বৃহস্পতিবার ০৬ আগস্ট ২০২০
Online Edition

বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড জুটি

স্পোর্টস রিপোর্টার : লর্ডসের মতো ওয়েলিংটনেও সেঞ্চুরি করলেই নাম উঠে আসে অনার্স বোর্ডে। গতকাল সেরকম সেঞ্চুরি করে নাম উঠিয়েছেন সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম। দ্বিতীয় দিনকে রেকর্ডময় করে সাকিব আউট হন ২১৭ রানে আর মুশফিক বিদায় নেন ১৫৯ রানে। এর আগে ২০১০ সালে লর্ডসে লর্ডসে সেঞ্চুরি করে অনার্স বোর্ডে নাম লিখিয়েছিলেন তামিম ইকবাল। গতকাল সাকিব-মুশফিকের রেকর্ডময় জুটিতে ভর করেই প্রথম ইনিংসে দ্বিতীয় দিন ৭ উইকেটে ৫৪২ রান করেছে বাংলাদেশ। ফলে ওয়েলিংটনে প্রথম টেস্টেই চালকের আসনে আছে বাংলাদেশ। সাকিব-মুশফিকের জুটিতে আসা ৩৫৯ রান টেস্টে পঞ্চম উইকেটে চতুর্থ সর্বোচ্চ। যদিও বাংলাদেশের ইতিহাসে যে কোনও উইকেটে এটাই সেরা জুটি। গতকাল নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের হয়ে পঞ্চম উইকেট জুটিতে রেকর্ড সর্বোচ্চ ৩৫৯ রানের জুটি গড়েছেন বাংলাদেশের অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম ও সাকিব আল হাসান। এর আগে যে কোনও উইকেটে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ জুটিটি ছিল ৩১২ রানের। পাকিস্তানের বিপক্ষে খুলনায় সেটি করেছিলেন ইমরুল ও তামিম। গতকাল মুশফিকুর রহিম ১৫৯ করে আউট হওয়াতেই ভাঙল সাকিবের সঙ্গে তাঁর ৩৫৯ রানের জুটি। আর ততক্ষণে এই জুটি ঢুকে গেছে ইতিহাসের পাতায়। শুধু তা-ই নয়, টেস্ট ইতিহাসে পঞ্চম উইকেটে চতুর্থ সর্বোচ্চ জুটি হয়ে গেল এটি। নিউজিল্যান্ডের মাঠে এটি সফরকারী দলগুলোর যেকোনো উইকেট জুটিতে নতুন রেকর্ডও। ফলে সাকিব-মুশফিক ভাঙলেন ৪৪ বছরের পুরোনো রেকর্ড। ১৯৭৩ সালে ডানেডিন টেস্টে চতুর্থ উইকেটে ৩৫০ রান যোগ করেছিলেন পাকিস্তানের আসিফ ইকবাল ও মুশতাক মোহাম্মদ। সেটিই ছিল নিউজিল্যান্ডে সফরকারী দলগুলোর সর্বোচ্চ জুটি। সাকিব-মুশফিকের এই জুটির ওপরে যেকোনো দল মিলিয়েই আছে মাত্র দুটি জুটি। দুটিই নিউজিল্যান্ডে, তা বলে না দিলেও চলছে। ১৯৯১ সালে এই ওয়েলিংটনে তৃতীয় উইকেটে ৪৬৭ যোগ করেছিল ক্রো-জোন্সের জুটি। সেটি এখনো নিউজিল্যান্ডে সর্বোচ্চ জুটির রেকর্ড হয়ে আছে। সব দেশ মিলিয়ে প্রতিপক্ষে মাটিতে পঞ্চম উইকেটে এটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জুটির রেকর্ড। ১৯৯৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে জোহানেসবার্গ টেস্টে স্টিভ ওয়াহ আর গ্রেগ বিলওয়েট পঞ্চম উইকেটে ৩৮৫ রান এনে দিয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়াকে। এরপর প্রতিপক্ষের মাঠে সাকিব-মুশফিকের জুটিটাই পঞ্চম উইকেটের রেকর্ড। আর যেকোনো উইকেটে প্রতিপক্ষের মাঠে সবচেয়ে বেশি রান তোলায় টেস্ট ইতিহাসে সাকিব-মুশফিকের এই জুটি থাকল ১৪ নম্বরে। যে তালিকায় সবার ওপরে আছে ১৯৩৪ সালে ওভালে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ব্র্যাডম্যান-পন্সফোর্ডের ৪৫১ রানের জুটিটি। গতকাল সাকিব তার ক্যারিয়ারসেরা ব্যাটিংও করেন। তার আগের সর্বোচ্চ রান ছিল ১৪৪। সেটা ছিল শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে গল টেস্টে। গতকাল ডাবল সেঞ্চুরিসহ ২১৭ রান করেই মাঠ ছাড়েন সাকিব। দলীয় ৫৩৬ রানে আউট হন সাকিব। নিল ওয়াগনারের বলে ব্যাটের কানায় লেগে বোল্ড হন সাকিব। আউট হওয়ার আগে ২৭৬ বলে ২১৭ রানের ইনিংসে ৩১টি চার মেরেছেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। তবে এর আগে মুশফিকের ডাবল সেঞ্চুরির বেকর্ড আছে। টেস্টে ২০০ রান করেছিলেন তিনি। গতকাল সেঞ্চুরিসহ করলেন ১৫৯ রান। ২৩টি চার ও ১টি ছয়ে ২৬০ বলে সাজানো ছিল মুশফিকের করা ১৫৯ রানের ইনিংসটি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ