শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

অশুভ স্বার্থান্বেষী মহল পোশাক শিল্পকে ধ্বংস করতে সবসময়ই ষড়যন্ত্রে লিপ্ত

 চট্টগ্রাম অফিস : বিজিএমইএ এবং জার্মান ইন্টারন্যাশাল কো অপারেশন (জিআইজেড) এর যৌথ উদ্যোগে চট্টগ্রামস্থ বিভিন্ন গার্মেন্টস্ কারখানার কমপ্লায়েন্স কর্মকর্তাদের তিনটি ব্যাচে সাত দিনব্যাপী (১৫-২২ ডিসেম্বর, ২০১৬) প্রশিক্ষণ কর্মশালা স্থানীয় এক হোটেলের সম্মেলন কক্ষে সমাপ্ত হয়। বিজিএমইএ’র প্রথম সহ-সভাপতি মঈনউদ্দিন আহমেদ (মিন্টু) প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে প্রক্ষিণার্থীদের হাতে সনদ পত্র তুলে দেন। বিজিএমইএ’র পরিচালক এবং বিজিএমইএ জিআইজেড প্রকল্পের ডাইরেক্টর ইনচার্জ সাইফ উল্লাহ মনসুর উপস্থিত ছিলেন।
সনদপত্র প্রদান পূর্ব বক্তব্যে মঈনউদ্দিন আহমেদ (মিন্টু), বাংলাদেশের আর্থ-সমাজিক উন্নয়নে গার্মেন্টস শিল্পের অবদানের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন- এ শিল্প কঠিন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে বিশ্ববাজারে এগিয়ে চলছে। রফতানি চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় মিড-লেবেল কর্মকর্তাদের দক্ষতার বিকল্প নাই। বিশেষ করে বিদেশী ক্রেতাদের সাথে লেনদেন এ আরো চৌকষ ও পারদর্শী হতে হবে। তিনি বলেন অশুভ স্বার্থান্বেষী মহল এ শিল্পকে ধ্বংস করতে সবসময়ই ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। শ্রমিকদের উস্কানি দিয়ে শিল্পের ধারাবাহিক কার্যক্রম বাধা সৃষ্টি করে- এ শিল্প তথা-দেশের অর্থনীতিকে পঙ্গু করতে সচেষ্ট। তিনি তাদেরকে এ বিষয়ে সতর্ক দৃষ্টি রাখার পরামর্শ দেন। শ্রমিক-মালিক সুসম্পর্ক স্থাপনে মিডলেবেল কর্মকর্তাদের দক্ষতা ও কৌশলী কার্যক্রমের উপর গুরুত্ব আরোপ করে প্রশিক্ষণ লব্ধ জ্ঞান স্ব স্ব কর্মস্থলে যথাযথ প্রয়োগের আহবান জানান তিনি। জার্মান ইন্টারন্যাশাল কো-অপারেশন (জিআইজেড) এর সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে ভবিষ্যতে এ ধরনের কর্মশালার সংখ্যা আরো বৃদ্ধি করতে সংস্থাটির প্রতি আহবান জানান তিনি। অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন- বিজিএমইএ’র পরিচালক- সাইফ উল্লাহ্ মনসুর। প্রশিক্ষক মোতহার উদ্দিন ও ইঞ্জিনিয়ার আনম শহীদুল্লাহ। ৩টি ব্যাচের ১১২ জন কর্মকর্তাকে সনদ পত্র প্রদান করা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ