শুক্রবার ০৫ জুন ২০২০
Online Edition

চন্দ্রঘোনায় মাদক ও অসামাজিক কার্যকলাপ বৃদ্ধি

রাঙ্গুনিয়া (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা : রাঙ্গুনিয়ার চন্দ্রঘোনা লিচুবাগান ও দোভাষী বাজার এলাকায় আবাসিক হোটেলের নামে গড়ে উঠেছে কয়েকটি মিনি পতিতালয়। পাশাপাশি মাদকের ভয়াবহতায় এলাকার যুব সমাজ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। লিচুবাগান বাসস্ট্যা- সংলগ্ন দুটি আবাসিক হোটেলে দিনেরাতে চলছে দেহ ব্যবসা। একই ভাবে দোভাষি বাজারের কয়েকটি আবাসিক হোটেলও এধরনের অবৈধ কর্মকা-ের সাথে জড়িত। মাদক ও পতিতাবৃত্তির কারণে এলাকার পরিবেশ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসনের নাকের ডগায় এধরনের অবৈধ কর্মকা-ের কারণে এলাকার যুবসমাজ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এধরনের অসামাজিক কর্মকা- বন্ধে ঊর্ধ্বতন প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চেয়ে স্থানীয় জনসাধারণ ও তৌহিদী জনতার ব্যানারে বিক্ষেভ সমাবেশ করেছেন সচেতন নাগরিকরা।
গতকাল শুক্রবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে এলাকায় মাদকের ভয়াবহতা রোধ ও দেহব্যবসাসহ বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধে তারা এই বিক্ষোভ সমাবেশ করেন তারা। বিক্ষোভ মিছিলটি চন্দ্রঘোনার লিচুবাগান, ফেরীঘাট, দোভাষী বাজারের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ এবং মিছিল শেষে লিচুবাগান বাস স্ট্যা- চত্বরে প্রতিবাদ সমাবেশ করেন। এতে প্রায় পাঁচ শতাধিক আলেম-ওলামা অংশ নেন। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন  ক্বারী মোঃ ইদ্রিস, মওলানা নুরুল আজিম, মাওলানা হাবিবুল্লাহ, মৌলানা মো. সিরাজ, মৌলানা মুবিনুল হক, মৌলানা আহমদুল্লাহ, মৌলানা নুরুল আলম, মো. আব্দুর রহীম প্রমুখ।
সমাবেশে বক্তারা বলেন, রাঙ্গুনিয়ার চন্দ্রঘোনা দোভাষী বাজার ও লিচুবাগান একটি ঐতিহ্যবাহী এলাকা। নানা কারণে এই এলাকার গুরুত্ব অপরিসীম। অতীব দুঃখের বিষয় চন্দ্রঘোনার কিছু স্পটে দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবা, ফেন্সিডিল, হিরোইন, গাঁজা, ছোলাই মদসহ নানা ধরনের নেশাজাতীয় দ্রব্যাদি বিক্রি হচ্ছে অবাধে এবং বখাটে যুব সমাজ তা সেবন করছে প্রকাশ্যে দিনদুপুরে। তাছাড়াও এই এলাকার বিভিন্ন আবাসিক হোটেলে নিয়মিত চলছে দেহ ব্যবসা, অনৈতিক ও অসামাজিক কার্যকলাপ। এসব আবাসিক হোটেল যেন একেকটি মিনি পতিতালয়। যার কারণে এলাকার যুব সমাজ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, বিনিষ্ট হচ্ছে বসবাসের পরিবেশ। এমনতর গুরুতর অপরাধ, পাপাচার, অনাচার আর ব্যভিচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। বিপথগামী আর নেশায় আক্রান্ত হচ্ছে স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রীরা।
এই অপকর্মের কারণে পরবর্তী প্রজন্মের ভবিষ্যৎ অন্ধকার আমানিশার অতল গহবরে নিমজ্জিত হচ্ছে। এসবে জড়িতরা কোন আইন কানুন আর সামাজিক বন্ধন আর দায়বদ্ধতার তোয়াক্কা না করে চালিয়ে যাচ্ছে মাদক ও দেহ ব্যবসার মত গুরুতর অপরাধ। এই অপরাধে তাদের সহযোগিতা দিচ্ছে সমাজের কিছু প্রভাবশালী, অর্থলোভী স্বার্থন্বেষী মহল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ