ষক ১৫টি জেলায় পরিচালিত দ্বিতীয় জরিপে অংশ নেয়া ৪৪৪ জন ছিল দক্ষতা প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত, যাদের মাসিক গড় আয় ছিল ১৬৬ দশমিক ৮৫ টাকা। প্রশিক্ষণের ৬ মাস পর তাদের গড় আয় বেড়ে দাঁড়ায় ২০৮৯ দশমিক ৪১ টাকা। অপরদিকে প্রশিক্ষণবিহীন কিশোর-কিশোরীদের গড় আয় ৩৭৫ টাকা থেকে বেড়ে হয় ১২৭০ টাকা।

গবেষণায় দেখা যায়, দক্ষতার প্রশিক্ষণপ্রাপ্তদের গড় আয় বাকিদের তুলনায় ৬ গুণ বেড়েছে। পাশাপাশি প্রশিক্ষণপ্রাপ্তদের সঞ্চয়ের প্রবণতা বেড়েছে প্রায় সাড়ে ৭ গুণ। ক্রয় ক্ষমতা ও সঞ্চয় বেড়ে যাওয়ায় তারা খাদ্যব্যয়ও ৯ শতাংশ বাড়াতে পেরেছে।

দক্ষতা উন্নয়নে ২৩টি মন্ত্রণালয় ও ৩৫ বিভাগের মধ্যে সমন্বয় সাধনের ওপর গুরুত্বারোপ করে শ্রম সচিব বলেন, আমরা দক্ষতা উন্নয়ন কার্যক্রমকে একই ছাতার মধ্যে আনার চেষ্টা করছি। এজন্য প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দুই থেকে তিন মাসের মধ্যে একটা ‘স্কিল ডেভেলপমেন্ট অথরিটি’ গঠনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। টেকসই উন্নয়নে সফলতা আনতে হলে দক্ষতা উন্নয়ন, কৃষির আধুনিকায়নসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সরকারের সঙ্গে ব্র্যাকসহ বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থাকে একসঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানান মিকাইল শিপার।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ