শনিবার ০৮ আগস্ট ২০২০
Online Edition

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ১১ দিনে ৪২ মামলা

সংগ্রাম ডেস্ক : ক্ষমতা গ্রহণের প্রথম ১১ দিনেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ৪২টি মামলা দায়ের হয়েছে। শপথ নিয়ে একের পর এক নির্বাহী আদেশ জারি করে তুলকালাম বাঁধিয়ে দিয়েছেন তিনি। এর মধ্যে সাত মুসলিম দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেয়ায় সবচেয়ে বেশি বিতর্কের মুখে পড়েছেন। ইতোমধ্যে পাঁচ রাজ্যের অ্যাটর্নি জেনারেল ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশকে অসাংবিধানিক ও অ-আমেরিকান দাবি করে তা বাতিলের দাবি জানিয়েছেন। আরও ছয়টি রাজ্যে একই ধরনের মামলার প্রস্তুতি চলছে। ডেমোক্রেটিক শাসনাধীন রাজ্যগুলো ট্রাম্পের বিরুদ্ধে একজোট হচ্ছে। খবর সিএনএন, গার্ডিয়ান, ব্লুমবার্গ ও এএফপির।
ওভাল অফিসে পা দেয়ার আগেই ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অনেকগুলো মামলা হয়েছে। এর বেশিরভাগই করেছেন হাই প্রোফাইল ব্যবসায়ীরা। আগে থেকেই তার বিরুদ্ধে অভিযোগগুলোর মধ্যে আছে- যৌন হয়রানি, বিনিয়োগকারীদের ঠকানো এবং তার নিজ নামে প্রতিষ্ঠা করা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে প্রতারণা।
ট্রাম্পের মুসলিম নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে প্রথম মামলা দায়ের করেছে ওয়াশিংটন রাজ্য। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে নিউইয়র্ক, ম্যাসাচুসেটস ও ভার্জিনিয়া। অন্যদিকে শহর কর্তৃপক্ষ হিসেবে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে প্রথম মামলা দায়ের করেছে লস অ্যাঞ্জেলেসের সানফ্রান্সিসকো। ওয়াশিংটনের অ্যাটর্নি জেনারেল বব ফার্গুসন সোমবার মামলার ঘোষণা দেন।
সংবাদ সম্মেলনে বব ফার্গুসন বলেছেন, যদি তিনি মামলায় সফল হন তাহলে আমেরিকাজুড়ে প্রেসিডেন্টের অবৈধ কার্যক্রম বাতিল হবে। এ পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অভিবাসন নীতি নিয়ে দেয়া নিষেধাজ্ঞা নিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন বিভিন্ন রাজ্যের কমপক্ষে ১৬ জন অ্যাটর্নি জেনারেল। তারা ট্রাম্পের অভিবাসন নীতিকে আমেরিকার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয় ও বেআইনি বলে আখ্যায়িত করেছেন। ওই ১৬ জন অ্যাটর্নি জেনারেলের একজন হলেন বব ফার্গুসন।
বব ফার্গুসন আরও বলেছেন, ওয়াশিংটনভিত্তিক তিনটি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান- মাইক্রোসফট, অ্যামাজন ও এক্সপেডিয়া তাকে এ মামলা করতে সমর্থন দিচ্ছে। তার সঙ্গে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন গভর্নর জে ইনসলি।
গত মঙ্গলবার নিউইয়র্কের অ্যাটর্নি জেনারেল এরিক শিনেডারম্যান, ম্যাসাচুসেটসের অ্যাটর্নি জেনারেল মাউরা হেলি ও ভার্জিনিয়া কর্তৃপক্ষ ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশের বিরুদ্ধে মামলার ঘোষণা দেন। অন্যদিকে ক্যালিফোর্নিয়া, টেক্সাস, নিউ জার্সি, ফ্লোরিডা, পেনসিলভানিয়া ও হাওয়াই অঙ্গরাজ্য প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশ ও বিমানবন্দরে মুসলিম যাত্রীদের হয়রানি ও নাজেহালের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে। এরই মধ্যে পেনসিলভানিয়া ও হাওয়াই রাজ্যের অ্যাটর্নি জেনারেল অফিসের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তারা কীভাবে ও কোন আদালতে ট্রাম্পের অভিবাসনবিরোধী নির্বাহী আদেশের বিরুদ্ধে মামলা করা যায়- তা নিয়ে আলোচনা করেছেন।
হাওয়াই রাজ্যের অ্যাটর্নি জেনারেল ডগলাস চিন বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি নির্বাহী আদেশ অসাংবিধানিক। মূলত ডেমোক্রেটিক পার্টি ক্ষমতায় এমন রাজ্যগুলোই ট্রাম্পের বিরুদ্ধে একাট্টা হওয়ার চেষ্টা করছে।’ তবে শেষ পর্যন্ত কতগুলো রাজ্য তাতে যোগ দেবে- তা বলতে পারেননি ওই অ্যাটর্নি জেনারেলরা। পেনসিলভানিয়া অ্যাটর্নি জেনারেল জোস শাপিরোর মুখপাত্র জো গ্রেস বলেন, ‘এ নিয়ে নিশ্চিতভাবেই একটি আলোচনা চলছে।’
পররাষ্ট্র দফতরের এক হাজার কর্মকর্তার স্মারকলিপি : সাতটি দেশের নাগরিকদের বিরুদ্ধে ট্রাম্প আরোপিত ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারে আপত্তি রয়েছে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের অভ্যন্তরেও। এরই মধ্যে ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে একটি স্মারকলিপিতে স্বাক্ষর করেছেন পররাষ্ট্র দফতরের প্রায় ১ হাজার কর্মকর্তা। রয়টার্স জানায়, ট্রাম্পের এ আদেশের ব্যাপারে পররাষ্ট্র দফতরের কর্মকর্তাদের মধ্যে চরম ক্ষোভ রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ