বৃহস্পতিবার ১৬ জুলাই ২০২০
Online Edition

সাঁথিয়ায় স্কুল ছাত্রকে কুপিয়ে হত্যা

সাঁথিয়া (পাবনা) সংবাদদাতা : পাবনার সাঁথিয়ায় এক স্কুল ছাত্রকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। হত্যার পর পাবনা-ঢাকা মহাসড়কের পাশে উপজেলার শোলাবাড়িয়া মাঠের মধ্যে লাশ ফেলে রেখে গেছে। নিহত অভি (১৩) উপজেলার আতাইকুলা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণীর ছাত্র ও শোলাবাড়িয়া গ্রামের ইমরান হোসেন বাবুর ছেলে ।

পরিবার ও পুলিশ জানায়, গত বৃহস্পতিবার রাতে খাবার খেয়ে অভি তার ঘরে ঘুমোতে যায়। শুক্রবার ভোরে স্থানীয়রা পাবনা-ঢাকা মহাসড়কের পাশে শোলাবাড়িয়া মাঠের মধ্যে লাশ দেখে খবর দিলে অভির লাশ বলে শনাক্ত করে স্বজনেরা। সংবাদ পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাবনা মর্গে প্রেরণ করে। 

সরেজমিনে জানা যায়, নিহত অভি তার দাদা-দাদীর পাশের রুমে থাকত। স্বজনদের অভিমত আনুমানিক রাত সাড়ে ৯টার দিকে একটি ফোন পেয়ে অভি নিজ রুমে তালা দিয়ে ঘর থেকে বের হয়ে যায়। শুক্রবার ভোরে শোলাবাড়িয়া মাঠের মধ্যে তার লাশ পাওয়া যায়। অভির মা শাহিদা খাতুন স্কুল পড়–য়া বড় ছেলে অভির শোকে বার বার জ্ঞান হারিয়ে ফেলছেন। বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ছেন, কারো সাথে কথা বলতে পারছেন না। অভির চাচা মোকাই আহাজারি করে বলেন, প্রতিবেশী জালাল, জয়নাল আমার ভাতিজাকে মেরে ফেলেছে। অভির পিতা বাবু কান্নায় মুষরে পড়ে বলেন, ওরা কেমন পাষাণ যে আমার শান্ত ও নিরপরাধ ছেলেকে এভাবে কুপিয়ে হত্যা করল। অভির বৃদ্ধ দাদা নায়েব আলী কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে বলেন, আমার দুধের নাতীকে কি অপরাধে ওরা এই ভাবে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দিল। তিনি নাতী হত্যাকারীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। গ্রামবাসী অধ্যাপক শাহজাহান, রফিক, আঃ আজিজ, মিন্টু এ ধরনের হত্যাকাণ্ডে হতবাক। তারা হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারসহ উপযুক্ত শাস্তি দাবি করেন।

জালাল, জয়নালের বাড়ি গিয়ে দেখা যায় তারা পলাতক রয়েছে। তাদের বাড়ির বাইরে খড়ের পালার নিকটে ও পার্শ্ববর্তী স্বপ্না, শেফালী, চম্পার বাড়ির বন্ধ ঘরের বারান্দায় ও কুল গাছের নিচে জমাট বাঁধা রক্ত দেখা যায়। এ বাড়ির কোন সদস্যকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। 

পাবনা জেলা পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তদন্ত প্রাথমিক পর্যায়ে আছে। তবে হত্যা রহস্য উদঘটনের কাছাকাছি পৌঁছে গেছি। এ ঘটনায় অভির পিতা ইমরান হোসেন বাবু বাদী হয়ে আতাইকুলা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-২, তারিখ ৩/২/২০১৭। ঘটনার সাথে জরিত সন্দেহে পুলিশ জালাল শেখের স্ত্রী বাছিয়া খাতুনকে (৪০) আটক করেছে। এ খুনের ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। নিহত অভির লাশ একনজর দেখার জন্য শত শত নারী পুরুষ ভিড় জমায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ