শুক্রবার ০৫ জুন ২০২০
Online Edition

পরিকল্পিতভাবে পিলখানার মর্মান্তিক ও বেদনাবিধুর হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে -মনজুরুল ইসলাম ভূঁইয়া

গতকাল শনিবার বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের উদ্যোগে পিলখানার মর্মান্তিক ঘটনায় শহীদ সেনা অফিসারদের স্মরণে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া পরিচালনা করেন কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী সেক্রেটারি মনজুরুল ইসলাম ভূঁইয়া -সংগ্রাম

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি মনজুরুল ইসলাম ভূঁইয়া বলেছেন, পূর্ব পরিকল্পিতভাবে পিলখানার মর্মান্তিক ও বেদনাবিধুর হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করা হয়েছিল।
গতকাল শনিবার রাজধানীর একটি মিলনায়তনে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী দক্ষিণ আয়োজিত পিলখানার মর্মান্তিক ঘটনায় শহীদ সেনাকর্মকর্তা ও অন্যান্য শহীদদের স্মরণে আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। বক্তব্য রাখেন মহানগরী সহকারী সেক্রেটারি ড.এডভোকেট হেলালউদ্দিন, মহানগরী মজলিসে শূরা সদস্য এডভোকেট জসিম উদ্দিন তালুকদার, আবু জারিফ ও আবু আদনান প্রমুখ। 
ঢাকা মহানগরী দক্ষিণের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি বলেন, ২০০৯ সালের ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি পিলখানায় বিডিআর সদর দপ্তরে বাংলাদেশের ইতিহাসে এক লোমহর্সক, মর্মান্তিক ও নৃশংস ঘটনা ঘটানো হয়েছিল। যা মানুষের হৃদয়ে স্পর্শ করেছে এবং ভবিষ্যতেও করবে। মানুষ কখনই এমন লোমহর্ষক ঘটনা ভুলে যাবে না। মানুষ আশা করেছিল এমন একটি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি হবে কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য সরকার তা করতে ব্যর্থ হয়েছে। যে দুটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছিল তারা মূল অপরাধী ও পরিকল্পনাকারীদের চিহ্নিত করতে পারলেও তাদের সীমাবদ্ধতার কারণে তা প্রকাশ করতে পারেনি। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে সুশৃঙ্খল, দক্ষ, চৌকস ও দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী এদেশে যেন তৈরি হতে না পারে সেজন্য এ হত্যাকা- ঘটানো হয়েছে বলে জনগণ মনে করে। তিনি বলেন, উক্ত ঘটনা সংঘটিত হওয়ার পরে দেশের অনেক নিরাপত্তা বিশ্লেষক বলেন রৌমারি সীমান্তে বাংলাদেশ রাইফেলস (বিডিআর) কর্তৃক যারা ঐতিহাসিক শিক্ষা পেয়েছিল তারা এর প্রতিশোধ নিতে এবং বাংলাদেশে একটি সুশৃঙ্খল, শক্তিশালী ও দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী গড়ে উঠতে যেন না পারে সেজন্য তারা পরিকল্পিতভাবে পিলখানার হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করেছে। জনাব মনজুর বলেন, জনগণ লক্ষ্য করছে যখনই আওয়ামী সরকার ক্ষমতায় আসে তখনই দেশে একটির পর একটি অনাকাঙ্খিত ও দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা সংগঠিত করে। শেয়ারবাজার কেলেংকারী, ব্যাংক লুট ও গুম-গুনসহ অসংখ্য অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা তারা সংঘঠিত করেছে। তিনি দেশ ও মানুষ বাঁচাতে এ ভোটারবিহীন অবৈধ ফ্যাসিস্ট সরকারের বিরুদ্ধে সর্বস্তরের জনগণকে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গঠে তোলার আহবান জানান।
ড. হেলাল উদ্দিন বলেন, অবৈধ ক্ষমতা দীর্ঘায়িত করার লক্ষ্যে পরিকল্পনা অনুযায়ী পিলখানার ঘটনা ঘটানো হয়েছিল। 
আলোচনা শেষে মনজুরুল ইসলাম ভূঁইয়ার পরিচালনায় উক্ত ঘটনায় যারা শাহাদাত বরণ করেছিল তাদের শাহাদাত কবুলের জন্য মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের নিকট দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ