বুধবার ১৫ জুলাই ২০২০
Online Edition

রাঙ্গুনিয়া মানবাধিকার সংস্থার আলোচনা সভা

রাঙ্গুনিয়া মানবাধিকার সেমিনারে বক্তব্য রাখছেন সংস্থার জেলা শাখার সভাপতি এডভোকেট কবির চৌধুরী

রাঙ্গুনিয়া (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা: বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার চট্টগ্রাম জেলা শাখার সভাপতি এডভোকেট মোহাম্মদ কবির চৌধুরী বলেছেন, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় বিচার বিভাগের ভূমিকা অপরিসীম। আইনের শাসন, মৌলিক মানবাধিকার, রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক ও সামাজিক সাম্য, স্বাধীনতা ও সুবিচার নিশ্চিতকরণে প্রণীত হয়েছে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধান’। সংবিধানে রাষ্ট্রের আইন, শাসন ও বিচার বিভাগের দায়িত্ব এবং স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য স্পষ্টভাবে বিধৃত রয়েছে। অথচ অধস্তন আদালতের বিচারকদের পদোন্নতি ও বদলির ক্ষমতা সুপ্রিম কোর্টের হাতে না থাকায় দ্বৈত শাসন চলছে। তবুও বিচার বিভাগ শতপ্রতিকুলতার মধ্যে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠায় নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছে’। বিশ্ব মানবাধিকার দিবস উদ্যাপন উপলক্ষে বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা রাঙ্গুনিয়া উপজেলা মডেল শাখার উদ্যোগে গত ১০ ডিসেম্বর ‘মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় বিচার বিভাগের স্বাধীনতা: প্রেক্ষিত বাংলাদেশ’ বিষয়ে সেমিনার ও গুণী সংবর্ধনা সভা বিকাল ৩টায় থানা পোস্ট-অফিস সম্মুখস্থ তালুকদার কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়। সংস্থার সভাপতি মাওলানা মুহাম্মদ জহুরুল আনোয়ারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনার উদ্বোধন করেন বিআরডিবি রাঙ্গুনিয়ার চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদেকুন নূর সিকদার। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সংস্থার আজীবন সদস্য সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান শিল্পপতি কাজী এম এন আলম। প্রধান আলোচক ছিলেন সংস্থার চট্টগ্রাম জেলা শাখার সভাপতি এডভোকেট মোহাম্মদ কবির চৌধুরী। প্রবন্ধের উপর আলোচনা করেন উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শামসুল আলম, অধ্যাপক মুহাম্মদ আবদুল হাই। পোমরা ইউনিয়ন শাখার সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মঞ্জুরুল ইসলাম মঞ্জুর সঞ্চালনায় ২য় পর্বে ইসলামী শিক্ষা-সংস্কৃতি বিস্তারে বুলবুলে চাটগাম মাওলানা মকবুল আহমদ (মরণোত্তর), সমাজসেবায় পদুয়া ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান নূরুচ্ছাফা তালুকদার (মরণোত্তর), জনকল্যাণে সাবেক অর্থ উপ-সচিব মুহাম্মদ শামসুল আলম (মরণোত্তর), শিক্ষা প্রশাসনে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সহকারী রেজিস্ট্রার আবুল কাসেম ও চিকিৎসাসেবায় হোমিওপ্যাথ সংগঠক ডা. এমএ গণিকে ‘মানবাধিকার পুরস্কার’ সম্মাননা প্রদান করা হয়। সম্মাননা গ্রহণ করে অনুভূতি ব্যক্ত করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সহকারী রেজিস্ট্রার আবুল কাসেম, ডা. এম এ গণি, মরণোত্তর সম্মাননা গ্রহণকারীদের পক্ষে মাওলানা মুহাম্মদ ওসমান হারুনী, ব্যাংকার মুহাম্মদ ইলিয়াছ ও নূরুল আবছার তালুকদার।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ