বৃহস্পতিবার ১৭ জুন ২০২১
Online Edition

জাতীয় ক্রিকেট লিগে ঢাকা ও খুলনার জয়

স্পোর্টস রিপোর্টার : জাতীয় ক্রিকেট লিগে জয় পেয়েছে ঢাকা ও খুলনা বিভাগ। ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে জাতীয় ক্রিকেট লিগের টায়ার ওয়ানের ম্যাচে জয় পেয়েছে ঢাকা বিভাগ। মোহাম্মদ আশরাফুলদের ঢাকা মেট্রোকে ৫ উইকেটে হারিয়েছে ঢাকা বিভাগ। আগে ব্যাট করা ঢাকা মেট্রো নিজেদের প্রথম ইনিংসে তোলে মাত্র ১৬৬ রান। নিজেদের প্রথম ইনিংসে ঢাকা ১৮৭ রানে গুটিয়ে যায়। ঘুরে দাঁড়ানোর সুযোগ পেয়েও তা কাজে লাগাতে পারেনি মেট্রোর ব্যাটসম্যানরা। দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ১২৫ রান সংগ্রহ করে তারা। জবাবে, ৫ উইকেট হারিয়ে জয়ের জন্য নির্ধারিত ১০৫ রান তুলে নেয় ঢাকা বিভাগ। ঢাকা মেট্রোর হয়ে প্রথম ইনিংসে ৪৭ রান করেন ওপেনার সাদমান ইসলাম। শামসুর রহমানের ব্যাট থেকে আসে ১৪ রান। দলপতি মার্শাল আইয়ুব করেন ৮ রান। বাংলাদেশের এক সময়কার তারকা মোহাম্মদ আশরাফুল ৩৯ রান করে বিদায় নেন। ২২ রান আসে মেহরাব হোসেন জুনিয়রের ব্যাট থেকে। ঢাকা বিভাগের হয়ে একটি করে উইকেট পান শাহাদাত হোসেন, দেওয়ান সাব্বির আর মিনহাজ খান। এছাড়া তিনটি উইকেট দখল করেন নাজমুল ইসলাম আর চারটি উইকেট নেন ঢাকার দলপতি মোহাম্মদ শরীফ। ঢাকার হয়ে প্রথম ইনিংসে মিনহাজ ৪৩, রকিবুল ১৫, তাইবুর ১৫, নাদিফ চৌধুরি ২৩, জাহিদ ৩২, মোহাম্মদ শরীফ ২৭ রান করেন। মেট্রোর হয়ে তিনটি করে উইকেট দখল করেন শহিদুল ইসলাম এবং মোহাম্মদ আশরাফুল। মেট্রো নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ১২৫ রানে গুটিয়ে যায়। আশরাফুলের ব্যাট থেকে আসে ১২ রান। ৩৯ রান করেন মেহরাব হোসেন। আর ২৮ রান করেন সাদমান ইসলাম। ১০৫ রানের টার্গেটে নেমে আবু হায়দারের বোলিং তোপে পড়লেও জয় হাতছাড়া করেনি ঢাকা। আবদুল মজিদ ১৬, জয়রাজ শেখ ৩০, মিনহাজ ১৪, রকিবুল ০, তাইবুর ২৭, নাদিফ ০ আর জাহিদ ১৬ রান করেন। আবু হায়দার চারটি উইকেট তুলে নেন। মোহাম্মদ আশরাফুল উইকেটশূন্য ছিলেন।

এদিকে আশিকুজ্জামানের দুর্দান্ত বোলিংয়ে বরিশাল বিভাগকে ১০ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে খুলনা বিভাগ। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে মাঠে নেমেই সাতক্ষীরার ডানহাতি এই পেসার তুলে নিয়েছেন ৯ উইকেট। ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কারও উঠেছে তার হাতে। জাতীয় ক্রিকেট লিগের টায়ার ওয়ানের ম্যাচে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে বরিশাল তাদের প্রথম ইনিংসে তোলে ১৭১ রান। জবাবে, নিজেদের প্রথম ইনিংসে খুলনা সংগ্রহ করে ৩৭১ রান। দ্বিতীয় ইনিংসে বরিশাল ২১১ রানে গুটিয়ে গেলে জয়ের জন্য খুলনার সামনে টার্গেট দাঁড়ায় মাত্র ১২ রান। কোনো উইকেট না হারিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে খুলনা। বিকেএসপির ৩ নম্বর মাঠে প্রথম ইনিংসে বরিশালের দলপতি ফজলে মাহমুদের ৯৫ রানের ইনিংসটি ছিল দলীয় সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংস। শাহরিয়ার নাফিস ১০ রান করেন। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৮ রান ছিল শাহিন হোসেনের। প্রথম ইনিংসে খুলনার হয়ে তিনটি করে উইকেট দখল করেন জিয়াউর রহমান আর আশিকুজ্জামান। এছাড়া, দুটি করে উইকেট দখল করেন আল আমিন হোসেন এবং বিশ্বনাথ হালদার। নিজেদের প্রথম ইনিংসে খুলনার হয়ে শতক হাঁকান আনামুল হক বিজয় এবং তুষার ইমরান। ২০২ বলের ইনিংসে বিজয় ১১টি চারের সঙ্গে ৬টি ছক্কা হাঁকান। আর তুষার ইমরানের ১৯১ বলের ইনিংসে ছিল ১২টি চার আর একটি ছক্কার মার।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ