বুধবার ০৩ জুন ২০২০
Online Edition

নতুন নির্বাচন কমিশনও রক্তাক্ত পথে হাঁটতে শুরু করেছে -বিএনপি

স্টাফ রিপোর্টার: নতুন নির্বাচন কমিশনও রক্তাক্ত পথে হাঁটতে শুরু করেছে মন্তব্য করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, কাজী রকিবউদ্দিন এর পদাঙ্ক অনুসরণ করে সিইসিসহ নির্বাচন কমিশন নির্বাচন সুষ্ঠু ও অবাধ করতে যে বড় বড় বুলি ঝেড়েছেন তা বাস্তবায়নের সম্পূর্ণ উল্টো চিত্রই দেশবাসী প্রত্যক্ষ করছে। সিলেটে ওসমানী নগর উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে একজন কিশোর নিহত এবং ২৫ জন আহত হয়েছে। এছাড়া আগামী ৬ মার্চ ২০১৭ অনুষ্ঠিতব্য দেশের মাত্র কয়েকটি উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কলাপাড়া, পাবনাসহ অন্যান্য স্থানে বিএনপি মনোনীত প্রার্থীদেরকে মনোনয়ন পত্র দাখিলে বাধাসহ নির্বাচনী প্রচারণায় ভাংচুর, হামলা এবং প্রার্থীদের জীবননাশের হুমকিও দেয়া হচ্ছে। নির্বাচনী এলাকাগুলোতে নৈরাজ্যকর ও রক্তক্ষয়ী পরিবেশ বিরাজ করছে। লাশ পড়তে শুরু করেছে। 

রিজভী বলেন, বিএনপি মনোনীত প্রার্থীদের পক্ষ থেকে স্থানীয় নির্বাচন কমিশন কার্যালয়গুলোতে এসব বিষয় নিয়ে অভিযোগ করা হলেও কোন কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না। নতুন সিইসি’র অধীনে কমিশনের কর্তৃত্বে নির্বাচনী রক্তাক্ত সহিংসতার তাপমাত্রা যেন আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। পূর্বের কমিশনের ন্যায় ‘এরাও চোখ থাকিতে অন্ধ’। সুতরাং বর্তমান সিইসি’র ক্ষমতাসীনদের সাথে কানেকশন সম্পর্কে আমরা যা বলেছি তা অক্ষরে অক্ষরে ফলতে শুরু করেছে। সুতরাং পরবর্তী জাতীয় নির্বাচনে যে আওয়ামী লীগের সাথে সিইসি’র মধুর কানেকশনের প্রতিফলন ঘটবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তিনি বলেন, আমরা যে কথাটি বারবার বলেছি যে কেবলমাত্র আওয়ামী লীগের মনোবাঞ্ছা পূরণ করতেই একজন বিতর্কিত, অযোগ্য ও আওয়ামী ঘরানার লোককে সিইসি করা হয়েছে। আমি বিএনপি’র পক্ষ থেকে আগামী ০৬ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য দেশের কয়েকটি অঞ্চলে উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে যে সহিংসতা ও হানাহানি শুরু হয়েছে এবং এই নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সামাল দিতে বর্তমান নির্বাচন কমিশনের ব্যর্থতা, দুর্বলতা ও অযোগ্যতাকে ধিক্কার ও নিন্দা জানাচ্ছি। 

খালেদা জিয়ার মামলা নিয়ে সরকার দলীয়দের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে আওয়ামী লীগ মন্ত্রী-নেতারা বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মামলার রায় নিয়ে আগাম মন্তব্য করতে শুরু করেছেন। ক্ষমতাসীনদের আজ্ঞাবাহী হয়ে আইনি প্রক্রিয়ার নামে দেশের একজন জনপ্রিয় নেত্রীর বিরুদ্ধে প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে পারবে না। বিএনপি চেয়ারপার্সনের নামে যে মামলা দায়ের করা হয়েছে সেটি মিথ্যা, বানোয়াট এবং রাজনৈতিক উদ্দেশ্য দ্বারা নির্ধারিত। এই উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলার জনগণের কাছে কোন গ্রহণযোগ্যতা নেই। সরকার দায়বদ্ধতা বোধ করেনা বলেই নি:শ্বাস রোধকারী দু:শাসনের দাপটে সবকিছু তাদের দখলে রয়েছে বলে মনে করে। এমনকি বিচার ও আদালতকেও তাদের টর্চারিং মেশিনের অংশ মনে করে। এবং সেটি দিয়ে তারা গণতন্ত্রে বিরোধী দলের যে অধিকার রয়েছে তা নির্মম নিষ্ঠুরতায় দমন করতে চায়। ক্ষমতাসীনদের কোন ধরনের অশুভ মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়িত হবে না, বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নির্ভিকতা, সংকল্পে অটলতাই তার রাজনৈতিক গন্তব্য।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ