শনিবার ১৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

ইরাকে পরাজয় স্বীকার করে নিলেন বাগদাদি

২ মার্চ, রয়টার্স : অবশেষে হার স্বীকার করতে বাধ্য হল আন্তর্জাতিক উগ্রপন্থী সংগঠন ইসলামিক স্টেট বা আইএস ইরাকি সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, হার স্বীকার করে বুধবার উগ্রপন্থীদের সমক্ষে বিদায়ী ভাষণ দিয়েছেন আইএস প্রধান আবুবকর আল-বাগদাদি এছাড়াও উগ্রপন্থী সংগঠনটির বিদেশী যোদ্ধাদের দেশে ফিরে যাওয়ার জন্য বা আত্মঘাতী হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন বাগদাদি বিশ্বজুড়ে ইসলামিক সাম্রাজ্য গড়ার জন্য ২০১৪ সালে ইরাক ও সিরিয়ায় লড়াই শুরু করে আইএস প্রথমদিকে জয়ের মুখ দেখলেও, আমেরিকার নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক সেনাদলের কাছে ক্রমশ জমি খোয়াতে শুরু করে আইএস সম্প্রতি, সংগঠনটির অন্তিম গড় মসুলও প্রায় দখল করে নিয়েছে ইরাকি সেনাবাহিনী এরপরই, আইএস নেতারা পার্শ্ববর্তী সিরিয়ায় পালাতে শুরু করেন তবে সেখানেও আসাদ সরকার ও রুশ সেনার হামলায় প্রবল চাপে রয়েছে আন্তর্জাতিক সংগঠনটি।

সন্ত্রাসের মুখ বাগদাদির মাথার দাম ১০ মিলিয়ন ডলার ধার্য করেছে আমেরিকা বেশ কয়েকবার ড্রোন হানাও হয়েছে বাগদাদির উপর তার মৃত্যুর খবরও সামনে এসেছে একাধিকবার তবে প্রত্যেকবারই প্রাণ বাঁচাতে সক্ষম হয় আইএসপ্রধানইরাকি সেনাবাহিনী সূত্রে খবর, এই মুহূর্তে মসুল শহরে লুকিয়ে থাকতে পারে বাগদাদি তবে তার দিন যে শেষ হয়ে এসেছে তা স্পষ্ট।

এদিকে রাশিয়া-সমর্থিত সিরিয়ার সরকারি বাহিনী ও তাদের মিত্ররা ইসলামিক স্টেটের (আইএস) জঙ্গিদের হটিয়ে ঐতিহাসিক নগরী পালমিরায় প্রবেশ করেছে।

বুধবার জঙ্গিদের সঙ্গে লড়াই করতে করতে সরকারি বাহিনী পালমিরায় প্রবেশের পথ করে নেয় বলে জানিয়েছে পর্যবেক্ষক গোষ্ঠী সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস।

এর আগে লেবাননের শিয়া রাজনৈতিক গোষ্ঠী হিজবুল্লাহ পরিচালিত একটি গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, সিরীয় সেনাবাহিনী ও এর মিত্র বাহিনীগুলো শহরটির পশ্চিমাংশে অবস্থিত পালমিরা দুর্গ পুনরুদ্ধার করেছে এবং দক্ষিণ-পশ্চিমে প্রাসাদতুল্য একটি ভবনের দখল নিয়েছে।

ডিসেম্বরে আইএসের জঙ্গিরা পালমিরা পুনন্দখল করে। এই শহরের প্রাচীন অংশটি ইউনেস্কো ঘোষিত বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ। ছয় বছর ধরে চলা সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে আইএস দুইবার শহরটির দখল নেয়।

২০১৫ সালে আইএস প্রথমবার পালমিরা দখল করে। গত বছরের মার্চে সিরিয়ার সেনাবাহিনী আইএসকে হটিয়ে শহরটি পুনরুদ্ধার করেছিল, কিন্তু ডিসেম্বরে আলেপ্পো অভিযানে রত সিরীয় সেনাবাহিনীর ব্যস্ততার সুযোগে আইএস ফের শহরটি দখল করে নেয়।

দখলদারিত্বের দুই পর্বেই পালমিরার প্রাচীন পুরাকীর্তিগুলো ধ্বংস করেছে জঙ্গিগোষ্ঠীটি। এই ধ্বংসযজ্ঞকে যুদ্ধাপরাধ অভিহিত করে এর নিন্দা জানিয়েছে জাতিসংঘ।

বুধবার সকালে সিরীয় সামরিক বাহিনীর একটি সূত্র বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছে, “খুব শিগগিরই সেনাবাহিনী শহরটিতে প্রবেশ করতে শুরু করবে।”

সিরীয় সেনাবাহিনী জানিয়েছে, তারা পালমিরা শহর থেকে কয়েক কিলোমিটার পশ্চিমে ‘পালমিরা ত্রিভুজ’ নামে পরিচিত এলাকাটির নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে।

সম্প্রতি রাশিয়ার বিমান হামলার ছত্রছায়ায় সিরীয় সেনাবাহিনী দ্রুতগতিতে পালমিরার দিকে এগিয়ে যায়।

গৃহযুদ্ধের পর্যবেক্ষক ব্রিটিশ-ভিত্তিক সংগঠন সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে, সরকারি বাহিনী ‘যেকোনো মূহুর্তে’ পালমিরায় ঝটিকা অভিযান চালাবে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

রাশিয়া জানিয়েছে, তাদের বিমানগুলো সিরীয় সেনাবাহিনীর পালমিরা অভিযানে সহায়তা করছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ