শনিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

জীবনদাসকাঠি স্কুলের জরাজীর্ণ ভবনের পলেস্তরা খসে পড়ছে

ঝালকাঠির সংবাদদাতা : রাজাপুরের জীবনদাসকাঠির ৫২ নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনটি খুবই জরাজীর্ণ অবস্থা হয়েছে। যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা নিয়েই পাঠদান কার্য়ক্রম চালিয়ে আসছেন শিক্ষক শিক্ষার্থীরা। সরেজমিনে দেখা গেছে, তিনটি শ্রেনী কক্ষ ও একটি শিক্ষক মিলনায়তনসহ ৪টি কক্ষ বিশিষ্ট স্কুল ভবনটি অনেক পুরাতন হয়ে যাওয়ায় প্রতিটি কক্ষের ছাদের নিচের অংশের পলেস্তরা প্রায়ই খসে শিক্ষক শিক্ষার্থীর গায়ে-মাথায় পরছে। পলেস্তরা খসে গিয়ে প্রতিটি কক্ষের ও বারান্দার ছাদের রড বেড়িয়ে গেছে। যে কোন সময় ছাদ ধসে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ আব্দুর রাজ্জাক জানান, ১৯২৪ ইং সালে বিদ্যালয়টির প্রতিষ্ঠাকাল থেকে অতি সুনামের সাথে শিক্ষা কার্যক্রম চলে আসছে। তখন ভবনটি মাত্র ৪ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছিল। ভবনটি অনেক পুরাতন হওয়ায় চারটি কক্ষ ও বারান্দার ছাদের নিচের অংশসহ বিভিন্ন স্থান থেকে প্রায়ই পলেস্তরা খসে শিক্ষক-শিক্ষার্থীর গায়-মাথায় পরছে। বর্তমানে বিদ্যালয়ে চার জন দক্ষ শিক্ষক ১শ’ ২০ জন শিক্ষার্থীকে ঝুকিপূর্ণ অবস্থায় আতঙ্কের মধ্যে থেকে পাঠদান কার্যক্রম চালিয়ে আসছেন। বর্ষা মৌসুমে ছাদ ধসে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আতঙ্কে রয়েছি আমরা। এই জরাজীর্ণ বিষয়ে স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব বজলুল হক হারুন ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ রফিকুল ইসলামকে লিখিতভাবে অবহিত করা হয়েছে। এ বিষয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ রফিকুল ইসলাম জানান, ওই ভবনটিসহ উপজেলার মোট ৪৮ টি বিদ্যালয়ের নতুন ভবন চেয়ে ঢাকা অফিসে আবেদন করেছি। সেখানে স্থানীয় সাংসদ বি এইচ হারুনের ডিও লেটার দেয়া হয়েছে। বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। শীগ্রই ভবনগুলো পেয়ে যাবো।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ