বুধবার ১২ আগস্ট ২০২০
Online Edition

রাজধানীতে অগ্নিকাণ্ডে একই পরিবারের ৪ জন দগ্ধ

স্টাফ রিপোর্টার: রাজধানীর ভাটারার খিলবাড়ির টেক এলাকার একটি বাসায় গ্যাস লাইন লিকেজ থেকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় একই পরিবারের ৪ জন দগ্ধ হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে রোববার রাতে। দগ্ধরা হলেন, শহীদুল ইসলাম (৬৫) স্ত্রী নাদিরা বেগম (৫৫) দুই ছেলে মোর্শেদ (২৬) এবং জিহাদুন নবী (৩২)। তাদেরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে।
দগ্ধ মোর্শেদ জানান, তারা বর্তমানে ভাটারা খিলবাড়িরটেক এলাকার ১০৭৯ নম্বর বাসায় ভাড়া থাকেন। রাতে মশা মারার জন্য ইলেক্ট্রিক ব্যাট চালু করলে হঠাৎ করে সাড়া ঘরে আগুন ধরে যায়। তাদের চিৎকারে প্রতিবেশীরা এসে উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেন বার্ন ইউনিটের আবাসিক চিকিৎসক ডা. পার্থ শংকর পাল জানান, শহীদুলের ১৫ শতাংস, স্ত্রী নাদিরা বেগম ৮৫ শতাংশ, মোর্শেদের ৩ শতাংশ এবং জিহাদুন নবীর ৩০ শতাংশ পুড়ে গেছে। এদের ভিতরে নাদিরা এবং জিহাদের অবস্থা আশংকা জনক।
শাহজালালে ১৪৪ কার্টন নিষিদ্ধ সিগারেট জব্দ:
হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিদেশ থেকে আসা এক যাত্রীর কাছ থেকে আমদানি নিষিদ্ধ ১৪৪ কার্টন সিগারেট জব্দ করেছে শুল্ক গোয়েন্দারা। গতকাল সোমবার মোহাম্মদ হাসান নামের ওই যাত্রীর ২টি লাগেজ থেকে এসব সিগারেট জব্দ করা হয়।
 শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. মইনুল খান জানান, সিগারেটগুলোর বহনকারী মোহাম্মদ হাসান সোমবার সকালে শারজাহ থেকে এয়ার এরাবিয়ার একটি ফ্লাইটে (জি৯-০৫১৭) ঢাকায় আসেন। গোপন সংবাদ থাকায় শুল্ক গোয়েন্দারা তাকে নজরদারিতে রাখে এবং ৫ নম্বর ব্যাগেজ বেল্ট থেকে ব্যাগেজ সংগ্রহ করার পর কাস্টমস হলে নিয়ে আসা হয়। পরে তার ২টি লাগেজ থেকে সিগারেটগুলো জব্দ করা হয়। আটককৃত সিগারেটগুলো বেনসন অ্যান্ড হেজেজ, ইজি এবং থ্রি জিরো থ্রি ব্র্যান্ডের।
আমদানি নীতি আদেশ অনুযায়ী প্যাকেটের গায়ে বাংলায় ধূমপানবিরোধী সতর্কীকরণ লেখা ব্যতিত বিদেশী সিগারেট আমদানি করা যায় না। সিগারেটের উপর উচ্চ শুল্ক (প্রায় ৪৫০%) পরিহারের জন্যই এসব সিগারেট আনা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে বলে জানান ড. মইনুল খান। আটককৃত পণ্যের শুল্ক করসহ মূল্য প্রায় সাড়ে ১১ লাখ টাকা। এগুলোর বিরুদ্ধে শুল্ক আইনে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ