বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

চট্টগ্রামে বিএনপি দলীয় কার্যালয়ে গণতন্ত্র হত্যা দিবসের আলোচনা সভা

চট্টগ্রাম অফিস: চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি’র সভাপতি ও বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, ১৯৭৫ সালের ২৫ জানুয়ারি সকল দল বিলুপ্ত করে বাকশাল গঠন করেছিল আওয়ামী লীগ। মাত্র ১১ মিনিটে সংসদ বিলুপ্ত করে রাষ্ট্রপতি শাসিত সরকার ব্যবস্থা চালু করেছিল। আজ সে গণতন্ত্র হত্যা দিবস এই দিনে সংসদে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমান চতুর্থ সংশোধনী বিল পাস করে দেশের সব রাজনৈতিকদল বিলুপ্ত করে একদলীয় শাসন ব্যবস্থার কথা বাকশাল কায়েম করে। বাকশালের দর্শন বাস্তবায়নের জন্য এর ধারাবাহিকতায় ১৯৭৫ সালের ১৬ জুন সকল সংবাদপত্র বন্ধ ঘোষণা করে শুধু সরকারি ব্যবস্থাপনায় দৈনিক ইত্তেফাক, দৈনিক বাংলা, বাংলাদেশ অবজারভার এবং বাংলাদেশ টাইমস্ এই চারটি পত্রিকা সাময়িক প্রকাশের অনুমতি দেয়া হয়।
 ডা. শাহাদাত হোসেন আরও বলেন, বর্তমানে দেশের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি চরম অবনতি। দেশের মানুষের শান্তি, নিরাপত্তা, ব্যবসা-বাণিজ্য সবকিছুই এখন নৈরাজ্যের করলগ্রাসে নিপতিত। সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনীর মাধ্যমে আরও একটি কালো অধ্যায় রচিত করেছে এই অবৈধ সরকার। এই সংশোধনীর মাধ্যমে দেশের নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার ব্যবস্থা বাতিল করে আর এই পঞ্চম সংশোধনী হচ্ছে মৃত বাকশালের প্রেতাত্মা যা বর্তমান ভয়াল দুঃশাসনই তা প্রমাণ করে। পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে মানুষের বাক, চিন্তা, বিবেক, মত প্রকাশ, সংগঠন ও সমাবেশের স্বাধীনতা হরণ করে যা গণতন্ত্রের কবর রচনা করেছে।       
ডা. শাহাদাত আরও বলেন, সাংবাদিক ও সংবাদ পত্রের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। সাংবাদিক ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতা হরণ করা হয়েছে। তাদের অবাধ মতপ্রকাশের স্বাধীনতাকে অবরুদ্ধ করা হয়েছে। এই সরকারের তথ্য মন্ত্রী হাসানুল হক ইনু তৎকালীন ১৯৭৫ সালে ১৬ জুনে সংবাদ পত্র বন্ধ করার প্রতিবাদ জানিয়ে রাস্তায় নেমেছিলেন। আজ ক্ষমতার মসনদে বসে, ক্ষমতার লোভে লালায়িত হয়ে সংবাদ ও সংবাদপত্রের নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। তিনি অদ্য ২৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যা দিবস উপলক্ষ্যে দলীয় কার্যালয় নাসিমন ভবনে মহানগর বিএনপি আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন।
চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর বলেন, আওয়ামী লীগ মুখে গণতন্ত্রের কথা বললেও তারা সংবাদপত্র এবং গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না। আওয়ামী লীগ যতবার ক্ষমতায় এসেছে ততবারই সংবাদপত্রের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করেছে। ৭৫’র সালের এই দিনে শেখ মুজিব বাকশাল গঠনের মাধ্যমে বাংলাদেশের সব রাজনৈতিক দল এবং সংবাদপত্র বিলুপ্ত করে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা চালু করেছিল।
এই ব্যবস্থার মাধ্যমে তৎকালীন শাসকগোষ্ঠী মানুষের বাক, ব্যক্তি চলাচল ও সমাবেশের স্বাধীনতাসহ সকল মৌলিক অধিকার হরণ করেছিল। দেশবাসীর দীর্ঘদিনের সংগ্রামের ফলে অর্জিত মানুষের স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রকে ভূলুণ্ঠিত করে তারা গণতন্ত্রের প্রাণশক্তিকে নিঃশেষ করে দিয়েছিল। তিনি বলেন, বহু চোরা গলি দিয়ে রাষ্ট্রক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়ে বর্তমান সরকারও গণতন্ত্রকে কবর দিয়ে মানুষের কথা বলার স্বাধীন, মতপ্রকাশ এবং সমাবেশের স্বাধীনতা কেড়ে নিয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ