বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

সাভারে সরকারি জলাশয় ভরাট বন্ধ করতে যাওয়ার সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও স্থানীয় চেয়ারম্যানকে লক্ষ্য করে সন্ত্রাসীদের ইটপাটকেল নিক্ষেপ

সাভার সংবাদদাতা : সাভারে সরকারী জলাশয় ভরাট করার অভিযোগ তুলে কাজ বন্ধ করতে যাওয়ার সময় নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট, পুলিশ ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে লক্ষ করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করেছে সন্ত্রাসীরা। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে সাভারের বনগাঁও ইউনিয়নের বনগ্রামের তুরাগ নদীতে এঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানায়, তুরাগ নদীর পাড়ে প্রায় নয়’শ বিঘা জমি রয়েছে মিরপুর আল-ফালাহ সমবায় সমিতির। পরে মিরপুর আল ফালাহ সমিতির নির্দেশে সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদ আরিফ উদ্দিন আরিফের উদ্যোগে কিছু সরকারী জলাশয় বালু দিয়ে ভরাট করছিলেন মিরপুর আল-ফালাহ সমিতির কর্মচারীরা। এসময় এলাকাবাসী সাভার উপজেলা প্রশাসনকে জলাশয় ভরাট বন্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দিলে সকালে সাভারের সহকারী কমিশনার (ভুমি ) আমিনবাজার রাজস্ব সার্কেল  ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইমরুল কায়েস ট্রলারে করে তুরাগ নদীতে যান। এসময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইমরুল কায়েসের সাথে ছিলেন বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম ও আমিনবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্য এস আই বাছেদ ও কয়েকজন পুলিশ কনস্টেবল। পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইমরুল কায়েস, ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম ও পুলিশ সদস্যরা ট্রলারে করে ঘটনা স্থলে গেলে মিরপুর আল-ফালাহ সমিতির ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা তাদের উপর লাঠি সোটা নিয়ে ধাওয়া দিয়ে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে। পরে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এসময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ওই স্থানে জলাশয় ভরাট কাজ করা বন্ধ করে দিয়ে তাড়া-ড়া করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে চলে যান। এসময় ওই স্থানে সন্ত্রাসীদের ধারালো অস্ত্র নিয়ে মহড়া দিতে দেখা যায়।

এঘটনায় ওই এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। যেকোন সময় ওই এলাকায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করেছেন এলাকাবাসী।

এলাকাবাসীর অভিযোগ মিরপুর আল-ফালাহ সমিতি তুরাগ নদীর বনগাঁমে বিভিন্ন সরকারী জলায় বালু দিয়ে ভরাট করলেও সাভার উপজেলা প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। নদী থেকে ড্রেজার দিয়ে বালু তোলায় তুরাগ নদীর পাড় যেকোন সময় ভেঙ্গে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করেন তারা।  এলাকাবাসী ওই সমিতি কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রশাসনকে অবিলম্বে ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ।

এবিষয়ে সহকারী কমিশনার (ভুমি ) আমিনবাজার রাজস্ব সার্কেল ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ইমরুল কায়েস বলেন, আপাদত ওই স্থানে কাজ বন্ধ রয়েছে। মিরপুর আল-ফালাহ সমিতির কর্তৃপক্ষকে আমরা জমির কাগজ পত্র নিয়ে আসতে বলেছি। পরে আমরা জমির কাগজ পত্র দেখে ব্যবস্থা নেব। এদিকে মিরপুর আল-ফালাহ সমিতির কর্মচারী নাছির উল্লাহ জানান আমাদের ব্যক্তিগত কেনা জমিতে আমরা ড্রেজার দিয়ে বালু ভরাট করছি কোন সরকারী জমিতে না। বনগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম জানিয়েছে ওই এলাকা ডিটেল এরিয়া প্ল্যান্ট ডাবে অবস্থিত তাই ওই স্থানে জলাশয় ভরাট করে বালু ফেলার কোন নিয়ম নেই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ