শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

রুশ বিরোধী পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে ওবামা প্রশাসন

২৯ ডিসেম্বর, রয়টার্স : ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়েই মার্কিন নির্বাচনে হ্যাকিংয়ের অভিযোগে রাশিয়ার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছিলেন বিদায়ী প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। গতকাল বৃহস্পতিবার রুশবিরোধী সেই পদক্ষেপের রূপরেখা ঘোষণা করার কথা ওবামা প্রশাসনের। গত বুধবার দুই মার্কিন কর্মকর্তা ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এই পরিকল্পনার কথা নিশ্চিত করেছেন। তবে বিদায়ী প্রেসিডেন্ট রাশিয়ার বিরুদ্ধে ঠিক কী কী পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছেন তার রূপরেখা জানা যায়নি। মার্কিন কর্মকর্তাদের দাবি, রাশিয়া ওই তথ্য হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে সংগ্রহ করে উইকিলিকসের কাছে হস্তান্তর করেছে। তবে প্রথম থেকেই তাদের অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে রুশ কর্তৃপক্ষ। ১৫ ডিসেম্বর (বৃহস্পতিবার) হোয়াইট হাউসের এক মুখপাত্র দাবি করেন, রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন নিজেই সাইবার হামলার সঙ্গে যুক্ত। এর কয়েক ঘণ্টা পরই ওবামা রাশিয়ার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়ার ঘোষণা দিয়ে মার্কিন সংবাদমাধ্যম ন্যাশনাল পাবলিক রেডিও এনপিআর-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রাশিয়ার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার ঘোষণা দেন ওবামা। তবে বিদায়ী প্রেসিডেন্ট রাশিয়ার বিরুদ্ধে ঠিক কী কী পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছেন, রয়টার্সকে তা নির্দিষ্ট করে বলতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন ওই কর্মকর্তারা। তারা জানান, অর্থনৈতিক অবরোধ, অভিযুক্ত করা, রুশ কর্মকর্তা কিংবা শাসকগোষ্ঠীকে লজ্জায় ফেলতে তথ্য ফাঁস এবং যুক্তরাষ্ট্রে রুশ কূটনীতিকদের ওপর বিধিনিষেধ আরোপের মতো বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। নাম প্রকাশ না করে ওই দুই কর্মকর্তা আরও জানান, রাশিয়ার নির্বাচনি হ্যাকিংয়ের ঘটনাকে অতিক্রম করে যায় এবং নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায় এমন কোন সাইবার দ্বন্দ্বের মতো পদক্ষেপ এড়িয়ে যাওয়া হবে। যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা এফবিআই, কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ এবং ডিরেক্টর অব ন্যাশনাল ইন্টেলিজেন্স এর কার্যালয় এ ব্যাপারে সম্মত হয়েছে যে নির্বাচনের আগে ডেমোক্র্যাটিক পার্টি অর্গানাইজেশনগুলোতে হ্যাকিংয়ের পেছনে রাশিয়া রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের মতে, এ সংস্থাগুলো আরও একটি কথা বিশ্বাস করে। তাহল-রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পকে জেতাতে রাশিয়া হস্তক্ষেপ করতে চেয়েছিল। অবশ্য রাশিয়া বরাবরই হ্যাকিং-এর অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। ট্রাম্পও যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা কমিউনিটির মূল্যায়নকে নাকচ করে আসছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ