বুধবার ২৭ জানুয়ারি ২০২১
Online Edition

রাবিতে নিয়োগ পরীক্ষায় আ’লীগের হস্তক্ষেপের প্রতিবাদে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ

রাবি রিপোর্টার : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়োগ পরীক্ষায় বহিরাগত আওয়ামী লীগের হস্তক্ষেপ, প্রো-ভিসিকে হত্যার হুমকি ও শিক্ষার্থীদের হয়রানির প্রতিবাদে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের প্রভাব ও হস্তক্ষেপের প্রতিবাদে তারা এ কর্মসূচি পালন করেন।
বিক্ষোভ মিছিলটি ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকের সামনে থেকে শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের প্রধান সড়কগুলো প্রদক্ষিণ করে পুনরায় সেখানে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হয়। সমাবেশে বাংলা বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী তাসনুভা তাহরীন অন্তরার সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন, অর্থনীতি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী প্রদীপ মার্ডি, হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী সায়মন রহমান, পরিসংখ্যান বিভাগের শিক্ষার্থী মিনহাজুল আবেদীন, ইসলামের ইতিহাস বিভাগের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী আব্দুল মজিদ অন্তর, নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী লিটন দাস প্রমুখ। পরিসংখ্যান বিভাগের শিক্ষার্থী মিনহাজুল আবেদীন বলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কোনো নেতা বা স্থানীয়দের নিকট হতে ইজারা নেয়া হয়নি। আমরা মেধা দিয়ে এখানে পড়তে আসছি, কারো দয়ায় আসিনি। ২০১৪ সালের ২ ফেব্রুয়ারিতে আমরা ন্যায্য দাবিতে আন্দোলন করেছিলাম। অথচ ওইদিন প্রক্টর ও পুলিশ দিয়ে আমাদের ওপর চড়াও হয়েছিলেন। কিন্তু আজ আপনারা নিশ্চুপ। যখন বহিরাগতরা আমাদের অবরোধ করে গোটা বিশ্ববিদ্যালয়কে অপমান করে তখন বুঝি আপনাদের আমাদের মান-সম্মান যায় না।এসময় সাধারণ শিক্ষার্থীরা বলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে তার নিজস্ব কর্মনীতির উপর ভিত্তি করে পরিচালিত হয়। এখানে বহিরাগত বা স্থানীয় দালালদের স¦ার্থসিদ্ধির জন্য কোন রকম হস্তক্ষেপ মেনে নেয়া হবে না। সমাবেশ থেকে আগামী ২৬ ডিসেম্বর একই দাবিতে সকাল ১১টায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের ঘোষণা দেয়া হয়। এসময় প্রায় অর্ধ-শতাধিক সাধারণ শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন। প্রসঙ্গত, শুক্রবার বিশ^বিদ্যালয়ের ক্যাটালগ, ডাটা এন্ট্রি অপারেটর ও গ্রন্থাগার সহকারী পদের নিয়োগ পরীক্ষা বন্ধ করে দেন রাবি শাখা ছাত্রলীগ ও মহানগর আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা। পরীক্ষা বন্ধ করতে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ভবন ও ফটকগুলোতে তালা লাগায়। শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পাসে ঢুকতে ও বের হতে বাধা প্রদান করে। এমনকি পরীক্ষার্থীদের প্রবেশপত্র ছিঁড়ে লাঞ্ছিত করে তাড়িয়ে দেয় স্থানীয় নেতাকর্মীরা। এর আগে একইভাবে গত ২১ ডিসেম্বর রাবি স্কুলের একটি নিয়োগ পরীক্ষার সাক্ষাৎকার বন্ধ করে দেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ