শুক্রবার ২০ মে ২০২২
Online Edition

অভিষেকে হাজির থাকতে ওয়াশিংটন যাচ্ছেন ট্রাম্প সমর্থকরা

১৮ জানুয়ারি, এএফপি : রিপাবলিকান লিন্ডা কুলস শিকাগো থেকে ওয়াশিংটন এসেছেন ইতিহাসের সাক্ষী হতে। তিনি তার প্রিয় প্রার্থী ও নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিষেকে উপস্থিত থাকতে এ দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়েছেন। দেশের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্প শপথ নিতে যাচ্ছেন।
জনসংযোগ লেখক লিন্ডা কুলস (৫০) জানান, ‘আমি খুবই আনন্দিত। একটি নতুন পালাবদল, শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তর দেখা আমার জন্য খুবই আনন্দের হবে।’
আগামীকাল শুক্রবার শপথ অনুষ্ঠানের আগে লিন্ডার মত ট্রাম্প সমর্থকেরা ওয়াশিংটনে ভিড় জমাচ্ছেন। তারা ট্রাম্পের শপথ অনুষ্ঠানের সাক্ষী হতে চান। তারা ট্রাম্প সমালোচকদের উপযুক্ত জবাব দিতে চান যে নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট সম্পর্কে তাদের ধারণা ভুল। শপথ অনুষ্ঠানে আট লাখ লোক উপস্থিত থাকবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।
ভাসি গাওয়া ও তার স্বামী ক্যালিফোর্নিয়ার সান বার্নারদিনো থেকে এখানে এসেছেন। ভাসি গাওয়া বলেন, ‘আমি সবসময় ট্রাম্পের একজন বড় ভক্ত। তিনি যেভাবে মানুষের কাছাকাছি যান তা আমার খুব পছন্দ। তিনি যা পছন্দ করেন তাই বলেন।’ নির্বাচনী প্রচারণাকালে বিভক্তির ব্যাপারে ৩৫ বছর বয়সী ভাসি গাওয়া বলেন, আগামী দিনে সব কিছু ঠিক হয়ে যাবে। আর ট্রাম্প বিরোধী বিক্ষোভ হবে না। মিজৌরির কলম্বিয়া থেকে আসা নিক অ্যালান বলেন, একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে তিনি ও তার পরিবার ওয়াশিংটন এসেছিলেন। তবে এখন শপথ অনুষ্ঠান দেখার জন্য তারা এখানে থেকে গেছেন। তিনি বলেন, দেশে পরিবর্তন আসছে। তাছাড়া ট্রাম্পের প্রেসিডেন্সিও মজার হবে বলে তিনি মনে করেন।
কুৎসা রটনাকারীরা ‘পতিতা’র চেয়েও খারাপ : পুতিন
এদিকে নির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প রাশিয়ার গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর সাথে আপোষ করতে বাধ্য হয়েছেন বলে যে খবর বেরিয়েছে তা প্রত্যাখ্যান করেছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন। তিনি বলেছেন, যারা ট্রাম্পের ব্যাপারে কুৎসা রটনা করেছে তারা পতিতার চেয়ে কোনো অংশে কম নয়।
একজন সাবেক ব্রিটিশ গোয়েন্দা কর্মীর বরাত দিয়ে সম্প্রতি পশ্চিমা গণমাধ্যম খবর দেয়, ২০১৩ সালে ট্রাম্প রাশিয়া সফরে গিয়ে অনৈতিক কাজ করেন যার প্রমাণ রুশ গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর হাতে রয়েছে। এ বিষয়টি জানার পর নির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট আমেরিকার চিরশত্রু রাশিয়ার সাথে আপোষরফা করতে বাধ্য হয়েছেন।
গত কয়েকদিন ধরে এই খবর নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ব্যাপক জল্পনা-কল্পনার পর এ নিয়ে মুখ খুললেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তিনি মঙ্গলবার মস্কোয় এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “যারা এ ধরনের মিথ্যা তথ্য তৈরির নির্দেশ দিয়েছে, যারা যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচিত প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে বর্তমানে এটি প্রচার করছে এবং যারা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে এটি ব্যবহার করছে তারা সবাই পতিতার চেয়েও খারাপ।”
পুতিন বলেন, তিন বছর আগে ট্রাম্প যখন মিস ইউনিভার্স প্রতিযোগিতার জন্য মস্কো সফর করেন তখন তিনি কোনো রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ছিলেন না। অন্য হাজারো ব্যবসায়ীর মতো তিনি একজন ধনকুবের হিসেবে এ সফরে এসেছিলেন। রুশ প্রেসিডেন্ট বলেন, “কাজেই আমাদের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো কি প্রতিটি মার্কিন ধনকুবেরের পেছনে লেগে থাকে? অবশ্যই নয়, এগুলো সম্পূর্ণ ফালতু কথা।”
পুতিন বলেন, ট্রাম্পের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভূতপূর্ব মিথ্যাচার পশ্চিমা রাজনৈতিক নেতাদের নৈতিক অবক্ষয়ের মাত্রা প্রমাণ করে।
রুশ প্রেসিডেন্ট আরো বলেন, “আমি ব্যক্তিগতভাবে ট্রাম্পকে চিনি না। আমি কখনো তার সাথে সাক্ষাৎ করিনি এবং তিনি আন্তর্জাতিক অঙ্গনে কি করতে চান তাও আমি জানি না। কাজেই তাকে আক্রমণ করে কথা বলা কিংবা অনর্থক তার পক্ষ হয়ে কথা বলা আমি পছন্দ করি না।”

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ