বৃহস্পতিবার ০৬ আগস্ট ২০২০
Online Edition

প্রিমিয়ার ফুটবলেও ভাল করতে চায় ইয়ংমেন্স ফকিরেরপুল

স্পোর্টস রিপোর্টার : বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগে দীর্ঘ ২২ বছর পর আবারও ফিরেছে ঐতিহ্যবাহী ফকিরেরপুল ইয়ংমেন্স ক্লাব। সদ্য সমাপ্ত বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগের শিরোপা জয় করেই দলটি আগামী মওসুমে প্রিমিয়ার লিগে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে। প্রায় দুই যুগ পরে শীর্ষ স্তরে ফেরার আনন্দের মাঝেই হারিয়ে যেতে চায় না ফকিরেরপুল, প্রিমিয়ারেও দাপটের সঙ্গেই টিকে থাকতে চায় দলটি। এক সময়ে এই ক্লাব থেকেই জাতীয় পর্যায়ে উঠে এসেছিলো আরমান মিয়া, নজরুল ইসলাম, মাসুদ রানা, মাকসুদুল আমিন রানা, শাহেদুল আলমসহ অনেক জাতীয় তারকা ফুটবলার। ৯৪ সালে দলটি প্রিমিয়ার থেকে নেমে যায়। তারপর আবারো ফিরতে দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হলো। মাঝে ২০১০ ও ২০১৪ সালে দুইবার ঢাকা সিনিয়র ডিভিশন লিগ জিতে খেলে ২০১৫ সালের বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়নশিপ লিগে। গত মৌসুমে ১ পয়েন্টের জন্য অবনমিত হওয়া থেকে রক্ষা পেয়ে এবারের মওসুমে গঠন করে শক্তিশালী দল। বাজেট বেশি ছিল না, তবে লক্ষ্য ছিল অটুট। অনেক টাকা ব্যয় করা দলগুলোকে টপকে ফকিরেরপুল শিরোপা জিতে নেয়।
ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাব্বির হোসেন ফুটবল অঙ্গনে এক পরিচিত নাম। ফুটবল অন্তঃপ্রাণ এই সংগঠক জানিয়েছেন, তাদের সাফল্যের মূলে রয়েছে যথাযথ টিমওয়ার্ক। তার বক্তব্য, ‘আমরা লিগের এক মাস আগে অনুশীলন শুরু করি। খেলোয়াড় বাছাই করেছি পজিশন অনুয়ায়ী, কোচ মহিদুর রহমান মিরাজ কঠোর নিয়মতান্ত্রিকতার সঙ্গে দলকে পরিচালনা করেছেন। আমাদের গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান রাশেদ খান মেনন এমপি, ক্লাবের সভাপতি খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া, ফুটবল কমিটির চেয়ারম্যান সৈয়দ রিয়াজুল করিম সবাই-যার যার জায়গা থেকে দলকে দিয়েছেন সর্বোচ্চ উৎসাহ। খেলোয়াড়রা সেই কারণেই দিয়েছে তাদের সর্বোচ্চ পারফরম্যান্স।’মতিঝিল ক্লাব পাড়ায় জুয়া খেলাটা নৈত্য নৈমিত্তিক ব্যাপার হলেও সাব্বির সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পর ফকিরেরপুল ক্লাবে বন্ধ করে দেন টাকা বিনিময়ে সব রকম জুয়া খেলা। সেই বিষয়টিও সামনে আনলেন তার কথায়, ‘আমরা খেলার একটি উপযোগী পরিবেশ নিশ্চিত করতে চেয়েছি। আমাদের রয়েছে দোকান-গোডাউন সহ নির্দিষ্ট কিছু আয়ের উৎস। আমরা এগুলোর ওপরই বেশি নির্ভর করেছি। ক্লাবে স্পোর্টিং স্পিরিট রাখতে চেয়েছি।’ প্রিমিয়ারের বিশাল চ্যালেঞ্জ সামনে রেখে এখন থেকেই দল গুছানোর দিকে মনোযোগ দিতে চান দক্ষ সংগঠক সাব্বির হোসেন।তিনি বলেন, ‘বিপিএলে অনেক দলই এক মৌসুমের বেশি টিকতে পারে না। ফকিরেরপুলের রয়েছে ফুটবল ঐতিহ্য, আমাদের অনেক কষ্টের ফসল এই সাফল্য। এটিকে আমরা যে কোনও মূল্যে অব্যাহত রাখবো, ফকিরেরপুল আবারও ফিরবে সাফল্যের মধ্যগগনে। এটি শুধু আমার নয়, ফকিরেরপুলবাসীদের প্রত্যাশা।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ