শনিবার ১১ জুলাই ২০২০
Online Edition

দেড় লাখ ইউরো জরিমানা গুণতে হলো ডেইলি মেইলকে

২০ ডিসেম্বর, জিও টিভি : ব্রিটিশ প্রভাবশালী ট্যাবলয়েড ডেইলি মেইল দেশটির একটি মুসলিম পরিবারের প্রতি মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করায় তাদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন। পরিবারটিকে পত্রিকাটি জরিমানা বাবদ দেড় লাখ ইউরো দিয়েছে। গত সোমবার এক বিবৃতিতে ডেইলি মেইল ক্ষমা প্রার্থনা করে।
মার্কিন হোমল্যান্ড সিকিউরিটি ২০১৫ সালে মেহমুদ পরিবারের মোহাম্মাদ তারিক  মেহমুদ ও মোহাম্মাদ জাহিদ মেহমুদ নামের দুই ভাইকে আমেরিকা ভ্রমণ করতে  দেননি। তারা উগ্রবাদী দলের সঙ্গে যুক্ত হতে পারে এই সম্ভাবনায় তাদের আমেরিকা ভ্রমণ বাতিল করে যুক্তরাষ্ট্র।
ডেইলি মেইলের কলামিস্ট কের্টি হপকিন্স ২০১৫ সালের ২৩ ডিসেম্বর বিষয়টি নিয়ে একটি প্রতিবেদন করেন। প্রতিবেদনে তিনি মার্কিন হোমল্যান্ড সিকিউরিটি মেহমুদ ভাইদের আইনসঙ্গতভাবে যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণ করতে দেননি। তাদের ভ্রমণের কারণ হিসেবে দেখানো ডিজনিল্যান্ডে যাওয়া ব্যাপারটি অজুহাত ছিল বলে জানান তিনি। প্রকাশিত শিরোনামটিতে হপকিন্স দুই ভাইকে কুখ্যাত সন্ত্রাসী দল আল-কায়েদার সঙ্গে সংযুক্ত রয়েছেন বলেও দাবি করেন।
বিষয়টি নিয়ে পরবর্তীতে হপকিন্সের আরও একটি মতামত একই বছরের ২৯ ডিসেম্বর প্রকাশিত করে ডেইলি মেইল। যেখানে হপকিন্স দাবি করেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে উগ্রবাদী একটি পৃষ্ঠার পেছনে তারিক মেহমুদের ছেলে হামজা মেহমুদের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। তবে পরবর্তীতে মেহমুদ পরিবারের বিরুদ্ধে আনা সবগুলো অভিযোগই মিথ্যা প্রমাণ হয়।
ডেইলি মেইল পরিবারটিকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে প্রায় দেড় লাখ ইউরো দিতে বাধ্য হয় এবং বিষয়টির জন্য হপকিন্স টুইট বার্তায় ক্ষমা চান।
সংবাদপত্রটি মেহমুদ পরিবারের বিরুদ্ধে আনা মিথ্যা অভিযোগগুলোও স্পষ্ট করে  দেন। পত্রিকাটি বলে দুই ভাই আমেরিকাতে তাদের সহোদরের সঙ্গে দেখা করতে ও ডিজনিল্যান্ড ভ্রমণে এসেছিলেন। মেহমুদ পরিবারের কোন সদস্য সন্ত্রাসী কর্মকা- কিংবা সন্ত্রাসী দলের সঙ্গে জড়িত নয় এবং হেমজা মেহমুদ ফেইসবুকের কোন উগ্রবাদী পৃষ্ঠার সঙ্গে জড়িত নন বলেও জানান তারা।
বিষয়টি নিয়ে ডেইলি মেইলের ওয়েবসাইটে একটি আনুষ্ঠানিক বিবৃতি প্রকাশ করা হয়। বিবৃতিতে বলা হয়,‘ মিথ্যা খবরের জন্য মেহমুদ পরিবারের ভোগান্তি  ও বিব্রতকর অবস্থার সৃষ্টির জন্য ডেইলি মেইল ও হপকিন্স তাদের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী। মেহমুদ পরিবারের ক্ষতি ও আইনি খরচের জন্য তাদের পরিশোধ করতে  ডেইলি মেইল সম্মত হয়েছেন বলে বিবৃতিতে জানানো হয়।
বিষয়টি নিয়ে দুই ভাইয়ের আইনজীবী কার্টার রাক বলেন, তাদেরকে (মেহমুদ ভাইদের) চরমপন্থী বলার কোন ভিত্তি ছিল না। পরিবারটি কেবল ছুটি কাটাতে যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণে যাচ্ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ