শুক্রবার ১০ জুলাই ২০২০
Online Edition

তা‘মীরুল মিল্লাত কামিল মাদ্রাসা টঙ্গীর বার্ষিক পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত 

তা‘মীরুল মিল্লাত কামিল মাদ্রাসা টঙ্গীর, বার্ষিক পুরস্কার বিতরণী গতকাল শনিবার অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি ছিলেন মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডি.জি) মোঃ বিল্লাল হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন- কর্নেল (অব:) ডা: জেহাদ খান, ভাইস-প্রিসিপাল, প্রেসিডেন্ট আব্দুল হামিদ মেডিকেল কলেজ, কিশোরগঞ্জ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অধ্যক্ষ মাওলানা মুহাম্মদ যাইনুল আবেদীন।  প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন, তা‘মীরুল মিল্লাতের ভাল ফলাফল অবশ্যই ঈর্ষণীয়। তিনি আশা প্রকাশ করেন, মাদ্রাসার ছাত্ররা যা শিক্ষালাভ করে সে আলোকে নিজেদের জীবন গঠন করবে। তিনি বলেন, ইসলামে জঙ্গিবাদের কোনো স্থান নেই। ইসলাম মানুষকে নীতি নৈতিকতা ও মানবিক মূল্যবোধ শিখায়। মাদ্রাসার ছাত্রদের আচার-আচরণ ও আমল-আখলাখে দ্বীনি মূল্যবোধ আরো বেশি ফুটিয়ে তোলা প্রয়োজন। 

কর্নেল (অব:) ডা: জেহাদ খান বলেন, রাসূল (সা:) বলেছেন, যারা কুরআন শিক্ষা দেয় ও শিক্ষা করে তারা সর্বোত্তম। সুতরাং উত্তম শিক্ষার ধারক বাহকরা কখনো সন্ত্রাসী বা জঙ্গি হতে পারে না। বাস্তবে দেখা গেছে সন্ত্রাস ও জঙ্গি কর্মকা-ের সাথে মাদ্রাসা শিক্ষিতদের কোনো সম্পৃক্ত নেই। মূলত সেক্যুলার শিক্ষায় শিক্ষিতরাই জঙ্গিবাদের সাথে জড়িয়ে পড়ছে। ইসলাম তরবারীর মাধ্যমে নয় উদারতা, মহত্ব ও জ্ঞানের মাধ্যমে প্রসারিত হয়েছে। বিশেষ অতিথি জ্ঞান-বিজ্ঞানে মসলমানদের অবদানের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে ছাত্রদেরকে সে আলোকে নিজেদের জীবন গঠনে উৎসাহিত করেন। 

সভাপতির বক্তব্যে অধ্যক্ষ মাওলানা মুহাম্মদ যাইনুল আবেদীন বলেন, ১৯৬৩ সালে ঢাকায় এ মাদ্রাসার প্রথম ক্যাম্পাস প্রতিষ্ঠিত হয়। আর ১৯৯৭ সালে টঙ্গীতে প্রতিষ্ঠিত হয় দ্বিতীয় ক্যাম্পাস। এ প্রতিষ্ঠানের শুরু থেকেই মাওলানা শামছুল হক ফরিদপুরী (রা:) ও খতিব মাওলানা ওবাইদুল হক (রা:) এর মত দেশ বরেণ্য আলেমগণ সম্পৃক্ত ছিলেন। আল্লাহর অশেষ মেহেরবানীতে প্রতিষ্ঠানটি দেশের স্বনামধন্য একটি দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রূপ লাভ করেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বর্তমানে এটি ট্রাস্ট পরিচালিত আলাদা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসাবে পূর্ণাঙ্গ মর্যাদায় অধিষ্ঠিত হয়েছে। এ সফলতার পিছনে ছাত্র-শিক্ষকদের ঐকান্তিক নিষ্ঠা, পরিশ্রম, এলাকাবাসী ও অভিভাবকদের আন্তরিক সহযোগিতা বিশেষভাবে উল্লেখ যোগ্য। ২০১৭ সালে প্রতিষ্ঠানের ভিশন নির্ধারণ করা হয়েছে দেশ-প্রেমিক, সৎ ও যোগ্য সুনাগরিক গড়ে তোলা । আমরা সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মাদকতা ও নারী নির্যাতন মুক্ত একটি সমাজ চাই। তা‘মীরুল মিল্লাত সে লক্ষ্যে তার অবিরাম চালিয়ে যাবে। ইনশা-আল্লাহ। 

মাওলানা মো: নূরুল হকের সঞ্চালনায় বক্তব্যে রাখেন- অভিভাবক প্রতিনিধি এডভোকেট মো: গোলাম মোস্তফা, মুহাদ্দিস মাওলানা মিজানুর রহমান, মাওলানা আব্দুল কাদের জিলানী, ও ছাত্র প্রতিনিধি মুহাম্মদ খাইরুল আনাম। ছাত্রদের পক্ষ থেকে ইংরেজী ও আরবি বক্তব্য প্রদান এবং ইসলামী সংগীত পরিবেশন করা হয়। প্রেসবিজ্ঞপ্তি।      

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ