বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

নাজিরপুরে আদমশুমারীর কর্মী নিয়োগে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ

নাজিরপুর (পিরোজপুর) সংবাদদাতা: পিরোজপুরের নাজিরপুরে আদম শুমারীর কর্মী নিয়োগে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে, উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের প্রত্যেকটি ওয়ার্ডের ২শ’ থেকে ১৮০ গৃহের জন্য একজন করে মাঠকর্মী, এসব গণনাকারীদের তত্ত্বাবধানের জন্য প্রতি ওয়ার্ডে ১জন করে সুপারভাইজার ও এসব সুপার ভাইজারদের তত্ত্বাবধানের জন্য প্রত্যেক ইউনিয়নে ১ জন করে কো-অর্ডিনেটর  নিয়োগ দেয়া হয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, এ সব নিয়োগ প্রক্রিয়ার জন্য কোনরূপ প্রচারনা ছাড়া সম্পূর্ণ গোপনে সংশ্লিষ্ট ইউপি’র দায়িত্বপ্রাপ্ত পরিসংখ্যান জোনাল অফিসারসহ স্থানীয় সরকারদলীয়দের হস্তক্ষেপে অর্থের বিনিময় ও সরকার দলীয় নেতা-কর্মীদের নিয়োগ দেয়া হয়েছে।
উপজেলার শেখমাটিয়া ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের সুপারভাইজার পদে কাজ করতে আগ্রহী তাওহীদুল ইসলাম অভিযোগ করেন, সম্পূর্ণ গোপনে এ নিয়োগ দেয়া হয়েছে। তাই এ ওয়ার্ডের কেউই এ নিয়োগের ব্যাপরে না জানায় সুপারভাইজার পদে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের কাউকে নিয়োগ না দিয়ে নিয়ম বর্হিভুতভাবে অন্য ওয়ার্ডের একজনকে এ পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।
ওই ইউনিয়নের দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত জোনাল অফিসার উপজেলা কৃষি অফিসের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ননী গোপাল মজুমদার জানান, ইউপি চেয়ারম্যান ও স্থানীয় সরকার দলীয়দের  দেয়া তালিকাই তিনি জেলা অফিসে জমা দিয়েছেন। এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান মো. মনিরুজ্জামান আতিয়ার জানান, ইউপি সদস্য ও নিয়োগ কমিটির মতামত অনুযায়ী স্বচ্ছভাবে  নিয়োগ দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশ জনসংখ্যা  রিসার্স ফোরামের  প্রশিক্ষন প্রাপ্ত ও ৭ বছরের অভিজ্ঞ উপজেলার মাটিভাংগা ইউনিয়নের সরদার সাফায়েত হোসেন শাহীন অভিযোগ করেন, তিনি গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এ  নিয়েগের বিষয়ে জানলে সংশ্লিষ্ট ইউপি’র দায়িত্বপ্রাপ্ত পরিসংখ্যান জোনাল কর্মকর্তা উপজেলার উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা  বিজন কৃষ্ণের কাছে এ কাজের আগ্রহের  বিষয় জানালেও  তিনি তাকে  নিয়োগ না দিয়ে অনভিজ্ঞ লোককে নিয়োগ দিয়েছেন। ওই কর্মকর্তার জানান, তালিকা জমা দেয়ার আগের দিন  তিনি আমাকে এ  বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। উপজেলার অতিরিক্ত দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত ও জেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মো. মাসুদুর রহমান জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সহ সংশ্লিদের দেয়া নিয়োগ তালিকাই আমরা চুড়ান্ত করেছি।  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রেজাউল করিম জানান, নিয়োগের অনিয়মের ব্যাপারে কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা  নেয়া  হবে। এ নিয়োগ কমিটির  উপদেষ্টা উপজেলা চেয়ারম্যান মো. নজরুল ইসলাম খান  নিয়োগ প্রক্রিয়ার ব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না, তবে নিয়োগে অনিয়ম ও দলীয় করনের কিছু মৌখিক অভিযোগ পেয়েছেন বলে জানান। এ  নিয়োগ কমিটির সদস্য উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মাদ আলী শিকদার এ নিয়োগের ব্যাপারে  কোন  কিছুই জানেন না বলে জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ