বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

ফুলবাড়ীর মধ্যসুলতানপুর অগভীর নলকূপে বিদ্যুৎ সংযোগ নেই ॥ চাষিরা সেচ সুবিধা থেকে বঞ্চিত

ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) সংবাদদাতা: দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনর ইউপির মধ্যসুলতানপুর এলাকায় অগভীর নলকুপে বিদ্যুতের সংযোগ না পাওয়ায় দেড়শ একর জমি সেচ সুবিধা থেকে বঞ্চিত। ফয়েজ উদ্দিন এর অভিযোগে জানা যায়, বিদ্যুৎ অফিসে ধন্যা দিয়েও বৈধ কাগজপত্র জমা দিলেও বিদ্যুতের সংযোগ মিলছে না।
উপজেলার মধ্যসুলতানপুর গ্রামের মৃত জামাল উদ্দিনের পুত্র মোঃ ফয়েজ উদ্দিন উপজেলা সেচ কমিটি থেকে অগভীর নলকুপের লাইসেন্স অনুমোদন এবং ফুলবাড়ী বিদ্যুৎ সরবরাহ বিউবো অফিসে বিদ্যুৎ সংযোগ নেওয়ার জন্য আবেদন করেন। আবেদন পত্র পাওয়ার পর ফয়েজ উদ্দিন এর নিকট থেকে টাকা পয়সা নিয়ে তা ব্যাংকে জমা করেন। কিন্তু বৈধ কাগজপত্র থাকার পরেও বিদ্যুৎ সংযোগ পাচ্ছেন না। ফলে ঐ এলাকার প্রায় দেড়শ একর জমিতে ইরি বোরো ধান রোপা প্রায় অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। কেননা কোন সেচের ব্যবস্থা নেই।
এদিকে ঐ গ্রামের মৃত মছির উদ্দিন এর পুত্র মোঃ বুলবুল হোসেন ফয়েজ উদ্দিন যাতে বিদ্যুৎ সংযোগ নিতে না পারে  সে জন্য তার বিরুদ্ধে আদালতে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করেন।  ফয়েজ উদ্দিন এর অগভীর নলকুপ থেকে ৯শত ফিট দূরে বিএডিসির গভীর নলকুপ বসানো রয়েছে। যা ১০ থেকে ১২ বছর ধরে অকেজো অবস্থায় পড়ে রয়েছে। উক্ত গভীর নলকুপের মালিক গভীর নলকুপটি অদ্যবধি চালু করতে না পারায় এলাকার কৃষকেরা বাধ্য হয়ে নতুন অগভীর নলকুপ স্থাপন করছেন। কিন্তু বিদ্যুৎ সংযোগ না পাওয়ায় নলকুপটি চালু করতে পারছেন না।
ফয়েজ উদ্দিন জানান, আমার বিরুদ্ধে যে ব্যক্তি মামলা করেছে উক্ত ব্যক্তি বুলবুল হোসেন গভীর নলকুপের সাথে জড়িত নয়। সে মিথ্যা মামলা দিয়ে আমার অগভীর নলকুপটি নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ নিয়ে চালু করতে যাতে না পারি সেজন্য ঐ মিথ্যা মামলা করেছে। তিনি আরও জানান, মামলায় পূর্বের গভীর নলকুপটি চালুর রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। তদন্ত করলে তা প্রমান মিলবে। অগভীর নতুন নলকুপটিতে নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া না হলে চলতি বছর ঐ এলাকার শতাধিক কৃষক ইরি বোরো ধান চাষ করতে পারবে না। এমনকি কোনো জায়গা থেকে সেচ সুবিধা পাবে না। ফলে দেড়শ একর জমি অনাবাদি হয়ে পড়ে থাকবে। এতে কৃষকদের ব্যপক ক্ষতি সাধন হবে।
এ ব্যাপারে ঐ এলাকার কৃষকেরা তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়ে অগভীর নলকুপে বিদ্যুতের সংযোগ প্রদান করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ