বৃহস্পতিবার ০৪ জুন ২০২০
Online Edition

পাবিপ্রবি’র ভর্তি পরীক্ষায় অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার অভিযোগ এনে অভিভাবকদের সাংবাদিক সম্মেলন

পাবনা সংবাদদাতা : পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (পাবিপ্রবি) ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক ইঞ্জিনিয়ারিং ও স্নাতক সম্মান প্রথমবর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার অভিযোগে গতকাল সোমবার পাবনা প্রেসক্লাব অডিটোরিয়ামে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ইংলিশ ভার্সান পরীক্ষার্থীর অভিভাবকেরা। 

ইংলিশ ভার্সান শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের পক্ষে সংবাদ সম্মেলনে তৌফিকুর আলম তৌফিক লিখিত বক্তব্যে বলেন, ২৩ ডিসেম্বর ভর্তি পরীক্ষায় বাংলা ভার্সান প্রশ্নে পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়েছে। অথচ বাংলা ভার্সানের প্রশ্নে পরীক্ষা দিতে অসমর্থ হয়েছে ইংরেজি ভার্সানের পরীক্ষার্থীরা। ঢাবি, বুয়েট, কুয়েট, রুয়েট, আইইউটিসহ দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়। পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শুধুমাত্র বাংলা ভাষার প্রশ্নপত্র দিয়ে পরীক্ষা নেওয়ায় ইংরেজি ভার্সানের পরীক্ষার্থীদের প্রতি অবিচার ও অবজ্ঞা করা হয়েছে। ফলে ইংরেজি ভার্সানের পরীক্ষার্থীরা গভীর হতাশার মধ্যে ভুগছে। 

 তৌফিকুর আলম তৌফিক বলেন, পাবিপ্রবি’র ভর্তি পরীক্ষা শেষ হওয়ার পরপরই ইংরেজি ভার্সানের পরীক্ষার্থীর অভিভাবকেরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে কর্তব্যরত নিরাপত্তা রক্ষী ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন চরম অসৌজন্যমূলক আচরণ করেছেন। অভিভাবকেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আওয়াল কবির জয়ের মাধ্যমে ভিসি প্রফেসর ড. আল-নকীব চৌধুরীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে চাইলে প্রক্টর তাদের কথা তার কাছেই জানাতে বলেন এবং জানান ভিসির কথাই আমার কথা। এরই এক পর্যায়ে অভিভাবকদের সাথে দেখা মেলে ভিসির সাথে। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ভিসি তাদের জানিয়েছেন, বিগত সময়ের মতো এবারেও একই নিয়মে প্রশ্ন করা হয়েছে। এ ধরনের অভিযোগ ইতঃপূর্বে কেউ করেননি। আর প্রতিকার সম্পর্কে তিনি কোন সদুত্তর না দিয়ে অভিভাবকদের জানিয়ে দেন আপনাদের কিছু করার থাকলে করতে পারেন এমন মন্তব্য ছুঁড়ে দিয়ে তিনি ইংরেজি ভার্সানের পরীক্ষার্থীদের অসুবিধার জন্য তিনি দুঃখ প্রকাশ করেন।  সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় অব্যবস্থাপনা, গাফিলতি ও অনিয়ম আর কাণ্ডজ্ঞানহীনতার কারণে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জীবনে নেমে এসেছে অন্ধকার। আমরা অভিভাবক হিসেবে এই অন্যায় কোনভাবে মেনে নিতে না পেরেই গণমাধ্যমের দ্বারস্থ হয়েছি। এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রী, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্ট সকল কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন ইংরেজি ভার্সানের অভিভাবকেরা।  সংবাদ সম্মেলনে দেওয়ান মাজহারুল ইসলাম মুন্নু, আসলাম হোসেন, দেওয়ান কামাল হোসেনসহ ইংরেজি ভার্সানের অভিভাবকরা উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ