শুক্রবার ১৭ জুলাই ২০২০
Online Edition

লেবাননে ৩০ সদস্যের নয়া মন্ত্রিসভা

১৯ ডিসেম্বর, বিবিসি : লেবাননে ৩০ সদস্যের নয়া মন্ত্রিসভার নাম ঘোষণা করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরির নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যের এই সরকার পরিচালিত হবে।
বিবিসি বলছে, প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি জানিয়েছেন, সমস্যাসংকুল ওই অঞ্চলের ‘স্থিতিশীলতা রক্ষাই’ হবে নয়া মন্ত্রিসভার অগ্রাধিকার।
দেশটির সশস্ত্র রাজনৈতিক গোষ্ঠী হিজবুল্লাহসহ অধিকাংশ রাজনৈতিক দলকে মন্ত্রিসভার অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তবে মন্ত্রিসভায় প্রার্থিত স্থান না পাওয়া তাতে অন্তর্ভুক্ত হতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে খ্রিস্টান ফালনজিস্ট পার্টি। এক বিবৃতিতে ৪৬ বছর বয়সী সাদ হারিরি বলেন, “সিরিয়া সমস্যার নেতিবাচক ফলাফল থেকে দেশকে রক্ষায় কাজ করবে এটি (নয়া মন্ত্রিসভা)।”
আগামীকাল বুধবার নয়া মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে বলে মন্ত্রিসভার সচিব ফাওয়াদ ফ্লিফেল বলেন। এর মধ্যদিয়ে দেশটিতে দুই বছরেরও বেশি সময় ধরে চলা রাজনৈতিক অচলাবস্থা কাটিয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হবে বলে আশা করা হচ্ছে।
নবেম্বরে লেবাননের নয়া সরকার গঠনের জন্য সাদ হারিরিকে আহ্বান জানিয়েছিলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট মিশেল আউন।
সাদ হারিরি দেশটির শীর্ষ সুন্নি মুসলিম রাজনৈতিক নেতাদের একজন। এরআগে ২০০৯ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত তিনি প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছিলেন।
বর্তমানে প্রতিবেশি সিরিয়ার গৃহযুদ্ধের কারণে দেশটিকে নিরাপত্তা ঝুঁকি মোকাবিলা করতে হচ্ছে। পাশাপাশি ১০ লাখেরও বেশি সিরীয় শরণার্থী সামলানোর ক্ষেত্রেও হিমশিম খাচ্ছে দেশটি। দেশটিতে অর্থনৈতিক, অবকাঠামো এবং মৌলিক সেবাখাতে গুরুতর সমস্যা বিরাজ করছে।
২০০৫ সালে বৈরুতে গাড়ি বোমা হামলায় বর্তমান প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরির বাবা রফিক হারিরিসহ ২২ জন নিহত হয়। ওই হত্যাকাণ্ডের জন্য আন্তর্জাতিক আদালত  দেশটির শক্তিশালী সশস্ত্র রাজনৈতিক দল শিয়া মুসলিম হিজবুল্লাহ আন্দোলনের সদস্যদের অভিযুক্ত করেছে।
অবশ্য হিজবুল্লাহ হারিরি হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ বরাবরই অস্বীকার করে আসছে। উল্টো ইসরাইল এবং যুক্তরাষ্ট্রের ষড়যন্ত্রে এ হত্যাকা- সংঘটিত হয়েছে বলে দাবি তাদের।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ