শুক্রবার ২০ মে ২০২২
Online Edition

খালেদা জিয়া আজ আদালতে যাবেন

স্টাফ রিপোর্টার: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় হাজিরা দিতে আজ বৃহস্পতিবার আদালতে যাবেন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। এই মামলায় আজ তার আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানির দিন ধার্য আছে। বিএনপি চেয়ারপার্সনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান জানান, খালেদা জিয়া বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় গুলশানের বাড়ি থেকে আদালতের উদ্দেশে রওনা হবেন।
এর আগে গত ৩০ জানুয়ারি আদালতে হাজির হয়েছিলেন খালেদা জিয়া। ওই দিন অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় আদালত খালেদার আত্মপক্ষ সমর্থনের শুনানির জন্য বৃহস্পতিবার দিন ধার্য করেন। আর খালেদা জিয়ার পক্ষে মামলার পুনঃতদন্তের আবেদনের ওপর বিস্তারিত শুনানির সময়ও ওই দিন ধার্য করেন। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায়ও খালেদা জিয়ার আত্মপক্ষ সমর্থন করে দেয়া অসমাপ্ত বক্তব্য উপস্থাপনের জন্য আজ তারিখ ধার্য রয়েছে।
এদিকে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে করা নাশকতার ৯টি ও রাষ্ট্রদ্রোহের একটি মামলায় গতকাল বুধবার অভিযোগ গঠনের শুনানির দিন ধার্য ছিল। কিন্তু খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা জানান তিনি অসুস্থ। তাই তারা সময়ের আবেদন করেন। আদালত ২৭ ফেব্রুয়ারি পরবর্তী শুনানির তারিখ ধার্য করেন। সেদিন হাজির না হলে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হবে বলে আদালত জানান। ঢাকা মহানগর দায়রা জজ মো. কামরুল হোসেন মোল্লা এ তারিখ নির্ধারণ করেন। আসামীপক্ষে এডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়াসহ আইনজীবীরা সময় আবেদনের ওপর শুনানি করেন।
মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা নিয়ে মন্তব্যের অভিযোগে গত বছরের ২৫ জানুয়ারি আদালতে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলাটি দায়ের করা হয়। গত ৫ এপ্রিল খালেদা জিয়া এই মামলাটিসহ পাঁচটি মামলায় আদালতে হাজির হয়ে জামিন গ্রহণ করেন। নাশকতার নয় মামলার মধ্যে দারুস সালাম থানা আটটি ও যাত্রাবাড়ী থানার বিস্ফোরক আইনে একটি মামলা। যাত্রাবাড়ী থানার নাশকতার মামলায় ২০১৫ সালের ২৩ জানুয়ারি রাতে যাত্রাবাড়ীর কাঠেরপুল এলাকায় গৌরি পরিবহনের যাত্রীবাহী একটি বাসে পেট্রলবোমা হামলায় ২৯ যাত্রী দগ্ধ হন। পরে নূর আলম নামের এক দগ্ধ যাত্রী মারা যান। ২০১৫ সালের ৩০ এপ্রিল খালেদা জিয়াসহ ৩৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল হয়। ওই মামলায় উল্লেখযোগ্য অপর আসামীরা হলেন- এম কে আনোয়ার, রুহুল কবির রিজভী, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, আমানউল্লাহ আমান, বরকত উল্লাহ বুলু, খন্দকার মাহবুব হোসেন, শওকত মাহমুদ প্রমুখ। অপরদিকে ২০১৫ সালের দারুস সালাম থানা এলাকায় নাশকতার অভিযোগে আটটি মামলা দায়ের করা হয়। পরে ওই মামলাগুলোয় খালেদা জিয়াকে হুকুমের আসামী করে চার্জশিট দেয়া হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ