বুধবার ০৩ জুন ২০২০
Online Edition

গাজীপুরে ওয়াশিং কারখানা আকস্মিক বন্ধ ঘোষণা ॥ শ্রমিক অসন্তোষ

কালিয়াকৈর সংবাদদাতা : গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার হরিণহাটি এলাকায় একটি ওয়াশিং কারখানা আকস্মিক বন্ধ ঘোষণা করার প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা কারখানার সামনে বিক্ষোভ করে। কারখানা শ্রমিকদের দাবি শ্রম আইন অনুযায়ী সকল পাওনাদি পরিশোধ করতে হবে। পুলিশ  শ্রমিকদের দাবি যৌক্তিক বলে মন্তব্য করেছেন। কালিয়াকৈর উপজেলার সফিপুর শিল্পাঞ্চলের হরিণহাটি এলাকার ইসলাম গ্রুপের ষ্টার্লিং রিন্স ইফেক্টর লিমিটেড নামে ওয়াশিং কারখানার শ্রমিকরা প্রতিদিনের মত সোমবার সকাল ৮টার দিকে কারখানা গেটে গিয়ে তালা ঝুলানো দেখতে পেয়ে বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। কারখানা গেটে দীর্ঘ ৪ ঘণ্টা বিক্ষোভের পর পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। কারখানার নির্বাহী পরিচালক তৌফিক জাহিদুর রহমান স্বাক্ষরিত এক নোটিশের মাধ্যমে কারখানা কর্তৃপক্ষ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছেন। নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে- কারখানায় পর্যাপ্ত কাজের অর্ডার না থাকা, কমপ্লায়েন্স অডিট পাশ না হওয়া এবং অব্যাহত লোকশান হওয়ার কারণে কারখানার মালিকের নিয়ন্ত্রণে বাইরে চলে যাওয়ায় কর্তৃপক্ষ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ইং থেকে কারখানা বন্ধ ঘোষণা  করেছেন। শ্রমিকদের সকল পাওনানি শ্রম আইন অনুসারে পরিশোধ করা হবে। আগামী ৩ দিনে মধ্যে শ্রমিকদের পাওনাদি পরিশোধের তারিখ জানানো হবে।  শ্রমিকরা জানায়, রোববার বিকাল ৫টা পর্যন্ত শ্রমিকরা কারখানায় উৎপাদন কাজ করেছেন। তখন পর্যন্ত তাদের জানানো হয়নি যে, কারখানা বন্ধ করে দেওয়া হবে।সকালে কারখানা গেই এসে বন্ধের নোটিশ পেয়ে শ্রমিকরা হতভম্ব হয়ে যায়। কারখানাটি বন্ধে করে দেয়া ওই কারখানা কর্মরত ৪ শতাধিক শ্রমিক বেকার হয়ে পড়বে।  তারা বিজিএমইএ এর বিধি মাফিক ৩ মাস ১৩ দিনের বেতন দাবি করেন। কারখানার এইচ আর এ্যাডমিন মোঃ রাইসুল ইসলাম জানান, কারখানায় পর্যাপ্ত কাজ না থাকায় কর্তৃপক্ষ বন্ধ ঘোষণা করেছেন। তবে, শ্রম আইন অনুযায়ী সকল শ্রমিকের পাওনাদি শীঘ্রই পরিশোধ করা হবে বলেও জানান তিনি। 

শিল্প পুলিশ গাজীপুর-২ এর ওসি শহিদুল ইসলাম জানান, কারখানা কর্তৃপক্ষ নোটিশে পাওনাদি পরিশোধের কথা উল্লেখ করেছেন। শ্রমিকরা অহেতুক কারখানার গেইটে অবস্থান করছে। শ্রমিকরা যাতে কোন প্রকাশ নাশকতা সৃষ্টি করতে না এজন্য কারখানা এলাকায় বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ