রবিবার ১২ জুলাই ২০২০
Online Edition

চট্টগ্রামে ছিনতাই মামলার আসামীকে ছাড়িয়ে নিতে-

চট্টগ্রাম অফিস: গত শনিবার রাতে এক ছিনতাই মামলার আসামীকে ছাড়িয়ে নিতে চট্টগ্রাম মহানগরীর পাঁচলাইশ থানার সামনে অবস্থান নেন চকবাজার থানা যুবলীগ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।তারা পুলিশ কর্মকর্তাদের নানাভাবে চাপ প্রয়োগ করে ব্যর্থ হয়ে হুমকি ধমকি দিলে পুলিশ তাদের লাঠিচার্জ করে সরিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে বলে জানা গেছে।
জানা গেছে, গত ১৫ ফেব্রুয়ারি নগরীর কাতালগঞ্জ বৌদ্ধ মন্দিরের সামনে থেকে পাঁচ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে।  ছিনতাইয়ের শিকার হাটহাজারী উপজেলার ছিপাতলি গ্রামের সিরাজুল হাকের ছেলে নুর উদ্দিন ইসলাম বাদী হয়ে পাঁচলাইশ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
মামলার এজাহারে বলা হয়, উত্তরা ব্যাংক খাতুনগঞ্জ শাখা থেকে পাঁচ লাখ টাকা তুলে টেম্পোতে করে যাবার সময় কাতালগঞ্জ নবপন্ডিত বিহারের সামনে ৩-৪ জন যুবক টেম্পোর গতিরোধ করে। এদের মধ্যে একজন ছিনতাইকারী নূর উদ্দিনের শার্টের  কলার ধরে টেম্পো থেকে জোর করে নামিয়ে ফেলে। অন্য দুই যুবক নূরকে মারধর করে হাতে থাকা টাকাভর্তি ব্যাগ ও মোবাইল সেট কেড়ে নিয়ে কাতালগঞ্জ চার নম্বর রোডের দিকে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় মামলা হলে পুলিশ অভিযানে নামে। ঘটনাস্থলের ভিডিও ফুটেজ দেখে পুলিশ অহিদুল ইসলাম ওরফে আরিফ ও চান মিয়া ওরফে মামুন নামে দুই যুবককে গ্রেপ্তার করে। পুলিশ সূত্রমতে, আরিফ ও মামুনের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ছিনতাইয়ের মূল হোতা হিসেবে নুরুল আলম শিপুকে শনিবার রাতে নগরীর চকবাজারের মক্কি মসজিদের সামনে থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতার হওয়া শিপু চট্টগ্রাম নগরীর চকবাজার এলাকায় ছাত্রলীগ-যুবলীগের  একটি অংশের নিয়ন্ত্রক নূর মোস্তফা টিনুর ভাই।
স্থানীয় সূত্র, প্রতক্ষ্যদর্শীরা জানান, ভাইয়ের গ্রেফতারের খবর পেয়ে শনিবার রাতে যুবলীগ নেতা টিনু ছাত্রলীগ যুবলীগের কিছু নেতাকর্মী নিয়ে পাঁচলাইশ থানার সামনে অবস্থান নেয়। তারা পুলিশ কর্মকর্তাদের নানাভাবে চাপ প্রয়োগ করে ব্যর্থ হয়ে হুমকি-ধমকি দিলে পুলিশ তাদের লাঠিচার্জ করে সরিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পুলিশ কর্মকর্তারা বলেন, গ্রেফতার হওয়া ভাইকে ভাই হিসেবে দেখতে টিনু থানা আসতে পারে। কিন্তু  টিনু এসে যেভাবে পুলিশকে হুমকি ধমকি দিয়েছে তাতে আমরা বিস্মিত হয়েছি। রাতের বেলা থানা ঘেরাও করে আসামি ছেড়ে দেয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করায় আমরা বিব্রত। তবে টিনু যুবলীগের কোন পদে নেই উল্লেখ করে নগর যুবলীগের আহ্বায়ক মহিউদ্দিন বাচ্চু সাংবাদিকদের বলেন, সে (টিনু) যুবলীগের কোন পদ-পদবিতে নেই। এখন যুবলীগের নাম ভাঙিয়ে সে যদি থানায় কোন ছিনতাইকারীকে ছাড়াতে যায় বা অপরাধ করে, পুলিশের তো উচিৎ আইনগত ব্যবস্থা নেয়া।  পুলিশ কেন কোন ব্যবস্থা নিল না।  একজন ছিনতাইকারীকে  ছাড়ানোর জন্য কেউ যুবলীগ-ছাত্রলীগের নাম ব্যবহার করবে, এটা তো আমাদের জন্য বিব্রতকর।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ