বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

দেশের ১৭ কূপে বাপেক্সের নিষ্ফল জরিপ নতুন নেয়া হচ্ছে থ্রি ডি সাইসমিক প্রকল্প

স্টাফ রিপোর্টার : দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ১৭ টি গ্যাস কূপে জরিপ পরিচালনা করে সফল হয়নি বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রোডাকশন কোম্পানি লিমিটেড (বাপেক্স)। সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটি সিলেটের কৈলাশটিলায় চারটি, হরিপুরে তিনটি এবং রশিদপুরে ১০টিসহ মোট ১৭টি কূপ খননে জরিপ করেছিলো ১১ কোটি ৮৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১০-১২ অর্থবছরে সিলেট গ্যাস ফিল্ডসের (এসজিএফএল) ওই ১৭টি কূপে থ্রি ডি সাইসমিক জরিপ পরিচালনা করা হয়। এর মধ্যে রশিদপুর ফিল্ডে ৩২৫, কৈলাশটিলা ফিল্ডে ১৯০ এবং সিলেট (হরিপুর) ফিল্ডে ১৯০ বর্গকিলোমিটারসহ সর্বমোট ৭০৫ বর্গকিলোমিটারে জরিপ করে বাপেক্স।
তবে ১৭টি কূপে কোথায় কি পরিমাণ গ্যাস-তেল আছে, সে বিষয়ে কোনো ধারণা পায়নি রাষ্ট্রীয় তেল-গ্যাস অনুসন্ধান ও উত্তোলনকারী প্রতিষ্ঠানটি। জরিপের সুপারিশ অনুসারে খননকৃত কূপের ফলাফল আশাব্যঞ্জক নয়। ফলে ১৭টি কূপে ফের থ্রি ডি সাইসমিক জরিপ ডাটা ও প্রতিবেদন রিভিউকরণ প্রকল্প নেয়া হচ্ছে। যেন প্রথম প্রকল্পের ভুলগুলো ধরা পড়ে, কূপগুলোর বিষয়ে স্বচ্ছ ধারণা অর্জন এবং গ্যাস-তেল উত্তোলনে বড় প্রকল্প গ্রহণ করা যায়।
এসজিএফএলের কূপগুলোতে চলতি অর্থবছরে দ্বিতীয়বারের মতো কূপ খননে জরিপ পরিচালনায় ব্যয় ধরা হয়েছে ২৭ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। এর মধ্যে অবকাঠামো নির্মাণ, বৈদেশিক পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে থ্রি ডি সাইসমিক জরিপ ডাটা ও প্রতিবেদনগুলোর পুনঃপর্যালোচনায় ব্যয় হবে ১৮ কোটি ৭৭ লাখ টাকা।
 এসজিএফএলের ব্যবস্থাপক (পরিকল্পনা) হেলাল উদ্দিন জানান, ‘বাপেক্সের মাধ্যমে করা আগের জরিপে ১৭টি কূপের বিষয়ে আমরা স্বচ্ছ ধারণা পাইনি। এর মধ্যে তেলের জন্য রশিদপুরের আট ও কৈলাশটিলায় নয় নম্বর কূপ খনন করেছিলাম, কিন্তু তেলের সন্ধান পাইনি। ডাটা করতে গিয়ে কোথায় ভুল হয়েছে আমরা ধরতে পারছি না। সুতরাং, তেল-গ্যাস অনুসন্ধানে বড় প্রকল্প গ্রহণের আগে এগুলো রিভিউ করা জরুরি। আমার বিশ্বাস, প্রকল্পটি রিভিউ করলে আগের ভুল ধরা পড়বে এবং ভালো আশাব্যঞ্জক ফল পাওয়া যাবে’।
 এসজিএফএল সূত্র জানায়, বাপেক্সের মাধ্যমে থ্রি-ডি সাইসমিক সার্ভে রিপোর্টের ভিত্তিতে স্ট্রাকচারে তেল পাওয়ার সম্ভাবনা থাকায় কৈলাশটিলা-৭ নম্বর কূপ খনন প্রকল্প হাতে নেয়া হয়। এ কূপে সম্পাদিত ফলাফল আশাব্যঞ্জক না হওয়ায় রিপোর্টের ভিত্তিতে নির্ধারিত অন্য দুটি কূপ কৈলাশটিলা-৯ এবং সিলেট-৮ কূপে পুনঃজরিপের বিষয়ে একমত পোষণ করা হয়েছে।
পরিকল্পনা কমিশনের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, একমাত্র সরকারি বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান হিসেবে বাপেক্সকে দিয়ে বিদ্যমান থ্রি ডি সাইসমিক ডাটা এবং রিপোর্ট পর্যালোচনার কাজটি সম্পন্ন করা যেতে পারে। তবে পেট্রোবাংলার প্রতিনিধি বলেন, বাপেক্সের তত্ত্বাবধানে নির্বাচিত তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে ডাটা ও রিপোর্ট পর্যালোচনা করা উত্তম হবে। তবে এ সময় বাপেক্সের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের উপস্থিত থাকতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ