মঙ্গলবার ০৪ আগস্ট ২০২০
Online Edition

এবার বিশ্বের প্রথম বৃক্ষমানবী নেত্রকোনার শাহানা

স্টাফ রিপোর্টার : বৃক্ষমানব আবুল বাজানদারের পর এবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে একই ধরনের রোগে আক্রান্ত ১০ বছরের ছাত্রী শাহানা খাতুন। নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলার তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রী শাহানা খাতুনের মুখ, থুতনি, নাক, দুই কানের লতিতে বের হওয়া উপসর্গগুলো গাছের শিকড়ের মতো দেখতে। চিকিৎসকরা বলছেন, এ ধরনের রোগে এর আগে কোনো মেয়ে বা নারীর আক্রান্ত হওয়ার তথ্য তাদের জানা নেই। বেশ কয়েকজন পুরুষ রোগীর বিষয়ে এমন তথ্য পাওয়া গেলেও কোনো নারীর ক্ষেত্রে এমন তথ্য পাওয়া যায়নি। 

গত রোববার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে শাহানাকে ভর্তি করা হয়। গতকাল বুধবার বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের সমন্বয়ক সামন্ত লাল সেন জানান, আবুল বাজানদার অনেক পরিণত অবস্থায় তাদের কাছে ভর্তি হয়েছিলেন। শাহানার রোগের লক্ষণগুলোও অনেকটা একই ধরনের। তিনি জানান, প্রাথমিক ভাবে রোগটি এপিডার্মোডিসপ্লাসিয়া ভেরাসিফরমিস বা এ ধরনের কোনো রোগে আক্রান্ত বলে মনে করা হচ্ছে। শাহানার রোগটির বিষয়ে এখন পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে। কলমাকান্দার লেগুরা ইউনিয়নের বালুচরা গ্রামের দিনমজুর শাহজাহান মিয়ার একমাত্র মেয়ে শাহানা। মেয়ের এমন রোগ নিয়ে বেশ চিন্তিত মোহাম্মেদ শাহজাহান। তিনি বলেন, আমরা খুব গরিব। শাহানার যখন ছয় বছর তখন তার মা মারা যায়। আমি সত্যিই চাই ডাক্তাররা তার এই রোগ ভালো করুক।

অসহায় এ সন্তানের প্রতি তাকিয়ে দিনমজুর পিতা দ্বিতীয় বিয়ে করেননি। মা মারা যাওয়ার পর দাদির কাছেই শিশুটি বেড়ে ওঠে। কলমাকান্দা লেগুড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান জানান, আমার বিষয়টি জানা নেই, সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্যকে দিয়ে খোঁজ নেয়ার জন্য বলেছি। 

 নেত্রকোনার সিভিল সার্জন আব্দুল গণি জানান, শাহানাকে স্থানীয় ভাবে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়নি। তবে এই পরিবারে আরো কেউ এ ধরনের রোগে আক্রান্ত কিনা তা খোঁজ নিয়ে দেখা হচ্ছে। প্রথমে স্থানীয় হোমিও ডাক্তারের কাছে চিকিৎসা করানো হয়েছে। তবে অবস্থার কোনো উন্নতি না হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় নিয়ে আসা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ