শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

খুলনায় প্রাথমিকের ৫৬ ভাগ বই পৌঁছেছে

খুলনা অফিস : উৎসবের মধ্য দিয়ে খুলনায় বছরের প্রথম দিন শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেয়া হয়। নতুন বই হাতে পেয়ে শিক্ষার্থীদের উচ্ছ্বাস থাকে বাঁধভাঙা জোয়ারের মতো।
তবে গেলো বছর প্রাথমিকের বইয়ে নিম্নমানের ছাপার কারণে শিক্ষার্থীদের অনেক ঝামেলা পোহাতে হয়েছে। বইয়ে অতিরিক্ত কালির ছাপ, অস্পষ্ট ছাপা, গল্পের নাম আংশিক বাদ পড়া ও ছবি বিকৃত অবস্থায় ছিলো। চলতি বছর এসব সঙ্কট কাটিয়ে উঠতে আগেভাগেই প্রস্তুতি নিয়েছে শিক্ষা বিভাগ।
খুলনা জেলায় এবছর প্রাথমিকে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন ক্যাটাগরির এক হাজার ৮৩০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বইয়ের চাহিদা রয়েছে প্রায় ১২ লাখ ১৮ হাজার। এর মধ্যে বই পাওয়া গেছে ৬ লাখ ৫৬ হাজার। যা মোট চাহিদার শতকরা ৫৬ ভাগ। বাকি বই আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে পাওয়া যাবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।
শিক্ষকরা জানায়, গেলো বছর প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির বইগুলোতে ওপরের মলাট ঝকঝকে থাকলেও ভেতরে মোটা নিউজপ্রিন্টের কারণে এসব বই শিশুরা নাড়াচাড়া করলেই ছিঁড়ে যেতো। তবে বইয়ের ছাপা ও বাইন্ডিং আগের বছরের তুলনায় অনেক ভালো বলে জানিয়েছেন শিক্ষা কর্মকর্তারা।
গেলো বছর চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণির দুই লাখ ৭৯ হাজার বই স্কুলগুলোতে দেরিতে পৌঁছায়। এবারো তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর প্রায় ৫ লাখ ৬২ হাজার বই এখনো খুলনায় পৌঁছেনি।
খুলনা জেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম জানান, এর মধ্যে চাহিদার ৬ লাখ ৫৬ হাজার বই পাওয়া গেছে। যা মোট চাহিদার ৫৬ ভাগ। বাকি বই আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে পাওয়া যাবে বলে জানা গেছে।
বছরের প্রথম দিনে খুলনায় শিক্ষার্থীদের হাতে বিনামূল্যে বই তুলে দেয়ার জন্য ইতোমধ্যে প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। নিম্নমানের ছাপা ও বাইন্ডিং ত্রুটি ছাপিয়ে শিক্ষার্থীরা এবার নির্ভুল বই হাতে পাবে এটাই এখন শিক্ষা সংশ্লিষ্টদের প্রত্যাশা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ